সোমবার, ২০ আগস্ট ২০১৮ ০৬:২৭:৫০ পিএম

১৪ বছরে পড়ল টি-২০ ক্রিকেট

খেলাধুলা | শনিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ | ০৮:০২:৩৫ পিএম

সময়টা ২০০৫ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি। পরচুলা, নকল গোঁফ আর পুরনো আমলের বেশভুষায় মাঠে নামেন অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডের খেলোয়াড়েরা! ম্যাকগ্রা করেন আন্ডারআর্ম বল, তো আম্পায়ার বিলি বাউডেনও কম যায়না। পকেট থেকে লাল কার্ড বের করে দেখিয়ে দিলেন অজি বলারকে! না, এটা কোনো কমেডি সিনেমার গল্প নয়। বলা হচ্ছে প্রথম আন্তর্জাতিক টি-২০ ক্রিকেট ম্যাচের কথা!

অনেক নাটকীয়তা আর রঙ্গরসে ভরা সেই ম্যাচে কি হয়নি? ক্রিকেট পরিবারের নতুন অতিথি ‘টি-টোয়েন্টি’ নামের এক ফান ক্রিকেটেই নেমেছিলেন প্রতিবেশী দুই দেশ।

তারপর দেখতে দেখতে কেটে গেছে তেরো বছর। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের বয়স ১৪তে পা দিল। সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে হু হু করে বেড়েছে এই স্বল্প দৈর্ঘ্যের ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা। এই ১৩ বছরে এরই মধ্যে ছয়টি টি-২০ বিশ্বকাপ দেখেছে ক্রিকেটবিশ্ব।

অর্জুনা রানাতুঙ্গার আইডিয়া এত দ্রুত বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় হয়ে পরে যে দুই বছরের মাথায় অর্থাৎ ২০০৭ সালে প্রথম বিশ ওভারের বিশ্বকাপ আয়োজন করে আইসিসি। আর তার পরের বছর যাত্রা শুরু করে ক্রিকেটের দিকপথ পাল্টে দেওয়া আইপিএল। একে একে বিগ ব্যাশ, পিএসএল, বিপিএল, সিপিএল এসে ক্রিকেট বিশ্বকে এক সুতোয় গেঁথে ফেলে। ক্রিকেটারদের নিলামের টেবিলে ওঠার অনুভূতি দেয় এই টি-২০ ক্রিকেট।

নতুন এই ছোট পরিসরের ক্রিকেটকে ঘিরে দেখা গেছে নানান রকম রঙ জোড়ানোর প্রচেষ্টা। চিয়ারলিডারদের নাচের ছন্দে ক্রিকেটের গায়ে লেগেছে গ্ল্যামার্স গেমের তকমা। আজব নিয়ম বোল আউটের দেখা পাওয়া গেছে এই ফরম্যাটে যদিও তা স্থায়ী হয়নি। এমনকি মার্কিন মুলুকে বরফের দুনিয়ায় বসেছে আইস ক্রিকেটের আসর। ক্রিকেটের প্রচলিত এবং গতানুগতি সব ধ্যান ধারণাকে ভেঙে দিয়ে ১৩ বছরের কিশোর টি-২০ পেছনে ফেলেছে শতবর্ষী টেস্ট ক্রিকেটকে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন