শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ ০২:০২:৪৮ পিএম

অলরাউন্ড নৈপুণ্যে ফের কাপালেন কাপালি

খেলাধুলা | সোমবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ | ১০:৪৫:০২ এএম

প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবের তরুণ উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান জাকির হাসান ও অলরাউন্ডার আরিফুল হক আগের দিন বাংলাদেশ দলের টি-টুয়েন্টি স্কোয়াডে জায়গা করে নিয়েছেন। তাই রোববার সবার চোখ ছিল তাদের উপরই। কি করেন তারা। তবে আরিফুল হতাশ করলেও করেননি জাকির। হাফসেঞ্চুরি তুলেছিলেন। তবে তার হাফসেঞ্চুরি বৃথা গিয়েছে ব্রাদার্স ইউনিয়নের অধিনায়ক ও দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞ সেনানী অলক কাপালীর অলরাউন্ড নৈপুণ্যে।

এখানে ফের কাপালেন কাপালি। জাতীয় দলে খৈ হারিয়ে ফেলা কাপালীর অলরাউন্ড নৈপুণ্যে ব্রাদার্সের টানা দ্বিতীয় জয়। আগ্রাসী ব্যাট চালিয়ে ফিফটিতো তুলেছেনই, বল হাতেও দুর্ধর্ষ এ ক্রিকেটার। ফলে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে প্রাইম ব্যাংককে ২৪ রানে হারিয়ে টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নিয়েছে ব্রাদার্স।

ব্রাদার্সের দেওয়া ২৯৫ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ১৫৩ রানের ৭ ব্যাটসম্যানকে হারায় প্রাইম ব্যাংক। ম্যাচে বড় হারই দেখছিল দলটি। কিন্তু তখনই বুক চিতিয়ে লড়াই করেন নাহিদুল ইসলাম। বিপিএলেও দারুণ খেলেছিলেন তিনি। দেলোয়ার হোসেনের সঙ্গে ১০৭ রানের জুটি গড়ে দলকে জয়ের পথে নিয়ে এসেছিলেন তিনি। তবে এ জুটি ভাঙতেই শেষ হয়ে যায় তাদের আশা। শেষ ৩ উইকেট হারায় তারা মাত্র ১০ রানের ব্যবধানে। ফলে ৪৭.৪ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৭০ রান করে দলটি।

এদিন দলীয় ৩৭ রানেই ২ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে প্রাইম ব্যাংক। তৃতীয় উইকেটে ভারত থেকে উড়িয়ে আনা কুনাল চান্দেলাকে নিয়ে ৫১ রানের জুটি গড়ে চাপ সামলে নেওয়ার চেষ্টা করেন জাকির। তবে অভিজ্ঞ কাপালীর বোলিং ঘূর্ণিতে এ জুটি বড় বিপদ করতে পারেনি ব্রাদার্সের। এ দুই ব্যাটসম্যানকে তো আউট করেনই, আরও ১টি উইকেট তুলে প্রাইম ব্যাংকের জয়ের স্বপ্নকে কঠিন করে দেন কাপালী। এরপর শেষ দিকে নাহিদুলের বীরত্বের পরও ভাগ্য ঘোরাতে পারেনি দলটি।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৮৮ রানের ইনিংস খেলেন নাহিদুল। মাত্র ৬৯ বলে ৮টি চার ও ৪টি ছক্কার সাহায্যে এ রান করেন তিনি। এছাড়া জাকির ও চানদেলা দুই ব্যাটসম্যান আউট হয়েছেন ঠিক ৫০ রান করে। দেলোয়ার ৪৩ বলে ৩৬ রানের ইনিংস খেলেন। ব্রাদার্সের পক্ষে ৪৬ রানের খরচায় ৩টি উইকেট নিয়েছেন কাপালী। ২টি করে উইকেট পান খালেদ আহমেদ ও সোহরাওয়ার্দী শুভ।

এর আগে সাভারের বিকেএসপিতে সকালে টস হেরে প্রথম ব্যাট করতে নামে ব্রাদার্স। দুই ওপেনার মিজানুর রহমান ও জুনায়েদ সিদ্দিকির ব্যাটে ৪৭ রানের ওপেনিং জুটি পায় দলটি। মিজানুরকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলে এ জুটি ভাঙেন নাহিদুল ইসলাম। তবে মাইশুকুর রহমানকে নিয়ে দ্বিতীয় উইকেটে ৫৪ রানের জুটি গড়েন জুনায়েদ। এরপর দ্রুতই ৩টি উইকেট হারিয়ে ফেলে তারা। তবে পঞ্চম উইকেটে ইয়াসির আলী রাব্বিকে নিয়ে ৯৫ রানের দারুণ এক জুটি গড়ে দলকে বড় সংগ্রহের পথে নিয়ে যান অধিনায়ক কাপালী। ফলে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ২৯৪ রান করে ব্রাদার্স।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭৯ রানের ইনিংস খেলেছেন কাপালী। ৬৭ বলে এ রান করে সমান সংখ্যক ৫টি করে চার ও ছক্কা মেরেছেন অধিনায়ক। এছাড়া ৬৩ বলে ৬৯ রানের ইনিংস খেলেছেন ইয়াসির। ৪টি ছক্কা ও ২টি চারের সাহায্যে এ রান করেন তিনি। এছাড়া জুনায়েদ ৪৫, মিজানুর ৩৬ ও মাইশুকুর ৩০ রান করেন। প্রাইম ব্যাংকের পক্ষে ২টি করে উইকেট নেন দেলোয়ার হোসেন ও আরিফুল হক।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন