শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮ ১২:৫১:৪৩ এএম

চট্টগ্রামে দ্বিতীয় শ্রেণির শিশুকে ধর্ষণ

জেলার খবর | চট্টগ্রাম | বুধবার, ৪ এপ্রিল ২০১৮ | ০৬:১৮:২১ পিএম

চট্টগ্রামের আনোয়ারায় ৭ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা ভেস্তে গেছে এলাকার কিছু যুবকের প্রতিবাদে। তাদের উদ্যোগে গতকাল রাতে থানায় মামলা করেন নির্যাতিতার বাবা। ধর্ষকের পাশাপাশি সালিশি বৈঠকে মীমাংসার চেষ্টাকারীদেরকেও আইনের আওতায় আনার দাবি জানান তারা। এদিকে, মামলার পর থেকে অভিযুক্ত রুবেল দাস পলাতক রয়েছে। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য শিশুটিকে চট্টগ্রাম মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে।

চেষ্টা ছিল প্রভাবশালীদের মাধ্যমে সালিশ বৈঠকে নির্যাতিতার পরিবারকে অর্থের লোভ দেখিয়ে ধর্ষণের ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার। কিন্তু এলাকার যুব সমাজের প্রতিবাদে তা ভেস্তে যায়।

পুলিশ জানায়, চট্টগ্রামের আনোয়ারায় কলেজ রোড এলাকায় শিশুটির বাসার পাশেই ভাড়া থাকতো রুবেল দাস। গত ২৪ মার্চ দুপুরে শিশুটিকে কৌশলে তার রুমে নিয়ে ধর্ষণ করে সে। মেয়েটি অসুস্থ হয়ে পড়লে স্থানীয়দের কাছে নালিশ দেয় তার বাবা। কিন্তু অভিযুক্ত রুবেল দাশকে পুলিশের না দিয়ে বরং বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে তারা। পরে এলাকায় কিছু যুবক এর প্রতিবাদ জানালে ঘটনার ১০ দিন পর মঙ্গলবার রাতে শিশুটির বাবা বাদী হয়ে থানায় মামলা করে।

ধর্ষিতার বাবা জানান, তাদের শালিস মানি না। কারণ আমাকে টাকা দিয়ে চলে যাবে, এইটা হবে না। আমি তার ফাঁসি চাই।

এদিকে, বুধবার রুবেলের গ্রেফতারের দাবিতে বিক্ষোভ করেছেন এলাকাবাসী।

যুবক ও এলাকাবাসী জানান, যারা সালিশ করেছে, এটা তাদের মেয়ে হলে কী এইরকম হতো। এই ঘটনায় যারা সালিশ করেছে
তারাও সমান অপরাধী। আমরা রুবেলের সর্বোচ্চ শাস্তি চাই। সেই সঙ্গে যারা সালিশ করেছে তাদেরও বিচার আওতায় নিয়ে আসতে হবে।

অভিযুক্ত রুবেল দাসকে গ্রেফতার করতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষীবাহিনীর তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।


চট্টগ্রামের আনোয়ারা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো.মাহাবুব মিল্কী বলেন, এই ঘটনায় ওই মেয়েটি তা বাবা-মাকে কিছু জানায় নি। গতকাল বিকেলে তার বাবা থানায় এসে রুবেলের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

নির্যাতিতা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী।

তথসুত্র: সময়টেলিভিশন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন