বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮ ০৪:৫৩:২১ এএম

এনআরবিদের সম্পৃক্ততা বাড়াতে টাস্কফোর্স

অর্থনীতি | বৃহস্পতিবার, ৮ মার্চ ২০১৮ | ০৯:০৪:১৫ পিএম

জাতীয় উন্নয়নে বিভিন্ন ক্ষেত্রে অনাবাসী বাংলাদেশীদের (এনআরবি) সম্পৃক্ততা বাড়ানোর পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। এ লক্ষ্যে একটি প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো প্রণয়ন এবং পরবর্তী করণীয় নির্ধারণের জন্য উচ্চক্ষমতা সম্পন্ন ১১ সদস্যের একটি টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে।

সূত্র জানায়, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (জাতিসংঘ) টাস্কফোর্সের আহ্বায়ক এবং একই বিভাগের একজন উপসচিব টাস্কাফোর্সের সদস্য সচিবের দায়িত্ব পালন করবেন। টাস্কফোর্সের অন্য সদস্যরা হচ্ছেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের প্রাক্তন স্থায়ী প্রতিনিধি ড. একে. আব্দুল মোমেন এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়, অর্থবিভাগ, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের প্রতিনিধি রয়েছেন। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই কর্মসূচি, জাতিসংঘ উন্নয়ন সংস্থা বাংলাদেশ ও এফবিসিসিআই-এর একজন করে প্রতিনিধি টাস্কফোর্সে থাকবেন।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব, মুখ্য সমন্বয়ক (এসডিজি বিষয়ক) এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব টাস্কফোর্সের উপদেষ্টা হিসেবে থাকবেন।

সূত্র জানায়, উপকারভোগী সংস্থা হিসেবে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বিভাগ, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিআইডিএ), বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বিইজেডএ), বাংলাদেশ রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল (বেপজা) প্রভৃতি সংস্থার প্রতিনিধিরা অনাবাসী বাংলাদেশীদের সম্পৃক্ত করার ক্ষেত্রে টাস্কফোর্সের সহযোগী সদস্য হিসেবে সম্পৃক্ত থাকবে।

এই টাস্কফোর্সের কার্যপরিধি হচ্ছে, টাস্কফোর্স বাংলাদেশীদের সম্পৃক্ততা সংক্রান্ত নীতি নির্ধারণ ও প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো প্রণয়নের বিষয়ে সরকারের কাছে সুপারিশ করবে।

টাস্কফোর্স জাতীয় উন্নয়নে অনাবাসী বাংলাদেশীদের সম্পৃক্তকরণের বিষয়ে কার্যক্রম গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করবে।

টাস্কফোর্স প্রয়োজনে সদস্য কো-অপ্ট করতে পারবে কিংবা কার্যসংশ্লিষ্ট যে কোন মন্ত্রণালয়/বিভাগ/সংস্থার প্রতিনিধিকে আমন্ত্রণ জানাতে পারবে।

টাস্কফোর্স প্রয়োজন অনুসারে বৈঠকে মিলিত হবে এবং গৃহীত সিদ্ধান্ত ও কার্যক্রমের প্রতিবেদন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠাবে। সরকারের অনুমোদনক্রমে অনাবাসী বাংলাদেশীদের সম্পৃক্তকরণের লক্ষ্যে প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো প্রতিষ্ঠার পর এ টাস্কফোর্স বিলুপ্ত হবে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন