শনিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৮ ০৮:২৩:৪১ এএম

ব্যর্থতা ক্রিকেটারদের; কোচিং আগের চেয়ে ভালো হয়েছে: সুজন

খেলাধুলা | সোমবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ | ১১:২৬:০৫ পিএম

চন্দিকা হাথুরুসিংহের আমলে ঘরের মাঠে সত্যিকারের বাঘ ছিল বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। কিন্তু হাথুরুর বর্তমান শিষ্যদের বিপক্ষে ঘরের মাঠ শের-ই-বাংলায় নুইয়ে পড়ল টিম টাইগার। আড়াই দিনে ২১৫ রানে টেস্ট হারের পর সমালোচনার ঝড় উঠেছে চারিদিকে। কিন্তু এই ব্যর্থতার কারণ কী? টেকনিক্যাল ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজনের মত, ক্রিকেটারদের ব্যর্থতার কারণেই এই পরিণতি হয়েছে।

আজ শের-ই-বাংলায় অনুশীলনের এক ফাঁকে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে সমস্ত ক্ষোভ উগড়ে দেন সুজন। টেস্ট সিরিজ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, 'প্রথম কথা হলো, ব্যাপারটি কোচিং নিয়ে নয়, মানসিকতা নিয়ে। কোচিং বাংলাদেশ দলে যা হত, এবার তার চেয়ে ভালো হয়েছে। কিন্তু কোচরা তো মাঠে খেলবে না। মাঠে খেলবে ক্রিকেটাররা। এই ছেলেরাই আমাদের ম্যাচ জিতিয়েছে, এই ছেলেরাই এবার ম্যাচ হারিয়েছে।'

বিষয়টি ব্যখ্যা করতে গিয়ে ২০১৬ এবং ২০১৭ সালের ইংল্যান্ড আর অস্ট্রেলিয়া সিরিজের প্রসঙ্গ টেনে এনে সুজন বলেন, 'অস্ট্রেলিয়ার ফাস্ট বোলিং আরও ভালো ছিল, ভালো স্পিনার ছিল। ইংল্যান্ডেরও স্পিনার খারাপ ছিল না। তখন আমরা টার্নিং উইকেটে ভালো করেছি। এই সিরিজে চট্টগ্রামে নিষ্প্রাণ উইকেট ছিল, আমরা কত ভালো করেছি? ওই ম্যাচ হারতেও পারতাম। সাকিব মানের বোলার তো আমাদের ছিল না।'

টেস্ট সিরিজের দুই ম্যাচেই সাকিব আল হাসানকে মিস করেছে বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আসন্ন টি-টোয়েন্টি সিরিজেও আঙুলের ইনজুরি আক্রান্ত বিশ্বসেরা অল-রাউন্ডারকে পাচ্ছে না বাংলাদেশ। এদিকে হাথুরুসিংহে পদত্যাগ করার পর পছন্দমত কোচ পাচ্ছে না বিসিবি। সহকারী কোচ রিচার্ড হ্যালসলকে নিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন খালেদ মাহমুদ সুজন। তাকে পদ দেওয়া হয়েছে 'টেকনিক্যাল ডিরেক্টর' এর।

সুজনের মতে, টেস্ট সিরিজে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা অনেক সুযোগ মিস করেছে। ক্যাচ ছেড়েছে বারংবার। বিষয়টি টেনে এনে তিনি বলেন, 'আমরা সুযোগ সৃষ্টি করেছিলাম। প্রথম ইনিংসে যখন ৬ উইকেটে ১১০ ছিল ওদের রান, তখন দিলরুয়ান পেরেরার ক্যাচ না পড়লে হয়ত ওদেরকে ১৪০ রানে অলআউট করতে পারতাম। তার পর যদি মুমিনুল রান আউট না হত, আমরা ওভাবে ব্যাট না করে যদি ২২০ রানও করতাম, তাহলে ওই ৮০ রানের লিডেই আমরা ম্যাচ জিততাম। কিন্তু সেটা হয়নি।'

সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে এক পর্যায়ে আবেগাক্রান্ত হয়ে সুজন বলেন, জাতীয় দলের জায়গা নোংরা হয় গেছে। তিনি আর দায়িত্ব পালন করতে চান না। মিরপুর টেস্ট হারের পর তাকে জড়িয়ে মিডিয়ায় একের পর সংবাদ প্রকাশেরও সমালোচনা করেন তিনি।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন