শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ১০:৫৩:০০ এএম

আমি এতো সুন্দর করে গুছিয়ে বক্তব্য দিতে পারি না, বললেন সেই তন্ময়

রাজনীতি | রবিবার, ৪ মার্চ ২০১৮ | ০৩:৪৮:৩৭ পিএম

সুদর্শন, হাস্যোজ্জ্বল, সুবক্তা হিসেবে অল্পদিনেই সবার দৃষ্টি কাড়তে সমর্থ হয়েছেন শেখ সারহান নাসের তন্ময় (৩২)। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট ভাই শেখ আবু নাসেরের ছেলে সংসদ সদস্য (এমপি) শেখ হেলাল উদ্দীনের একমাত্র ছেলে তিনি।

সম্প্রতি কয়েকটি রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে তার সরব উপস্থিতি ও অত্যন্ত আকর্ষণীয় বাচনভঙ্গিতে দেওয়া বক্তৃতা সবার নজর কেড়েছে। রাজনীতি সচেতনরা মনে করছেন, বঙ্গবন্ধুর পরিবারের তৃতীয় প্রজন্মের মধ্যে রাজনীতিতে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র হতে যাচ্ছেন তিনি।

আর তাকে নিয়ে সামাজিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আলোড়ন ওঠে। তন্ময় লন্ডন থেকে উচ্চতর ডিগ্রি নিয়ে ২০১৫ সালে দেশে ফিরে বিয়ে করেছেন। তার স্ত্রীর নাম শেখ ইফরাহ তন্ময়। আর এদিকে বিনয় তেজে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার খুলনার জনসভায় দ্যুতি ছড়ালেন শেখ সারহান নাসের তন্ময়।

শনিবার খুলনা সার্কিট হাউসের মাঠে আওয়ামী লীগের জনসভায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট ভাইয়ের নাতি শেখ সারহান নাসের তন্ময় বলেন, আমি এতো সুন্দর করে গুছিয়ে বক্তব্য দিতে পারি না। এখনো সেটা শিখে নিতে পারি নাই।

তাই প্রথমত ধন্যবাদ জানাতে চাই মুরব্বীদের। আমাদেরকে সুযোগ দিয়েছেন, আপনাদের কাছ থেকে শিখতে এসেছি। আপনারা অনেক কষ্ট করছেন। এজন্য আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানাই।

জনসভায় আগত দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তন্ময় বলেন, আপনারা যে কষ্টটা করছেন আমরা সেটা এখানই বুঝতে পারবো না। আপনারা আজকে বাংলাদেশের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী এবং প্রধানমন্ত্রী (শেখ হাসিনা) তিনি আসবেন বলে এসেছেন।

আপনারাদের শুধু এতোটুকু আশ্বস্ত করতে পারি, যতটুকু অল্পস্বল্প জ্ঞানে বুঝি। আমাদের নেত্রী খুলনায় এবং আমাদের এই অঞ্চলের মানুষদেরকে ভুলে যাননি। কোন উন্নয়নের দিক থেকে আমরা পিছিয়ে নেই। এ বিষয়ে বিএনপি-জামায়াত জোট শাসনামলের দিকে ইঙ্গিত করে শেখ তন্ময় বলেন, আপনারা স্মরণ করে দেখেন আমাদের ২০০১ সালের পরে কি হয়েছিল? আমরা জানি আপনারা স্মরণ করেন।

আমাদের কোন ভুল ত্রুটি হলে ক্ষমা করে দেবেন। আজ নেত্রী এসেছেন। আপনারা এখানে সবাই এসেছেন। ঐক্যবদ্ধভাবে এসেছেন। আমরা আগামী নির্বাচনে প্রমাণ করবো, দেখাবো-খুলনা অঞ্চল জননেত্রী শেখ হাসিনার ঘাঁটি, খুলনা নৌকার ঘাঁটি। খুলনা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী।

বক্তব্যের শেষে পুনরায় বিনয়ী কন্ঠে শেখ তন্ময় বলেন, এখানে মুরব্বীরা আছেন। ওনারা বলবেন। আমাদের এখন শেখার সময়। আমরা শিখবো। ইনশাল্লাহ দেখা হবে, দোয়া করবেন। এরপর দরাজ গলায় জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু, জয় হোক বাঙালী জাতির এবং বাঙালি অর্থনীতির…বলেন শেখ তন্ময়।

বঙ্গবন্ধ পরিবারের তৃতীয় প্রজন্মের এই সন্তানের বিনয়ী বক্তব্যে উপস্থিত নেতাকর্মীরা হাততালি দিয়ে স্বাগত জানান। এদিকে দেশে ফেরার পর থেকেই তন্ময় বাগেরহাট, খুলনা ও গোপালগঞ্জের বিভিন্ন রাজনৈতিক-সামাজিক অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখছেন। আর তন্ময় আগামী জাতীয় নির্বাচনে বাগেরহাট-২ আসন থেকে নৌকার প্রার্থী হতে পারেন বলেও মনে করছেন স্থানীয় নেতা-কর্মীরা।

প্রধান অতিথি হিসেবে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা খুলনার জনসভায় বক্তব্য রাখেন। তাতে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হারুনুর রশীদ সভাপতিত্ব করেন।

সভায় বঙ্গবন্ধুর ভ্রাস্তুপুত্র শেখ হেলাল এমপিসহ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, ডা. দিপু মনি, আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আফজাল হোসেন, কার্যনির্বাহী সদস্য মুন্নাজান সুফিয়ান, আমিরুল আলম মিলন, এবিএম রিয়াজুল করিব কাওছার, পারভীন জামান কল্পনা প্রমুখ।

এছাড়াও খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাবেক মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম, যুব মহিলা লীগের সভাপতি নাজমা আকতার, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক পঙ্কজ দেবনাথ, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসাইন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক, সাবেক ফুটবলার সালাম মুর্শেদী বক্তব্য রাখেন। জনসভা যৌথভাবে পরিচালনা করেন আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য এসএম কামাল হোসেন এবং খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান।

এদিকে খুলনার জনসভার আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খালিশপুরে শনিবার বেলা ১১টায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি)-এর ৫৮তম কনভেনশনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। আর সার্কিট হাউস মাঠের জনসভায় ভাষণের আগে খুলনাবাসীর জন্য ১০০টি উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তি প্রস্তর ও উদ্ধোধন করেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন