মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ০৭:৫০:১৩ পিএম

বাড়ছে খেলাপি ঋণ

অর্থনীতি | বৃহস্পতিবার, ২২ মার্চ ২০১৮ | ১২:০৮:০১ এএম

ব্যাংক থেকে টাকা নিয়ে ফেরত না দেওয়ার প্রবণতা বাড়ছে। ফলে হু হু করে বাড়ছে খেলাপি ঋণ। গত কয়েক বছর ধরে ব্যাংক খাতে সুশাসন না থাকায় এ প্রবণতা বাড়ছে বলে অভিমত বিশেষজ্ঞদের।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ২০১১ সালের শেষে খেলাপি ঋণের পরিমাণ ছিল ২২ হাজার ৬৪৪ কোটি টাকা। ২০১৭ সাল শেষে তা দাঁড়িয়েছে ৭৪ হাজার ৩০৩ কোটি টাকায়। অর্থাৎ ছয় বছরে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ৫১ হাজার ৬৫৯ কোটি টাকা। খেলাপি ঋণ অব্যাহতভাবে বাড়ায় উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে খোদ বাংলাদেশ ব্যাংক।

সম্প্রতি একটি অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির বলেন, ‘ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণ একটি গুরুতর সমস্যা। বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংক উদ্বিগ্ন।’

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, এখন খেলাপি ঋণের শীর্ষে রয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ব্যাংক। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত আরেক ব্যাংক, বেসিক। তৃতীয় স্থানে রয়েছে জনতা ব্যাংক। আর বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি খেলাপি ঋণ এখন ইসলামী ব্যাংকের।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, সীমান্ত ব্যাংকের এক টাকাও খেলাপি নেই। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৭ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ৭৪ হাজার ৩০৩ কোটি টাকা। এর মধ্যে সোনালী ব্যাংকের খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৩ হাজার ৭৭১ কোটি টাকা।

এরপর রয়েছে আলোচিত বেসিক ব্যাংক; এটির খেলাপি ঋণ সাত হাজার ৫৯৯ কোটি টাকা। তৃতীয় অবস্থানে থাকা জনতা ব্যাংকের খেলাপি ঋণ ৫ হাজার ৮১৯ কোটি টাকা। এছাড়া অগ্রণী ব্যাংকের খেলাপি ঋণের পরিমাণ ৫ হাজার ১১৬ কোটি ও রূপালী ব্যাংকের চার হাজার ২৫১ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ডেভলপমেন্ট ব্যাংক-বিডিবিএলের খেলাপি ঋণের পরিমাণ ৭৭১ কোটি টাকা। সরকারি মালিকানার বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের এখন খেলাপি ঋণ ৪ হাজার ২৬৩ কোটি টাকা। রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের (রাকাব) খেলাপি ঋণ ১ হাজার ১৬২ কোটি টাকা।

বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মধ্যে শীর্ষে থাকা ইসলামী ব্যাংকের খেলাপি ঋণ ২ হাজার ৫২৯ কোটি টাকা। এরপরেই রয়েছে পূবালী ব্যাংক; এর খেলাপি ঋণ ১ হাজার ৮৯৮ কোটি টাকা। তৃতীয় অবস্থানে থাকা ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের খেলাপি ঋণ এক হাজার ৮০৭ কোটি টাকা। ন্যাশনাল ব্যাংকের খেলাপি ঋণ এক হাজার ৬১১ কোটি টাকা। এক্সিম ব্যাংকের খেলাপি ঋণ এক হাজার ৩৪০ কোটি টাকা।

এদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, গত ডিসেম্বর পর্যন্ত রাষ্ট্রায়ত্ত ছয় ব্যাংক মিলে এক লাখ ৪০ হাজার ৭৬৯ কোটি ৯৩ লাখ টাকার ঋণ বিতরণ করেছে। এর বিপরীতে খেলাপি হয়ে পড়েছে ৩৭ হাজার ৩২৬ কোটি টাকা, যা এসব ব্যাংকের মোট বিতরণ করা ঋণের ২৬ দশমিক ৫২ শতাংশ।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন