বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮ ০২:৫২:৩২ পিএম

ধর্ষণের পর আঁখি আক্তারকে হত্যা করা হয়

নগর জীবন | বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ | ০১:০৪:৪০ পিএম

ধর্ষণের পর আঁখি আক্তারকে হত্যা করা হয়। পরে লাশ ঘুম করতে রাজধানীর বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশন ফেলে দেওয়া হয় বলে জানিয়েছে মামলার তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্র ও নিহতের পরিবারের সদস্যরা।

পরিবারের লোকজন জানান, আঁখির বাবা আরিফ হোসেন ও মা হাসনা হেনা মরিশাসে থাকেন। তাদের গ্রামের বাড়ি মাদারীপুরের কালকিনিতে। অপরদিকে আঁখি মিরপুরের তার মামার বাসায় থাকতেন এবং পল্লবী মহিলা ডিগ্রি কলেজের উচ্চ মাধ্যমিকে পড়াশোনা করতেন।

তদন্ত কর্মকর্তারা জানান, এ ঘটনায় নিহত আঁখির প্রেমিক সাব্বিরকে আটক করেছে পুলিশ। সাব্বির রাজউক উত্তরা মডেল কলেজের ছাত্র। জিজ্ঞাসাবাদে সে হত্যাকাণ্ডে সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার না করলেও তিনজনের নাম বলেছে। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতেই ওই তিনজনকে ধরতে অভিযান শুরু করেছে পুলিশ।

এদিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, সুরতহাল প্রতিবেদনে আঁখির গলা, ঘাড়, গোপনাঙ্গসহ বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। যা দেখে ধারণা করা হচ্ছে তাকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার জন্য যাবতীয় আলামত সংগ্রহ করে পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়েছে।

হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে ঢাকা রেলওয়ের কমলাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইয়াসিন ফারুক বলেন, `হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আঁখির প্রেমিক সাব্বিরকে আটক করা হয়েছে। এছাড়া সন্দেহের তালিকায় আরো কয়েকজন রয়েছেন। তাদের আটকের চেষ্টা চলছে।`

হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে তিনি আরো বলেন, `আঁখিকে কোথায়, কি কারণে খুন করা হয়েছে সে বিষয়ে আমরা এখনো নিশ্চিত হতে পারিনি। তদন্ত চলছে, তদন্তের পরই এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে।`

মামলার বিষয়ে ওসি জানান, নিহতের লাশ দাফনের জন্য সোমবার তার গ্রামের বাড়ি মাদারীপুরে নেয়া হয়েছে। সেখানকার কাজ সেরে পরিবারের সদস্যরা এসে মামলা করবেন।

আঁখির মামা রোকন বলেন, `আঁখি আমার পরিবারের সাথেই মিরপুরের বাসায় থাকতো। ঘটনার দিন সকালে সে কলেজে যাওয়ার কথা বলে বাসা থেকে বের হয়। এরপর থেকেই নিখোঁজ ছিলো।`

`পরবর্তীতে অনেক খোঁজাখুঁজি করে আঁখিকে না পেয়ে শনিবার রাত ১টার দিকে মিরপুর থানায় আমরা একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করি। পরে রোববার ভোরে বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশনে আঁখির লাশ পাওয়ার বিষয়টি তার বন্ধু সাব্বির আমাদের ফোন করে জানায়। তাকে আমরা আগে চিনতাম না। পরে জানতে পেরেছি তার সঙ্গে আঁখির প্রেমের সম্পর্ক ছিল` বলেও তিনি জানান।

আঁখির বড় মামা নুরুল ইসলাম খান জানান, তারা পুলিশকে মৌখিকভাবে কয়েকজনের নাম বলেছেন। তাদের ধারণা, বন্ধুদের কেউই আঁখিকে খুন করেছে।

গত শনিবার সকালে ঢাকা বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশন থেকে কালো ব্যাগের মধ্যে মোড়ানো অবস্থায় আঁখির লাশ উদ্ধার করে রেলওয়ে থানা পুলিশ।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন