মঙ্গলবার, ২২ মে ২০১৮ ০৪:৩৪:১৪ এএম

মির্জা ফখরুলকে কেঁদে কেঁদে কী বলছিলেন নিপুন রায়?

জাতীয় | রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ | ০৫:৪০:৪৮ এএম

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে কালো পতাকা প্রদর্শন কর্মসূচিতে পুলিশের জলকামান নিক্ষেপে আহত হয়েছে নিপুন রায় চৌধুরী। আহত হওয়ার আগে কার্যালয়ের সামনে ফুটপাতে বসে ছিলেন তিনি।

এসময় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল তার কাছে আসলে তিনি কেঁদে কেঁদে তাকে কিছু একটা বলছিলেন। এরপর মির্জা ফখরুল তাকে কার্যালয়ের ভেতরে যেতে বলে সেখান থেকে উঠিয়ে দেন।

নিপুন রায় চৌধুরী বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের পূত্রবধু এবং বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায় চৌধুরীর মেয়ে। আগে থেকেই নিপুন রায় রাজনীতিতে জড়িত। তিনি বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য এবং দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ শাখা বিএনপির সভাপ‌তি।

নিপুন পেশায় একজন আইনজীবী। জাতীয় রাজনীতিতে নিপুন রায়ের তেমন পরিচিতি আগে ছিলো না। তবে বিএনপির শনিবারের কর্মসূচিকে ঘিরে বেশ আলোচনায় চলে আসেন তিনি। বিএনপির নেতাকর্মীরা তাকে বাহবা দিচ্ছেন বেশ।

দেখা গেছে, কর্মসূচির একপর্যায়ে পুলিশ বিএনপি কার্যালয়ের সামনে জলকামান নিক্ষেপ করলে তেড়ে আসেন নিপুন রায় চৌধুরী। তিনি রাস্তা থেকে লাঠি উঠিয়ে গাড়ির দিকে ছুড়ে মারেন। এসময় পুলিশকে লক্ষ্য করে কুত্তার.... বলে গালি দিতে থাকেন। জলকামানের সামনে থেকে অন্যরা সরে যেতে থাকলেও তিনি সরছিলেন না।

উল্লেখ্য, শনিবার পুলিশের তৎপরতায় বিএনপির কর্মসূচি পণ্ড হয়ে যাওয়ার পর কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলন করেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। মির্জা ফখরুলের অভিযোগ, পরিস্থিতি ঘোলাটে করতে পুলিশ সরকারের মদদে বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে হামলা চালিয়েছে।

তিনি বলেন, অবৈধ সরকার যতই উস্কানি দিক, বিএনপি তাতে কান দেবে না। সংঘাতময় পরিস্থিতি এড়িয়ে চলবে। শান্তিপূর্ণভাবে গণতান্ত্রিক কর্মসূচি পালন করবে। সরকার যে ধরনের আচরণ কর‌ছে, তা‌তে যে কোনো উদ্ভূত প‌রি‌স্থি‌তি তৈরি হলে তার জন্য তারাই দায়ী থাক‌বে।

অন্যদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, কেউ যদি মাত্রাতিরিক্ত করে, জনগণের দূর্ভোগ বাড়িয়ে দেয়, রাস্তা বন্ধ করে দেয় তখনই আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যে কাজটি করা দরকার তা করে।

তিনি আরও বলেন, আমি আগেও বলেছি সরকার কারো গণতান্ত্রিক এবং শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে কখনোই বাধা দেয় না। তবে জনদুর্ভোগের উপক্রম হলেই আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী যথাযথ পদক্ষেপ নেয়।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন