মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ০৮:৫৭:০২ পিএম

বিতর নামাজে দোয়ায়ে কুনুত না জানলে যা পড়তে হয়

ধর্ম | সোমবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৮ | ১০:৩১:৫৪ পিএম

এশার নামাজ আদায়ের পর বিতরের তিন রাকাআত নামাজ আদায় করতে হয়। এই নামাজ ওয়াজিব। বিতর নামাজ তিন রাকাআত বিশিষ্ট নামাজের মত বেতরের নামাজ পড়িবে। তবে তৃতীয় রাকাআতে সূরা ফাতিহার পর অন্য কোন সূরা বা আয়াত পড়ে আল্লাহু আকবর বলে নিয়ত করে দোয়ায়ে কুনুত পড়তে হবে। তারপর রুকু সিজদা ইত্যাদি যথারীতি আদায় করে নামাজ শেষ করতে হবে।

রমজান মাস ব্যতীত সকল সময়ে বিতরের নামাজ একা একা এবং নিঃশব্দে পড়তে হবে। রমজান মাসে এই নমাজ জামায়াতের সাথে আদায় করা মুস্তাহাব। রমজান মাসে তারাবীর নামাজ শেষে ইমাম সাহেব প্রত্যেক রাকাতেরই সজোরে কেরাতে পাঠ করবে এবং তৃতীয় রাকাআতে ইমাম সাহেব কেরাআত শেষ করে সশব্দে “আল্লাহু আকবর” বলে কান পর্যন্ত হাত উঠাইয়া পুণরায় তাহা বাঁধিবে।

মোক্তাদিগণ চুপে চুপে শুধু ইমামের অনুকরণ করবে। হাত বেধে সবাই চুপে চুপে দোয়ায়ে কুনুত পড়বে।
ইহা বিতরের নামাযে পড়তে হয়

اَللَّهُمَّ اِنَّ نَسْتَعِيْنُكَ وَنَسْتَغْفِرُكَ وَنُؤْمِنُ بِكَ وَنَتَوَكَّلُ عَلَيْكَ وَنُثْنِىْ عَلَيْكَ الْخَيْرَ وَنَشْكُرُكَ وَلاَ نَكْفُرُكَ وَنَخْلَعُ وَنَتْرُكُ مَنْ يَّفْجُرُكَ-اَللَّهُمَّ اِيَّاكَ نَعْبُدُ وَلَكَ نُصَلِّىْ وَنَسْجُدُ وَاِلَيْكَ نَسْعَى وَنَحْفِدُ وَنَرْجُوْ رَحْمَتَكَ وَنَخْشَى عَذَابَكَ اِنَّ عَذَابَكَ بِالْكُفَّارِ مُلْحِقٌ

উচ্চারণ: আল্লাহুম্মা ইন্না নাসতাঈনুকা ওয়া নাসতাগ ফিরুকা ওয়ানুমিনু বিকা ওয়ানাতাওয়াক্কালু আলাইকা ওয়া নুছনী আলাইকাল খাইর। ওয়া নাসকুরুকা আলা নাক ফুরুকা ওয়ানাখলাউ উয়ানাত রুকু মাইয়্যাফযুরুকা। আল্লাহুম্মা ইয়্যাকানা বুদু ওয়ালাকা নুছালি্ল ওয়া নাস জুদু ওয়া ইলাইকা নাসয়া ওয়া নাহফিদু ওয়া নারজু রাহমাতাকা ওয়া নাখশা আজাবাকা ইন্না আজাবাকা বিলকুফফারি মূলহিক।

অনুবাদ: হে আল্লাহ!আমরা তোমার নিকট সাহায্য প্রার্থনা করিতেছি, তোমার নিকট ক্ষমাপ্রার্থনা করিতেছি, তোমার ভরসা করিতেছি। তোমার নিকটক্ষমাভিক্ষা করিতেছি, তোমার উপর ঈমান আনিতেছি, তোমার ভরসা করিতেছি তোমার গুণগান করিতেছি এবং তোমারই কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করিতেছি।আমরা তোমাকে অস্বীকার করি না। যাহারা তোমার হুকুম অমান্য করে তাহাদের সঙ্গে আমরা সংশ্রব সংসগ্র পরিত্যাগ করি। হেআল্লাহ! আমরা তোমারই ইবাদত করি, তোমারই খেদমতে হাজির হই এবং তোমার রহমতের আশা করি ও তোমার শাস্তিকে ভয় করি। নিশ্চই তোমার আজাব অবিশ্বাসিগণ ভোগ করিবে।

পরে যথাবিহিত ইমাম সাহেব রুকু, সিজাদা, তাশাহুদ, দরূদ পড়ে সালাম করে নামাজ শেষ করবে, মোক্তাদিগহণও তার অসনুসরণ করবে।

যদি কেহ দোয়ায়ে কুনুত না জানে তবে না শিখা পর্যন্ত সে দোয়ায়ে কুনুতের স্থলে নিম্নেক্ত দোয়া পড়বে।

উচ্চারনঃ রাব্বানাআতিনা ফিদ্দুনিয়া হাছানাতাও ওয়াফিল আখিরাতে হাচানাতাও ওয়াকিনা আজাবান্নার।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন