বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ১১:২৯:৪৮ পিএম

৩-০ তে জয়, সিরিজ সেরা নির্বাচিত হলেন হার্টহিটার বাবর আজম

খেলাধুলা | বুধবার, ৪ এপ্রিল ২০১৮ | ১২:৪৩:২৫ পিএম

এক ম্যাচ হাতে রেখে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সোমবার টি-টোয়েন্টি সিরিজ নিশ্চিত করেছিল পাকিস্তান। মঙ্গলবার শেষ ম্যাচও জিতে উইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ করলো সরফরাজ আহমেদের দল। করাচিতে এসে একরাশ লজ্জা নিয়ে দেশে ফিরতে হচ্ছে ক্যারিবিয়ানদের। ৩-০ তে জয়, সিরিজ সেরা নির্বাচিত হলেন হার্টহিটার বাবর আজম।

মাত্র ১৬.৫ ওভারে ২ উইকেট হারিয়ে ১৫৪ রানের লক্ষ্য স্পর্শ করে পাকিস্তান। ৮ উইকেটের এই জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজটি ৩-০ তে জিতলো তারা।

দুই ওপেনার ফখর জামান ও বাবর আজমের মারকুটে ব্যাটিংয়ে জয় পেতে বেশি সময় নেয়নি পাকিস্তান। মাত্র ৫.২ ওভারে ৬১ রান করার পর তারা প্রথম উইকেট হারায়। ১৭ বল খেলে ৬ চার ও ২ ছয়ে ৪০ রানে ঝড়ো ইনিংস খেলে আউট হন ফখর।

বাবর আরও একটি পঞ্চাশ ছাড়ানো জুটি গড়েন হুসেইন তালাতকে নিয়ে। ৪০ বলে ৬ চারে ৫১ রান করে ফেরেন তিনি। ৫২ রানের জুটি গড়ে ১৩তম ওভারে আউট হন বাবর।

এরপর তালাত ও আসিফ আলীর ৪১ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে জয় পায় পাকিস্তান। ৩১ রানে খেলছিলেন তালাত। আসিফের ব্যাটে আসে অপরাজিত ২৫ রান।

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নামে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আগের দুই ম্যাচে পাকিস্তানের রানের পাহাড়ে উঠতে গিয়ে ভোগান্তির শিকার হয়েছিল ক্যারিবিয়ানরা। তৃতীয় ম্যাচে এই কষ্টটা করতে হলো না তাদের। টস জিতে ব্যাটিং নিলো এবং সিরিজে নিজেদের সর্বোচ্চ ১৫৩ রান করলো ৬ উইকেটে।

ধীর শুরুর কারণে তাদের স্কোর দেড়শ ছাড়ানোর আভাস পাওয়া যায়নি। দিনেশ রামদিনের ঝড় ও শেষ দুই বলে টানা ছয়ে সম্মানজনক রান স্কোরবোর্ডে তোলে সফরকারীরা। তিনি মাত্র ১৮ বল খেলে ৪টি চার ও ৩টি ছয়ে অপরাজিত ছিলেন ৪২ রানে।

তার আগে ব্যাটসম্যানদের আসা যাওয়ার মাঝে আন্দ্রে ফ্লেচারের হাফসেঞ্চুরি উইন্ডিজকে স্বস্তিতে রেখেছিল। এই ওপেনার ৪৩ বলে ৫২ রানে নওয়াজের দুর্দান্ত থ্রোতে রান আউট হন। তার ঝুলিতেও ছিল ৪টি চার ও ৩টি ছয়।

এছাড়া কেবল মারলন স্যামুয়েলস (৩১) ও অধিনায়ক জেসন মোহাম্মদ (১৩) দুই অঙ্কের ঘরে রান করেন।

২ ‍উইকেটে প্রথম উইকেট হারানোর পর ফ্লেচার ও স্যামুয়েলসের ৭২ রানের জুটিই ছিল সর্বোচ্চ। এরপর ৭৪ থেকে ৯৬ রান করতেই দল হারায় আরও চার উইকেট। জেসনের সঙ্গে ৪৪ রানের জুটি গড়ে এই ধাক্কা সামাল দেন রামদিন।

পাকিস্তানের শাদাব খান সবচেয়ে বেশি ২ উইকেট নেন। খেলা শেষে সিরিজ সেরা হন বাবর আজম।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন