বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮ ০৪:২৭:৫৫ পিএম

অবসরের ঘোষণা ধোনির

খেলাধুলা | রবিবার, ১ এপ্রিল ২০১৮ | ০৬:১৯:০২ পিএম

খবরটা শুনেই মন ভেঙে গেল কোটি কোটি ভারতবাসীর। আর কখনও বাইশ গজে উঠবে না ধোনি ঝড়। আর কখনও দেখা যাবে না সেই বিখ্যাত হেলিকপ্টার শট? জাতীয় দলের জার্সি গায়ে আর কখনও ফিনিশার হিসেবে ম্যাচ জেতাবেন না? আর কখনও বলা যাবে না, মাহি মার রহা হ্যায়? দীর্ঘ ১৪ বছরের ক্রিকেট কেরিয়ারকে বিদায় জানানোর সিদ্ধান্তটা নিয়েই ফেললেন মহেন্দ্র সিং ধোনি!

তাঁর অগণিত ভক্তরা বিশ্বাসই যেন করতে পারছেন না যে আগামী বছর বিশ্বকাপে ধোনিকে দেখা যাবে না। আইপিএল শুরু হতে আর মাত্র সপ্তাহখানেক। দুবছর পর চেন্নাই দলের জার্সি গায়ে নেতা হিসেবে প্রত্যাবর্তন হচ্ছে ক্যাপ্টেন কুলের। নতুন করে তাঁকে নিয়ে মেতেছিলেন চেন্নাই সুপার কিংসের ফ্যানরা। কিন্তু তার মধ্যেই অবসরের ঘোষণা করে দিলেন ধোনি। জানিয়ে দিলেন, অনেক ভেবে-চিন্তেই সিদ্ধান্তটা নিয়েছেন। দলের কাছে অনেক কিছু পেয়েছেন। তাই নতুন করে আর কিছু পেতে চান না তিনি। এবার আগামীদের জায়গা ছেড়ে দেওয়ার সময় হয়েছে। আর তাই বিশ্বকাপের আগেই ব্যাট-প্যাড তুলে রাখতে চলেছেন।

সম্প্রতি ধোনির টি-টোয়েন্টি ফর্ম নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল। অনেকেই মন্তব্য করেছিলেন, এবার কুড়ি-বিশের ফরম্যাট থেকে সরে দাঁড়ানোর সময় এসেছে তাঁর। তার উপর শ্রীলঙ্কায় ত্রি-দেশীয় সিরিজের ফাইনালে দীনেশ কার্তিকের দুরন্ত ফর্ম দেখে সমালোচকরা বলতে শুরু করে দেন, এরপরও যদি ধোনির জায়গায় উইকেটকিপারের ভূমিকায় কার্তিককে না দেখা যায়, তাহলে অবাক হতে হবে। তবে ধোনি খুব ভাল জানেন, ঠিক কখন তাঁকে সরে দাঁড়াতে হবে। তাই সমালোচনাকে যেমন কখনও কানে তোলেননি, ঠিক তেমনই সময় মতো অন্যকে দায়িত্বও ছেড়ে দিয়েছেন। ২০১৪ সালে টেস্ট ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়েছিলেন। গত বছর জানুয়ারিতে ওয়ানডে ক্যাপ্টেন্সিও ছেড়ে দিয়েছিলেন। তা সত্ত্বেও ধোনির উপস্থিতি উজ্জ্বলই ছিল টিম ইন্ডিয়ায়। কিন্তু এবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকেই আলবিদা জানিয়ে দিলেন তিনি। তাঁর এমন সিদ্ধান্তে মর্মাহত গোটা ক্রিকেট বিশ্ব। মাথা উঁচু করেই সরে দাঁড়াচ্ছেন। আর সেই সঙ্গে ইতি টেনে যাচ্ছেন একটা ক্রিকেট অধ্যায়ের। শচীন, সৌরভ, রাহুলের মতো তিনিও এখন ‘প্রাক্তন’দের তালিকাভুক্ত হলেন।

যেদিন ধোনি এতবড় সিদ্ধান্তটা নিলেন, সেদিনের তারিখটার দিকে দেখুন। সারা দুনিয়ায় এই একটাই দিন রেখে দেওয়া আছে নিছক মজা করার জন্য। দিনটার অস্থিমজ্জাতেই যে লুকিয়ে আছে এ কথা। কত জোক এল গেল, কত জোকই আসবে। মাহির মারও তেমনই থেকে যাবে। কিন্তু পয়লা এপ্রিল আর তো কাল থাকবে না। এই নিছক রসিকতা করার লাইসেন্সটুকুও তাই থাকবে না। তাই না হয় একটু মশকরা আজ মেনেই নিলেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন