রবিবার, ২০ মে ২০১৮ ১১:৩৫:৩৮ পিএম

জামিনের শুনানির আগেই বিচারক বদলি!

বিনোদন | শনিবার, ৭ এপ্রিল ২০১৮ | ০২:২৭:২৩ পিএম

বলিউড অভিনেতা সালমান খানকে ১৯ বছর ধরে চলমান কৃষ্ণসার হরিণ শিকার মামলায় গত ৫ এপ্রিল যোধপুর আদালত ৫ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন। ওই আদালতের যে বিচারক সেদিন রায় দিয়েছিলেন, সেই দেব কুমার ক্ষত্রীকে রাজস্থান বিচার বিভাগে বদলি করা হয়েছে। উচ্চ আদালতের নির্দেশে এ বদলি হয়েছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমগুলো।

০৭ এপ্রিল, শনিবার একইসঙ্গে সালমানের জামিনের শুনানির বিচারক রবীন্দ্র কুমার জোসিকেও বদলি করা হয়েছে। বলিউডের এই সুপারস্টার যোধপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে থাকবেন নাকি বাড়ি ফিরবেন সেটি নির্ধারণ করার দায়িত্ব ছিল তার কাঁধে।

ধারণা করা হচ্ছে, বিচারক বদলি হওয়ার কারণে আজও পিছিয়ে যেতে পারে সালমানের জামিনের শুনানি।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, দেশটির হাইকোর্টের মাধ্যমে গঠিত কমিটির সুপারিশে প্রতি বছর ১৫ থেকে ৩০ এপ্রিলের মধ্যে বিচারকদের বদলি করা হয়ে থাকে। তবে এ বছর তার আগেই ৮৭ জন বিচারককে বদলি করা হয়েছে, যার মধ্যে এই দুই বিচারক আছেন।

বিচারক জোসিকে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে রাজস্থানের সিরোহতে। তার জায়গায় আসবেন ভিলওয়ারার সেশন বিচারক চন্দ্র কুমার সোঙ্গারা। বিচারপতি ক্ষত্রির জায়গায় আসছেন সমরেন্দ্র সিং শিকারওয়ার। তিনি এর আগে উদয়পুরের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ছিলেন।

১৯৯৮ সালের অক্টোবরে সালমান, সাইফ আলী খান, নীলম, টাবু ও সোনালি বেন্দ্রের বিরুদ্ধে মামলা হয়। মামলায় বলা হয়, ১৯৯৮ সালে ‘হাম সাথ সাথ হ্যায়’ সিনেমার শুটিংয়ের জন্য তারা যোধপুরে গিয়েছিলেন। সেখানে শুটিং চলাকালীন ১ ও ২ অক্টোবর রাতে যোধপুরের কাঙ্কিনি গ্রামে দুটি বিরল প্রজাতির কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা করেন তারা।

মামলার চূড়ান্ত পর্বের শুনানি শুরু হয়েছিল গত বছরের ১৩ অক্টোবর। ২৪ মার্চ দুই পক্ষের প্রশ্ন-উত্তর পর্ব শেষ হয়। এরপর ২৮ মার্চ যোধপুরের দেব কুমার খাতরির আদালত ৫ এপ্রিল রায় ঘোষণার দিন ধার্য করা হয়। এর আগে ২০০৬ সালে হরিণ হত্যার দায়ে তাকে যোধপুরের আদালত পাঁচ বছরের কারাদণ্ডসহ ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছিল।

পরবর্তী সময়ে বেশ কিছুদিন জেল খাটতে হয় সালমানকে। এরপর জামিনে মুক্ত হলে ২০১৭ সালে নির্দোষ প্রমাণিত হন তিনি। তবে এই রায়ের ওপর আবার আপিল করা হয়। যার চূড়ান্ত রায় বের হলো ৫ এপ্রিল। ভারতীয় দণ্ডবিধির (আইপিসি) বন্যপ্রাণী সুরক্ষা আইনের ৫১তম ধারা মোতাবেক সালমানকে দণ্ড প্রদান করা হয়। আদালতের রায়ে তাকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড ও ১০ হাজার রুপি জরিমানা করা হয়েছে। তবে মামলার অন্য আসামি সাইফ আলি খান, নীলম, টাবু, সোনালি বান্দ্রে বেকসুর খালাস পেয়েছেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন