বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮ ০১:৪০:৩২ এএম

রুয়েটে তালা ভেঙ্গে মন্দিরের জিনিসপত্র চুরি

মো: নুরুজ্জামান খান | শিক্ষাঙ্গন | বৃহস্পতিবার, ৫ এপ্রিল ২০১৮ | ০৪:৩৯:৪৮ পিএম

রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (রুয়েট) মন্দিরের তালা ভেঙ্গে পূজার জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র চুরির ঘটনা ঘটেছে।

গতকাল বুধবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষক- শিক্ষার্থীরা পূজা দিতে গেলে মন্দিরের তালা ভাঙ্গা এবং ভিতরের অনেক প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি খোয়া যাওয়ার বিষয়টি দেকতে পান। তাদের দাবি ধর্ম কাজে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করতে এমন কাজ করেছে দুর্বৃত্তরা। জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো কেন্দ্রীয় মন্দির নেই।

শিক্ষক- শিক্ষার্থীদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৪ সালে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান হলের চতুর্থ তলায় একটি কক্ষ মন্দির হিসাবে ব্যবহার করার জন্য বরাদ্দ দেয় প্রশাসন। পূজা উদযাপন কমিটির অর্থ-সম্পাদক অধ্যাপক ড. সিদ্ধার্থ শংকর সাহা বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে সারাদিন ক্লাস চলে এ জন্য শিক্ষক- শিক্ষার্থীরা প্রধানত রাতে পূজা আরাধনা করেন। আমরা প্রতি বুধবার মন্দিরে পূজা করি। গতকাল বুধবার যথারীতি পূজার জন্য যাই। গিয়ে দেখি রুমের তালা ভেঙ্গে রুমের ফ্যান ও পূজা দেওয়ার জন্য আমরা যেসকল জিনিসপত্র ব্যবহার করি তা চোরে নিয়ে গিয়েছে।

এ সকল জিনিসের বাজার দর খুব বেশি না, আমাদের ধর্মীয় কাজে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির জন্য এক শ্রেনির দুর্বৃত্তরা এ কাজ করেছে। সিদ্ধার্থ শংকর আরও বলেন, ‘হলের গার্ড এবং হল প্রাধ্যক্ষ সোমবার সকালে তালা ভাঙ্গা দেখেছেন কিন্তু তারা কেউ আমাদের জানান নি। রাতে হল গেটের তালা লাগিয়ে দেওয়া হয়। তাহলে এটা স্পষ্টত হলের কেউ এ কাজ করেছে।’

হল প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক মিয়া মো. জগরুল শাহাদাৎ বলেন, ‘এটা দুঃখজনক ঘটনা। হলের গার্ড আমাকে জানালে আমি মন্দিরটি পরিদর্শনে যাই আর অক্ষত জিনিসগুলো আমার হেফাজতে রেখেছি। এগুলো হলের কোনো শিক্ষার্থী এমন কাজ করেছে কিনা তা নজরদারিতে আছে।

কারও রুমে এসকল জিনিস পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ এদিকে চুরির ঘটনায় ফেইসবুকসহ নানা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় শুরু হয়েছে। অনেকে ধর্মীয় অনুভূতিতে আগাত হানার দায়ে অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন