রবিবার, ১৯ আগস্ট ২০১৮ ০৯:০৬:৩৯ পিএম

সাংবাদিকের ওপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন

জেলার খবর | সুনামগঞ্জ | বৃহস্পতিবার, ৮ মার্চ ২০১৮ | ১০:২২:১২ পিএম

সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার হাওর রক্ষা বাঁধের দুর্নীতি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিক বিপ্লব রায়ের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে ছুরিকাঘাত করেছে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির (পিআইসি) সভাপতি নীতিরঞ্জন রায়সহ কতিপয় দুর্বৃত্তরা।

হামলার প্রতিবাদে সুনামগঞ্জ ইয়াং জার্নালিস্টের উদ্যোগে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। বৃহস্পতিবার (০৮ মার্চ) দুপুর ১২ টায় শহরের ট্রাফিক পয়েন্টে এই মানববন্ধন পালিত হয়।

মানববন্ধনে সাংবাদিক শহীদ নুরের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি সোয়েব চৌধুরী, সিনিয়র সাংবাদিক মাহমুদুর রহমান তারেক (যমুনা টিভি), আব্দুস সালাম (একুশে টিভি) ইয়াং জার্নালিস্ট এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আশিকুর রহমান পীর, সাধারণ সম্পাদক রুজেল আহমদ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।

এসময় বক্তারা বলেন, সুনামগঞ্জ-কিশোরগঞ্জ- নেত্রকোনার সংযোগস্থল আনন্দপুরের মাদারিয়া বাঁধ। এই তিন জেলার ফসল রক্ষায় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বাধের ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিক বিপ্লবের উপর নেক্কারজন হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা।

বক্তারা বলেন, আগামী তিন দিনের মধ্যে এইসব চিহ্নিত সন্ত্রাসী লুটেরাবাহিনীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা না হলে সাংবাদিকরা আরো কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবে। বক্তারা আরো বলেন, সুনামগঞ্জের ৯৬৪টি পিআইসিদের মধ্যে একটি পিআইসিও নীতিমালা অনুযায়ী হাওর রক্ষা বাঁধের নির্মাণ কাজ করছেন না বলে উল্লেখ করেন।

এসময় মানববন্ধনে একাত্মতা প্রকাশ করেন, মুক্তিযোদ্ধাসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজন। উপস্থিত ছিলেন ইয়াং জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি ফুয়াদ মনি, ক্রীড়া সম্পাদক তরিকুল ইসলাম, আলাউর রহমান, সমুজ আলী, আব্দুল আজিজ, নেছার আহমদ শফিক প্রমুখ।

উল্লেখ্য, আনন্দপুর মাদাইরা হাওর রক্ষা বাঁধ নিমার্ণের অনিয়ম দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশ করা হয় দৈনিক শ্যামল সিলেট পত্রিকায়। গত রোববার সংবাদ প্রকাশের জেড়ে সোমবার ঐ পত্রিকার জেলা প্রতিনিধির নিজ গ্রামের বাড়ি যাওয়ার পথে তাঁর উপর হামলা করে পিআইসির সভাপতি ও তার কমিটির সদস্যরা। এসময় সাংবাদিক বিপ্লবকে ছুরিকাঘাত করে হত্যার চেষ্টা চালানো হলে স্থানীয়রা উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। এখন পর্যন্ত তিনি সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের আর এম ও রফিকুল ইসলামের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন