বৃহস্পতিবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৮ ০৯:৩০:১৭ পিএম

সংসদে অধিকার ক্ষুণ্নের কথা জানালেন শামীম ওসমান

রাজনীতি | বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ | ০৮:২৬:৩৩ পিএম

গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর অধিকার ক্ষুণ্ন হয়েছে মর্মে বছরখানেক আগে এ সংক্রান্ত কমিটিতে নোটিশ দিয়েও প্রতিকার না পেয়ে জাতীয় সংসদে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শামীম ওসমান। তার ক্ষোভের প্রেক্ষিতে সেসব নোটিশ বিশেষ অধিকার সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটিতে বিবেচনাধীন রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। নোটিশগুলোর ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান স্পিকার।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে অধিকার ক্ষুণ্নের নোটিশের অবস্থা জানতে চান নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান।

প্রসঙ্গত, সংসদের কার্যপ্রণালী বিধি অনুযায়ী এমপিদের অধিকার ক্ষুণ্ন-সংক্রান্ত একটি কমিটি আছে। কোনো এমপির অধিকার ক্ষুণ্ন হলে তিনি প্রতিকার চেয়ে ওই কমিটিতে নোটিশ দিতে পারেন। ওই কমিটির সভাপতি পদাধিকার বলে স্পিকার থাকেন।

শামীম ওসমান বলেন, এক বছর আগে কিছু পত্রিকার নিউজের কারণে আমি অধিকার ক্ষুণ্নের নোটিশ দিয়েছিলাম। এক বছর পার হলেও কোনো রেজাল্ট পাইনি।

তিনি বলেন, যে সমস্ত পত্রিকায় আমার বিরুদ্ধে লিখছে বিশেষ করে যে পত্রিকা এক এগারো সৃষ্টির চেষ্টা করেছিল অথবা নবীকে নিয়ে ব্যঙ্গ করেছিল কিংবা আমার নেত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দাঁড় করেছিল। তারা নতুন করে আবারও সংসদ সদস্যদের চরিত্রহরণ শুরু করেছে।

তিনি বলেন, এলাকায় আমার ব্যাপারে লিখতে লিখতে ক্লান্ত হয়ে গেছে। এমনকি এখন ওই পত্রিকার সম্পাদক খোদ নিজে গিয়ে হাজির হচ্ছেন, বক্তব্য দিচ্ছেন।

স্পিকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তিনি বলেন, একজন এমপি ন্যায় বিচার চেয়ে অধিকার ক্ষুণ্নের নোটিশ দেয়ার এক বছর পরেও যদি কোনো রেজাল্ট না হয়। তাহলে জনগণ কোথায় যাবে?

তিনি আরও বলেন, দেশে সৎ সাংবাদিকের সংখ্যা ৯৯ শতাংশ আর অসৎ সাংবাদিকের সংখ্যা মাত্র এক শতাংশ। অসৎ সাংবাদিকরা যারা আছেন যারা সংবাদ মাধ্যমকে অন্য কিছু হিসেবে বেছে নিয়েছেন, তাদের যারা সংবাদপত্রকে বা সংবাদ মাধ্যমকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা পরিবর্তনের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করতে চান। তারা বার বার ক্ষত বিক্ষত করবে। গত কিছুদিন ধরে বিভিন্ন আকার ইঙ্গিতে বিভিন্ন ধরনের নিউজের মাধ্যমে দেশকে অশান্ত করার চেষ্টা করছে। তাদের বিরুদ্ধে আমি লড়াই করতে অভ্যস্ত। আমি সত্যের সঙ্গে আছি। এ ধরনের নোটিশ কেউ দেয় না আমি দিয়েছি।

জবাবে স্পিকার বলেন, আপনার নোটিশ গ্রহণ করা হয়েছিল এবং সেই সঙ্গে আরও কয়েকজন এমপির নোটিশ গৃহিত হয়েছে। সেগুলো বিশেষ অধিকার কমিটিতে পেন্ডিং আছে এবং নোটিশগুলোর ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এরই মধ্যে আরও কয়েকটি বিশেষ অধিকার ক্ষুণ্নের নোটিশ এসেছে, সেগুলোও বিচেনাধীন আছে। সে ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত জানানো হবে বলে জানান স্পিকার।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন