বৃহস্পতিবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৮ ০১:৩৫:১৬ পিএম

নেপাল থেকে ২১ মরদেহ দেশে আসবে সোমবার

জাতীয় | রবিবার, ১৮ মার্চ ২০১৮ | ০৪:২৬:০১ পিএম

কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলার বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় নিহত ২১ বাংলাদেশির মরদেহ সোমবার বাংলাদেশে আনা হবে। এরমধ্যে ১৭ জনের মরদেহ শনাক্ত করা গেছে, বাকি ৪ জনের মরদেহ শনাক্ত করা যায়নি। তাদের দেশে এনে শনাক্ত করা হবে।

নেপালে অবস্থানরত ইউএস-বাংলার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ইমরান আসিফ নেপালের টিচিং হাসপাতালের মর্গের বাইরে রোববার সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, সোমবার এয়ারফোর্সের বিশেষ এয়ারক্রাফটে মরদেহ বাংলাদেশে নিয়ে যাওয়া হবে। এর আগে নিহতের স্বজনদের ইউএস-বাংলার এয়ারক্রাফটে নিয়ে যাওয়া হবে।

তিনি জানান, রোববার বিকেল ৪টা থেকে মরদেহগুলো পর্যায়ক্রমে গোসল করানো হবে। রাত ৮টার মধ্যেই গোসল শেষে মরদেহগুলো প্রক্রিয়াজাত করা হবে। এরপর সোমবার সকাল ৬টায় নেপালে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসে নেওয়া হবে। সকাল ৮টায় সেখানে জানাজা শেষে ১৭ মরদেহ বিমানবন্দরে নেওয়া হবে।

মরদেহগুলো হলো- বিলকিস আরা, আখতারা বেগম, মো. রকিবুল হাসান, মো. হাসান ইমাম, মিনহাজ বিন নাসির, তামারা প্রিয়ন্ময়ী, মো. মতিউর রহমান, এসএম মাহমুদুর রহমান, তাহারা তানভীন শশী রেজা, অনিরুদ্ধ জামান, রফিক-উজ-জামান, পাইলট আবিদ সুলতান, কো-পাইলট পৃথুলা রশিদ, খাজা সাইফুল্লাহ, ফয়সাল, সানজিদা ও নুরুজ্জামান।

বাংলাদেশ মেডিকেল টিমের প্রতিনিধি দলের সদস্য ডা. সোহেল মাহমুদ জানান, নেপালি ও চীনা নাগরিকের মরদেহ স্বজনরা গ্রহণ করার পর বাংলাদেশিরা মরদেহ দেখার সুযোগ পাবেন। চার বাংলাদেশির মরদেহ শনাক্তকরণ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। বাকি পাঁচজনের ডিএনএ টেস্ট করতে হবে। এক্ষেত্রে এখান থেকে স্যাম্পল দেশে নিয়ে যাওয়া হবে। দেশের স্বজনদের স্যাম্পলও নেওয়া হচ্ছে। সেখানে ম্যাচ করলেই আমরা পাঁচজনকে শনাক্ত করতে পারবো। যাদের শনাক্ত করা যাচ্ছে না, তাদের সবার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে।

বৃহস্পতিবার রাতে শনাক্ত হওয়া ১৭ জনের এই তালিকা দিয়েছে নেপালে বাংলাদেশ দূতাবাস।

গেলো সোমবার কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলার উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হয়ে ৭১ আরোহীর মধ্যে ৪৯ জনের মৃত্যু হয়। তাদের মধ্যে চার ক্রুসহ ২৬ জন ছিলেন বাংলাদেশি।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন