মঙ্গলবার, ২১ আগস্ট ২০১৮ ০৭:৩৫:৩২ পিএম

‘একটি ভাষণে একটি জাতি-রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা বিশ্বে নজিরবিহীন’

জাতীয় | বৃহস্পতিবার, ৮ মার্চ ২০১৮ | ০৮:১৭:১৯ পিএম


একটি ভাষণে একটি জাতি-রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা বিশ্বে নজিরবিহীন বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

বৃহস্পতিবার বিকেলে শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক আয়োজিত সেগুনবাগিচায় অবস্থিত আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট অডিটরিয়ামে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ’ এর ওপর এক আলোচনা সভায় এ কথা বলেন।
মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইনের সভাপতিত্বে এ সভা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ।
শিক্ষামন্ত্রী তার বক্তব্যে আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণেই ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা। তবে বঙ্গবন্ধু কৌশলের আশ্রয় নিয়েছিলেন। সেদিন সরাসরি স্বাধীনতার ঘোষণা করা হলে তিনি বিচ্ছিন্নতাবাদী হিসেবে চিহ্নিত হতেন। তাহলে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো না এবং ৭ই মার্চের ভাষণ ইউনেস্কোর স্বীকৃতি লাভ করত না। এই একটি ভাষণ নিরস্ত্র বাঙালিদের রাতারাতি সশস্ত্র করে এবং মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বাঙালির জাতি-রাষ্ট্র বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করে। রণকৌশল ও লক্ষ্য অর্জনে এই ভাষণ একটি জাতি-রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা বিশ্বে নজিরবিহীন।

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপক প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদ বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ ছিল কার্যত আমাদের স্বাধীনতার ঘোষণা। এ ভাষণের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধে আমাদের করণীয় সম্বন্ধে ছিল তার পূর্ণ দিক-নির্দেশনা। ৭ই মার্চের ভাষণের পথ ধরেই আমাদের স্বাধীনতা অর্জন। জাতির পিতার এ ভাষণ শুধু বাঙালির নয়, ইউনেস্কো স্বীকৃতির পর এটি এখন বিশ্বমানবতার অনন্য সম্পদ। তাই ৭ই মার্চের ভাষণের গুরুত্ব ও তাৎপর্য অপরিসীম।
অনুষ্ঠানে আলোচক হিসেবে ছিলেন কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. মহিউদ্দীন খান।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন