শুক্রবার, ২০ জুলাই ২০১৮ ১০:১৮:০১ পিএম

তাজমহলে ৩ ঘণ্টার বেশি থাকা যাবে না

আন্তর্জাতিক | শনিবার, ৩১ মার্চ ২০১৮ | ১২:২২:৫০ পিএম

ঐতিহাসিক স্মৃতিসৌধ তাজমহল দর্শনে এবার নতুন নিয়ম চালু করেছে ভারতের আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অব ইন্ডিয়া বা এএসআই। ভারতের সবচেয়ে জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র তাজমহলে যাওয়া দর্শনার্থীরা ৩ ঘণ্টার বেশি থাকতে পারবেন না।

গতকাল বৃহস্পতিবার এএসআইয়ের জারি করা নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, ১ এপ্রিল থেকে তাজমহলে কোনো পর্যটক বা দর্শনার্থী ৩ ঘণ্টার বেশি থাকতে পারবেন না।

মানবদূষণের হাত থেকে রক্ষার জন্য এই নিয়ম চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত সরকারের নিয়ন্ত্রণাধীন এএসআই। আগে তাজমহল দর্শনের জন্য কোনো সময়সীমা নির্দিষ্ট ছিল না। পর্যটকেরা সারা দিন তাজমহল দর্শন করতে পারতেন। এবার সেই সময়ের ওপর রাশ টেনেছে কর্তৃপক্ষ।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, তিন ঘণ্টার বেশি কেউ অবস্থান করলে তাঁকে অতিরিক্ত টাকা দিতে হবে। এ জন্য দর্শনার্থীদের সময়সীমা দেখার জন্য নিয়োগ করা হচ্ছে অতিরিক্ত কর্মী।
প্রতিদিন তাজমহল খোলা হবে সূর্যোদয়ের ৩০ মিনিট আগে। বন্ধ হবে সূর্যাস্তের ৩০ মিনিট আগে। শুক্রবার বন্ধ থাকে তাজমহল। ওই দিন শুধু নামাজ পড়ার জন্য নামাজিদের জন্য খোলা হয় তাজমহলের ফটক।
১৫ বছরের কমবয়সী দেশি ও বিদেশি কোনো পর্যটকের টিকিট লাগে না। তাজমহল দর্শনের জন্য ভারতীয়দের ৪০ রুপির টিকিট কাটতে হবে। আর বিদেশিদের ১০০০ রুপির। তবে সার্ক দেশের পর্যটকদের জন্য এই টিকিটের হার ৫৩০ রুপি। তাজমহলের তিনটি ফটকের কাউন্টারে টিকিট মিলবে সূর্যোদয়ের এক ঘণ্টা আগে থেকে সূর্যাস্তের ৪৫ মিনিট আগ পর্যন্ত।
বিদেশি ও সার্ক দেশের পর্যটকদের প্রয়োজনীয় পরিচয়পত্র নিয়ে প্রবেশ করতে হবে তাজমহলে।

আগামীকাল পহেলা এপ্রিল থেকে দেশি এবং বিদেশি সব ধরনের পর্যটকদের জন্য এই নীতি কার্যকর হচ্ছে। খবর সিএনএনের

তাজমহলের দেখভালকারী প্রতিষ্ঠান আর্কেওলজিক্যাল সার্ভে অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে, জাতিসংঘের ইউনেস্কো কর্তৃক ঘোষিত বিশ্ব ঐতিহ্যের একটি অংশ তাজমহল। এখানে প্রতিদিন অন্তত ৫০ হাজার দর্শনার্থী প্রবেশ করেন।

প্রতিষ্ঠানটির মুখপাত্র ডি এন ডিমরি জানিয়েছেন, প্রায়ই দর্শনার্থীরা একবার প্রবেশ করে সারাদিন অবস্থান করেন। এর ফলে ব্যাপক ভিড়ের সৃষ্টি হয়।

তিনি বলেন, এটা বাস্তবায়ন করা হবে। কারণ প্রতিদিনই দর্শনার্থীর সংখ্যা বাড়ছে। তাই আমরা চাই না এখানে কোনো ধরনের দুর্ঘটনা ঘটুক।

সম্প্রতি ভারতের পর্যটনমন্ত্রী জানান, প্রতি বছর ৭০ লাখের বেশি পর্যটক তাজমহল পরিদর্শন করেন। সতের শতাব্দীতে সম্রাট শাহজাহান তার তৃতীয় স্ত্রী মমতাজের স্মৃতির উদ্দেশ্যে সমাধিসৌধ তাজমহল নির্মাণ করেন। ১৬৪৮ সালে সমাধিসৌধটির নির্মাণ কাজ শেষ হয়।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন