সোমবার, ২০ আগস্ট ২০১৮ ০৬:২৫:২৭ পিএম

ভোটের বছর সরকারের উন্নয়নে ভাসবে দেশ

আরমান হোসেন | জাতীয় | বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ | ১১:১৮:০৫ এএম

ছবি : সংগৃহীত

চলতি বছরের শেষে হবে একাদশ সংসদ নির্বাচন, এ নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকার দেশকে আরো উন্নয়নের জোয়ারে ভাসাতে চায়।

সূত্র জানায়, আগামী মার্চে স্বল্প আয়ের দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হচ্ছে বাংলাদেশ। মার্চ-এপ্রিলের মধ্যেই নিজস্ব স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু উপগ্রহ-১ মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হচ্ছে। নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিতব্য দেশের সবচেয়ে মেগা প্রকল্প স্বপ্নের পদ্মা সেতু ডিসেম্বরে পেখম মেলবে। ডিসেম্বরের মধ্যেই রাজধানীতে দৃশ্যমান হবে সরকারের অগ্রাধিকারে থাকা মেট্রোরেল প্রকল্প। এ বছরই শেষ হবে ঢাকা-বঙ্গবন্ধু সেতুর চার লেন মহাসড়ক। ইতিমধ্যে ফোর জির যুগে প্রবেশ করেছে বাংলাদেশ।

ভোটের বছর ২০১৮ সালে মাথা তুলে দাঁড়াবে সরকারের অগ্রাধিকার, জনবান্ধব ও বহুল কাঙ্ক্ষিত অনেক অবকাঠামো। আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে এসবই আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাতিকে উপহার।

রবিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীতে এক আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে গ্র্যাজুয়েশন লাভ করতে যাচ্ছে। আগামী মার্চেই বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে মর্যাদা পাবে। এখন আর কেউ আগের মতো আমাদের তুচ্ছতাচ্ছিল্য করতে পারবে না। একইসঙ্গে আগামী মার্চ-এপ্রিলেই আমাদের নিজস্ব স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু উপগ্রহ-১ মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হবে বলেও জানান তিনি।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগেই স্বপ্নের পদ্মা সেতুর কাজ শেষ করতে চায় সরকার। মুন্সীগঞ্জের মাওয়া থেকে শরীয়তপুরের জাজিরা পর্যন্ত সোয়া ৬ কিলোমিটার দীর্ঘ দোতলা সেতুর অগ্রগতি ৫২ শতাংশ ছাড়িয়েছে। মাওয়া ও জাজিরা সংযোগসড়ক এবং সার্ভিস এরিয়ার কাজ শেষ। ইতিমধ্যে দুটি স্প্যান বসানো হয়েছে। পদ্মা সেতু এখন দৃশ্যমান হতে শুরু করেছে।

পদ্মা রেল সংযোগের জন্য ঢাকা থেকে পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে ভাঙ্গা, নড়াইল হয়ে যশোর পর্যন্ত ১৭২ কিলোমিটার রেলপথ প্রকল্পে ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৫ হাজার কোটি টাকা। রেলপথ মন্ত্রণালয় এটি বাস্তবায়ন করছে। এ ছাড়া প্রকল্পের ভূমি অধিগ্রহণের কাজও চলছে পুরোদমে। রাজধানীকে যানজটমুক্ত করতে ইতিমধ্যে সরকারের অগ্রাধিকার প্রকল্প ঢাকা মেট্রোরেল লাইন-৬-এর কাজ এগিয়ে চলছে। ইতিমধ্যে নয়টি টেস্ট পাইলের কাজ শেষ করে মূল পাইলের কাজ শুরু হয়েছে। প্রকল্পের মূল ডিপো এলাকা উত্তরার দিয়াবাড়ীতে মূল কাজের অগ্রগতি হয়েছে ১০ ভাগ। বর্তমানে সাইট অফিস নির্মাণ ও ডিপোর অভ্যন্তরে চেক বোরিং কাজ চলছে। মাটি ভরাটের কাজ হয়েছে ৭৫ শতাংশ।

আশা করা যাচ্ছে, চলতি বছরের শেষ দিকে প্রকল্পের প্রথম অংশের (ফেজের) কাজ শেষ হবে। এ ছাড়া সরকারের ১০ মেগা প্রকল্পের মধ্যে বেশ কয়েকটি প্রকল্প রয়েছে যেগুলোর কাজও দ্রুত এগিয়ে চলছে। এ প্রকল্পের অধিকাংশই বর্তমান সরকারের মেয়াদে শেষ হবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা। বাকিগুলো সমাপ্ত না হলেও দৃশ্যমান হবে। ফলে নির্বাচনের আগে সেগুলোও সরকারের অন্যতম সফলতার অংশ হিসেবে বিবেচিত হওয়ার দাবি রাখবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এর মধ্যে সরকারের মেগা প্রকল্পগুলোর সঙ্গে পরে যোগ হওয়া পদ্মা রেলসেতু রয়েছে। প্রায় ৩৫ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ের নির্মিতব্য এ প্রকল্প সর্বশেষ সংশোধনী অনুযায়ী মেয়াদ দুই বছর বাড়িয়ে ২০২০ সালের মধ্যে শেষ করার লক্ষ্য রয়েছে সরকারের।

পর্যটক ও ব্যবসায়ীদের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে ১৮ হাজার ৩০৪ কোটি টাকা ব্যয়ে দোহাজারী-রামু-কক্সবাজার গুনদুম রেলপথ উন্নীত করছে সরকার। ২০২২ সালের জুনের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও ২০১৮ সালের মধ্যে দোহাজারী-কক্সবাজার রেললাইনের নির্মাণকাজ শেষ করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এদিকে দ্রুত এগিয়ে চলছে দেশের সবচেয়ে ব্যয়বহুল বিদ্যুৎ কেন্দ্র পাবনার রূপপুরে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের কাজ। এটি বর্তমান সরকারের মেগা প্রকল্পগুলোর মধ্যে অন্যতম। গত ৩০ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ প্রকল্পের মূল কাজের উদ্বোধন করেন।

সবকিছু ঠিকমতো চললে ২০২৫ সালের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে এ প্রকল্পের কাজ শেষ হবে। আর প্রকল্প পুরোপুরি বাস্তবায়ন হলে এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রের দুই ইউনিট থেকে ২ হাজার ৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সম্ভব হবে। কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়ী ও ধলঘাটা ইউনিয়নে ৬০০ মেগাওয়াট করে দুটি কেন্দ্রে মোট ১ হাজার ২০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রকল্প কাজ শুরু হয়েছে। প্রকল্প ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৫ হাজার ৯৮৪ কোটি টাকা। ২০২৩ সালের অক্টোবরের মধ্যে এর কাজ শেষ করার আশা করছে সরকার।

এ ছাড়া ভারত ও বাংলাদেশের যৌথ উদ্যোগে বাগেরহাটের রামপালে মৈত্রী সুপার থারমাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ শুরু হয়েছে। প্রকল্পটি ২০১৯ সালে শেষ হওয়ার কথা। ১৪ হাজার ৯৯৯ কোটি টাকা ব্যয়ে দুটি ইউনিটের মাধ্যমে ১ হাজার ৩২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করার কথা এই প্রকল্পে।

এদিকে বাংলাদেশ থেকে আকাশপথে কার্গো পরিবহনের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করেছে যুক্তরাজ্য। ফলে ইউরোপের সব দেশে এখন সহজে বাংলাদেশি পণ্য প্রবেশ করতে পারবে। এতে বৃদ্ধি পাবে গার্মেন্টসহ অন্যান্য পণ্য রপ্তানি। গত ১৯ ফেব্রুয়ারি চতুর্থ প্রজন্মের মোবাইল প্রযুক্তি সেবা ফোর জি যুগে প্রবেশ করেছে বাংলাদেশ। ওইদিন দেশের চার মোবাইল অপারেটরকে আনুষ্ঠানিকভাবে ফোর জি লাইসেন্স দিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা (বিটিআরসি)।

সূত্রমতে, নির্বাচনী বছরে প্রত্যেক নির্বাচনী এলাকায় স্কুল-কলেজ, মাদ্রাসা, মসজিদ, মন্দিরের ভবন নির্মাণ-সংস্কারসহ উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে এমপিদের। এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জেলা সফর শুরু করেছেন। তিনি যেখানেই যাচ্ছেন, সেখানকার মানুষের জন্য বিশেষ উপহার নিয়ে যাচ্ছেন। এ বছরের ৩০ জানুয়ারি সিলেট, ৮ ফেব্রুয়ারি বরিশাল ও ২২ ফেব্রুয়ারি রাজশাহী সফর করেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। সিলেটে ২০টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ১৮টির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। বরিশালে ৩৯টি উদ্বোধন ও ৩৩টির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন এবং রাজশাহীতে ২১টি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন এবং রাজশাহী মহানগর পুলিশের নতুন ৮টি থানাসহ ১২টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ৩ মার্চ খুলনা যাবেন শেখ হাসিনা।

একই ভাবে গাজীপুর, ময়মনসিংহ ও চট্টগ্রামে যাওয়ার কথা রয়েছে তার। দেশ রেলওয়ে পার্বতীপুর থেকে কাউনিয়া পর্যন্ত মিটার-গেজ রেলওয়ে লাইনকে ডুয়েল-গেজে রূপান্তর প্রকল্প; ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে নতুন যুক্ত হওয়া নাসিরাবাদ, দক্ষিণগাঁও, ডেমরা ও মান্ডা এলাকার সড়ক অবকাঠামো ও ড্রেনেজব্যবস্থার উন্নয়ন প্রকল্প; পটুয়াখালী ১৩২০ মেগাওয়াট ও সুপার থারমাল পাওয়ার প্লান্টের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ, ভূমি উন্নয়ন ও সংরক্ষণ প্রকল্পসহ ১৮ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।
-বিডি২৪লাইভ।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন