সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮ ১১:২০:৫৯ পিএম

খালেদা জিয়া জেলে, যা ভাবছে ২০দল

রাজনীতি | রবিবার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ | ০২:২২:১০ পিএম

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপি চেয়ারপার্সন ও ২০ দলীয় জোট নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে পাঠানো প্রসঙ্গে করা সমালোচনা ও তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ। সেই সঙ্গে জোট প্রধানকে মুক্ত করতে এবং আগামী আন্দোলন সংগ্রামে ঘোষিত সকল কর্মসূচীর প্রতি একাত্মতা ঘোষণা করার কথাও জানিয়েছেন জোটের একাধিক নেতৃবৃন্দ।

খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে জেলে বন্দি রাখার পরিণতি শুভ হবে না বলে মন্তব্য করে এলডিপির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি কর্নেল (অব:) অলি আহমদ বলেন, যে কারণে খালেদা জিয়াকে সাজা দেয়া হয়েছে তার সঙ্গে তিনি জড়িত নন। তিনি কোন অর্থ তসরুফ করেননি। হয়তো কিছু নিয়মে ভুল ছিলো। এর বাইরে কিছু না। দেশে বড় বড় দুর্নীতিবাজদের কোন বিচার হচ্ছে না। হাজার হাজার কোটি টাকা দুর্নীতি করেছে সরকারের মহলের অনেকে। তাদের কোন বিচার হচ্ছে না। অথচ কোন দোষ না করেও বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে বন্দি করা হয়েছে।

কর্নেল অলি বলেন, এই রায় সরকারের পূর্বপরিকল্পিত, আর নয়তো আকস্মিকভাবে রায়ের ১৫ দিন আগে কেন নাজিমউদ্দীন রোডের পরিত্যক্ত কারাগার সংস্কার করা হবে? বৃহস্পতিবার কেন রায় দেয়া হবে? ৬৩২ পৃষ্ঠার রায় কিভাবে ১০ দিনের ভেতর লেখা সম্ভব হবে? ১৫ দিনের মধ্যে হঠাৎ করে কেন নাজিমউদ্দীন রোডের পরিত্যক্ত কারাগার সংস্কার করা হলো? বিএনপি এই খবর রাখলো না কেন? আর বৃহস্পতিবার রায়ের দিন দেয়ার পেছনে কারণ ছিলো যেন শুক্রবার ও শনিবার খালেদা জিয়াকে জেলে রাখা। তাও আবার পরিত্যক্ত জেলে! সেখানে তাকে কয়েদিদের পোশাক পরানো হয়েছে বলে আমরা শুনেছি। এর সঙ্গে এরশাদ জড়িত আছে বলে আমি মনে করি। কারণ তিনিও নাজিমউদ্দীন রোডের জেলে এক সময় বন্দি ছিলেন।

বেগম জিয়াকে কেন সেখানে রাখা হলো? তাকে তো কাসিমপুর বা ঢাকায় নির্মিত নতুন কারাগারেও রাখা যেতো। বেগম খালেদা জিয়া একজন সাবেক প্রধামন্ত্রী, সাবেক সেনাপ্রধানের স্ত্রী। তার জন্য কেন ডিভিশন চেয়ে আবেদন করতে হবে? এটিতো এমনিতেই পাওয়ার কথা।

খালেদা জিয়াকে জেলে বন্দি করার জন্য সরকার সমস্ত তথ্য গোপন রেখেছে বলে দাবি করেন তিনি।

খালেদা জিয়াকে বন্দি রাখার প্রতিবাদে জনগণ অবশ্যই রাস্তায় নামবে মন্তব্য করে কর্নেল অলি বলেন, সরকারকে এর পরিণতি বুঝতে হবে। আমাদেরকে ধ্বংসাত্মক কোন কাজের দিকে ধাবিত না করার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন দাবি করে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপের চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি বলেন, তার বিরুদ্ধে প্রদত্ত রায় চলমান রাজনৈতিক সংকটকে আরো ঘনীভূত করবে, যার ফলশ্রুতিতে নির্বাচনী ও গণতান্ত্রিক পরিবেশ বিনষ্ট করবে।

তিনি বলেন, দেশবাসীর মত আমরাও মনে করি বেগম খালেদা জিয়া ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। রাজনৈতিক অপসংস্কৃতির ধারাবাহিকতাই এই রায়। বাংলাদেশের মানুষ সকল সময় নিপীড়িত মানুষের পক্ষে। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলার রায়ের পর ক্ষমতাসীন ও ক্ষমতাপ্রত্যাশীদের মুখোমুখি সাংঘর্ষিক অবস্থান আরো বেড়ে যেতে পারে। এ রায়ের কারণে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন প্রক্রিয়াকে ব্যাহত করতে প্রভাবিত করতে পারে।

তিনি বলেন, মামলার রায় ঘোষণাকে কেন্দ্র করে বাদানুবাদ, শাসকদল সংশ্লিষ্টদের দায়িত্বহীন কথাবার্তা ও মহড়া, সারা দেশে আইন শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর গণগ্রেফতার-টহল জনমনে ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করেছে। ক্ষমতাসীন ও ক্ষমতাপ্রত্যাশীদের মধ্যকার বিদ্যমান সাংঘর্ষিক অবস্থান আরো বেড়ে যাওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।

জোটের এই শীর্ষ নেতা বলেন, জবাবদিহিতামূলক গণতান্ত্রিক শাসনের অনুপস্থিতি, শাসন প্রশাসনে দলীয়করণ, বিচারব্যবস্থাসহ সব প্রতিষ্ঠানের প্রতি গণআস্থার ঘাটতি, স্বেচ্ছাচারী ক্ষমতার প্রয়োগ, অপরাধ ও বিচারে সুবিধাজনক বাছাই প্রক্রিয়া ইত্যাদি সবকিছু মিলে জনমনে বিরাজিত ধারনার পরিবর্তন সাধন কিংবা জনগণের সন্তুষ্টি বিধান কোনোটাই এ রায়ে নিষ্পত্তির সম্ভাবনা কম।

তিনি বলেন, রাজনৈতিক বিবেচনা থেকে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহে হাজার হাজার কোটি টাকার দুর্নীতি ও লুটপাটের বিষয়েও এখন পর্যন্ত বিশ্বাসযোগ্য ও কার্যকরী কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। এই মামলার রায়ের মধ্যে দিয়ে দেশের নির্বাচন কেন্দ্রীক রাজনৈতিক সংকট আরো ঘনীভূত হবে এবং রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব, সংঘাত, বিরোধ-বৈরতাও নতুন চেহারা নিয়ে আবির্ভূত হতে পারে।

এ বিষয়ে ২০ দলীয় জোটের শরীক দল ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এনডিপি চেয়ারম্যান খন্দকার গোলাম মোর্তুজা বলেন, সাবেক তিন তিনবারের প্রধানমন্ত্রী, ২০ দলীয় জোটের নেতা, বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। ন্যায় বিচার পেলে ইতিহাস আজ অন্য রকম হতো।

আজকের রায় রাজনৈতিক রায় হিসেবে আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, পূর্বেই আমরা আশংকা করেছিলেন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ন্যায় বিচার হতে বঞ্চিত হবেন। সেই আশংকা সত্য প্রমাণিত হলো। আজ আদালতে যাবার পথে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার গাড়ির বহরে দফায় দফায় হামলা করে সাধারণ নেতাকর্মীদের উপর যে নির্যাতন চালানো হয়েছে তার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদের ভাষা আমাদের নেই। উচ্চ আদালতে ন্যায় বিচার পাবেন গণতন্ত্রের আপোষহীন সংগ্রামী নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া।

তিনি বলেন, যে নাজিম উদ্দিন রোডের কারাগারকে স্থায়ীভাবে বন্ধ করে অন্য জায়গায় নতুন কারাগার প্রতিস্থাপন করেছেন অথচ সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রীকে বন্ধ কারাগারে রেখে যে দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করলেন ইতিহাসে কাঠগড়ায় অন্যদেরও একই ভাবে দায়ভার গ্রহণ করে ফল ভোগ করতে হবে। জনগণ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার পাশে যেভাবে ছিলেন আগামীতেও সেইভাবে থাকবেন বলে আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি।

ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টি-এনপিপি চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রায় রাজনৈতিক প্রতিহিংসা। পূর্বেই দেশবাসী আশংকা করেছিলেন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ন্যায় বিচার হতে বঞ্চিত হবেন। সেই আশংকা সত্য প্রমাণিত হলো। উচ্চ আদালতে ন্যায় বিচার পাবেন গণতন্ত্রের আপোষহীন সংগ্রামী নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া।

তিনি বলেন, দেশের জনগণ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার পাশে যেভাবে ছিলেন আগামীতেও সেইভাবে থাকবেন বলে আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি।

খালেদা জিয়া ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হবার প্রতিবাদে বিএনপি ঘোষিত সকল কর্মসূচীর প্রতি একাত্মতা ঘোষণা করেন। বিডি২৪লাইভ।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন