সোমবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৮ ০৪:৫৬:১২ পিএম

কুড়িগ্রামে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গরু ব্যবসায়ীকে হত্যা

জেলার খবর | কুড়িগ্রাম | শনিবার, ১০ মার্চ ২০১৮ | ০৭:১১:৫৪ পিএম

কুড়িগ্রামের রৌমারীতে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে আব্দুল মান্নান (৪৫) নামে এক গরু ব্যবসায়ীকে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। হত্যার পর নিহতের মরদেহ এনে বাড়িতে রেখে পালিয়ে যায় হত্যাকারীরা। পরে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। শনিবার (১০ মার্চ) রাত ১টার দিকে উপজেলার সীমান্তবর্তী দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের ধর্মপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, আব্দুল মান্নান ঐ এলাকার গরু ব্যবসায়ীদের প্রধান ছিলেন। শুক্রবার (৯ মার্চ) রাত ১০টার দিকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায় গরু ব্যবসায়ীদের ১০-১৫ জনের একটি দল। পরে রাত ১টার দিকে তার মরদেহ বাড়িতে রেখেই ৩ গরু ব্যবসায়ী দ্রুত পালিয়ে যান। এসময় রেজাউল ইসলাম নামে এক গুরু ব্যবসায়ীর হাতে লোহার সাবল দেখতে পান নিহত মান্নানের স্ত্রী রেজিয়া বেগম।

আব্দুল মান্নান উপজেলার দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের ধর্মপুর গ্রামের মৃত আব্দুল জলিলের ছেলে। তার সংসারে স্ত্রী ও চার ছেলে সন্তান রয়েছেন। তাদের ধারণা, তাকে সীমান্ত নিয়ে গিয়ে গরু ব্যবসায়ীরা হত্যা করেছে।

নিহতের বড় ছেলে ইহসানুল হক অভিযোগ করে বলেন, আমার বাবার সহযোগী গরু ব্যবসায়ীরা রাত ১০টার দিকে ডেকে নিয়ে যান। পরে রাত ১টার দিকে আমার বাবার মাথায় লোহার সাবলের আঘাতে হত্যা করা হয়। পরে লাশটি বাড়িতে রেখে তাৎক্ষণিকভাবে পালিয়ে যায় ওই তিন গরু ব্যবসায়ীরা।

হত্যাকারীরা হলেন, ধর্মপুর গ্রামের জুব্বারের ছেলে রেজাউল ইসলাম (৩৫), মৃত ছাবেদ আলীর ছেলে মুকুল মিয়া (৪০) ও দুলাল মিয়া।

৩৫-ব্যাটালিয়ন বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্ণেল মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, আমি দু’দিন থেকে দাঁতভাঙ্গা এলাকায় আছি, ঘটনা জনার পর সরেজমিনে আসি। তার নিজ বাড়ি থেকে ৪০০ মিটার দূরে লাশটি পাওয়া গেছে। তাদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে এ হত্যা কাণ্ড হতে পারে। তবে এটা সীমান্ত হত্যাকাণ্ড নয়।

এ ঘটনায় রৌমারী থানার ভারপ্রাপ্ত অধ্যাপক জাহাঙ্গীর আলম জানান, নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে কুড়িগ্রাম মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করেনি পুলিশ। তবে আইনি প্রক্রিয়া চলেছে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন