রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ ০৯:৩৮:৩৫ এএম

কুরিয়ারের প্যাকেট থেকে জ্যান্ত বাঘের বাচ্চা উদ্ধার করল পুলিশ!

আন্তর্জাতিক | শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ | ০২:০৫:৩৪ পিএম

ডাকে ‌যাচ্ছিল নীল রঙের বাক্সটি। প্রথম দেখায় মনে হবে যেন খেলনা বাঘের ছানা। কিন্তু তা হলে তো আর সোশ্যাল মিডিয়ার চোখ ছানাবড়া হবে না। এটি হলো‚ যাকে বলে আসল বাঘের বাচ্চা। খোদ রয়েল বেঙ্গল টাইগার। অসহায় প্রাণীটির চার পা বাঁধা টেপ নিয়ে। করুণ শুকনো মুখে জুলজুল করে তাকিয়ে আছে প্লাস্টিকের ওপার থেকে। কুরিয়ারে পাচার হওয়ার পথে ধরা পড়েছে সে।

বক্সের ভিতরে বাঘের বাচ্চার সেই ছবি ফেসবুকে পোস্ট করেছে মেক্সিকো পুলিশ।

বুধবার মেক্সিকোর জালিসকো শহরের নিউ ত্লাকপাক সেন্ট্রাল বাস স্টেশনে হৈচৈ পড়ে যায়। পোস্টাল ডিপার্টমেন্ট বেশ কিছু প্যাকেট রেখেছে। বিমানে পাঠানো হবে কুরিয়ার মারফত। একটি নীল প্লাস্টিক কন্টেনার ঘিরে চিৎকার করতে থাকে স্নিফার ডগ। আগের সব পরীক্ষায় উতরে গেছে ওই প্যাকেট। যন্ত্র জানান দিয়েছে ভিতরে বিপজ্জনক কিছু নেই। কিন্তু কোনও মতেই তাকে ছাড়তে চাইছে না স্নিফার ডগটি।

তার গন্ধবিচারকে গুরুত্ব দিয়ে ডাককর্মীরা প্যাকেটটি খুললেন। যা দেখলেন‚ তাতে হতবাক সবাই। অনেক কিসিমের জিনিস দেখেছেন‚ আটকেছেন তারা। কিন্তু হলফ করে বলা যায় এমন জিনিস দেখেননি। কোনওদিন দেখতে হবে বলে ভাবেনওনি। ওই বিশাল নীল প্লাস্টিক কন্টেনারে করে পাঠানো হচ্ছিল আস্ত বাঘের ছানা! পশ্চিম মেক্সিকোর জালিসকো থেকে মধ্য মেক্সিকোর কোয়ারেতেরো শহরে।

শাবকটির সর্বাঙ্গ আটকানো টেপ দিয়ে। কন্টেনারের ছোট ছোট ছিদ্র দিয়ে প্রবেশ করেছে বাতাস। তাই কোনওমতে শ্বাস প্রশ্বাস চলেছে। কিন্তু পানির অভাবে বেচারির ডিহাইড্রেশন হয়ে গেছে। স্থানীয় বন্যপ্রাণী উদ্ধার কেন্দ্রে ব্যাঘ্রশাবকের পরিচর্যা চলছে। কে বা কারা কেন এই দুষ্কর্ম করেছে তার তদন্ত শুরু হয়েছে। ফেসবুকে লাইক আর কমেন্টে বন্যায় ভেসে যাচ্ছে ছোট্ট হালুম।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন