সোমবার, ১৬ জুলাই ২০১৮ ১০:৫৬:০৫ এএম

বাংলাদেশের জন্য ‘সব’ করবেন কারস্টেন

খেলাধুলা | বুধবার, ২৮ মার্চ ২০১৮ | ০৩:০২:২৬ পিএম

শুরুতে দক্ষিণ আফ্রিকান গ্যারি কারস্টেনকে কোচ হিসেবে চাওয়া হয়েছিল। কিন্তু বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সেই প্রস্তাবকে ফিরিয়ে দিয়েছেন তিনি। কিন্তু হাল ছাড়েনি দেশের সর্বোচ্চ ক্রিকেট সংস্থা। নতুন খবর হলো, কারস্টেনকে বাংলাদেশ দলের পরামর্শক করা হচ্ছে। এই পদে তার কাজ গুনে শেষ করতে না-পারার মতো। বয়সভিত্তিক ক্রিকেট থেকে কোচিং স্টাফ, সবকিছু নিয়েই কাজ করবেন ভারতের বিশ্বকাপজয়ী এই কোচ।

২৭ মার্চ মঙ্গলবার গণমাধ্যমকে বিসিবির মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস জানিয়েছেন, হেড কোচ, ব্যাটিং পরামর্শক, ফিল্ডিং কোচ সবাই থাকলেও কারস্টেনকে নেওয়া হবে সবকিছুর ওপর চোখ রাখার জন্য। যদিও তার নিয়োগ এখনও অনিশ্চিত। আইপিএল শেষ হলেই এ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে তিনি বলেছেন, ‘গ্যারি কারস্টেন টিম কনসাল্টেন্ট হবেন। অনূর্ধ্ব-১৯ দল, এ দল, পুরো কোচিং স্টাফ, অবকাঠামো সবকিছু নিয়েই কাজ করবেন কারস্টেন। কোচরা সারাদিন মাঠে থাকবেন। কারস্টেন থাকবেন না। তিনি এগুলো নিয়ে কাজ করবেন। অবকাঠামো নিয়ে বুদ্ধি দেবেন। ডেভলাপমেন্টে কাজ করবেন। যেটা এডি বারলো করেছিলেন।’

এডি বারলো বাংলাদেশের টিম ডিরেক্টর হিসেবে কাজ করেছেন ১৯৯৯-২০০০ পর্যন্ত। সাবেক এই প্রোটিয়া ক্রিকেটারের কাজ ছিল বাংলাদেশ দলের ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনা নিয়ে কাজ করা। কিন্তু কারস্টেনের কাজটা আরও বেশি প্রশস্ত। তিনি কাজ করবেন সবকিছু নিয়ে। জালাল ইউনুস জানিয়েছেন, গ্যারি কারস্টেনের সঙ্গে ইতিবাচক আলোচনা চললেও এখনও সবকিছু চূড়ান্ত নয়। তবে তাকে কাজের পূর্ণ স্বাধীনতা দেওয়া হচ্ছে।

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) দল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর ব্যাটিং কোচ হিসেবে যোগদান করেছেন কারস্টেন। আরও কিছু ব্যক্তিগত ‘প্রজেক্ট’ রয়েছে তার। জালাল ইউনুসের ভাষ্য অনুযায়ী, কারস্টেন সবসময় বাংলাদেশে থাকবেন না। কেবল নির্দিষ্ট এসাইনমেন্টে তাকে আনা হবে। নিজের আলাদা এসাইনমেন্ট থাকলে তখন সেখানে কাজ করবেন। বিসিবি এক্ষেত্রে কোনো বাধা দেবে না।

জালাল ইউনুস বলেন, ‘কারস্টেনকে নেওয়া হচ্ছে ফুল টাইম ও লং টার্মের জন্য। যখন এসাইনমেন্ট থাকবে তখন বাংলাদেশে এসে কাজ করবেন। উনি ব্যস্ত থাকলে, বাইরে এসাইনমেন্ট থাকলে আমরা বাধা দিতে পারব না। এর বাইরে আইপিএলসহ আরও যেসব কাজ করছেন ওগুলো চালিয়ে যাবেন।’

ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক কোচ গ্যারি কারস্টেনকে কোচের প্রস্তাব দেওয়া হলে প্রথমে রাজি না হলেও পরবর্তীতে দুটি শর্ত দিয়েছিলেন। চেয়েছিলেন মাসে ৫০ হাজার মার্কিন ডলার। পরে তা কমিয়ে ৪৫ হাজার মার্কিন ডলার করেন। এ ছাড়া তিনি কেবল সিরিজ চলাকালীনই কাজ করবেন বলে বিসিবিকে প্রস্তাব দেন। সব মিলিয়ে বিসিবি রাজি হয়নি। তাই বাংলাদেশের ক্রিকেটের সঙ্গে কারস্টেনকে এভাবে রাখার চিন্তা-ভাবনা করছে বিসিবি।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন