শুক্রবার, ২০ জুলাই ২০১৮ ০৩:১৮:৩৫ এএম

রুয়েটের বাস চালক হত্যাকাণ্ডে অফিসার্স এবং কর্মচারী সমিতির কর্মবিরতি পালন

নুরুজ্জামান খান | শিক্ষাঙ্গন | মঙ্গলবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৮ | ০৫:১৮:১২ পিএম

রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) বাস চালক আব্দুস সালামের হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার ও শাস্তির দাবিতে কর্মবিরতি পালন করেছে অফিসার্স ও কর্মচারী সমিতি।

মঙ্গলবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান করে সমাবেশও করেন তারা। কর্মচারী সমিতির সভাপতি মহিদুল ইসলাম মোস্তফা বলেন, ‘ক্যাম্পাসে আগে এ ধরণের ঘটনা খুব কমই হতো। যখন থেকে এ ক্যাম্পাসে আনছার মোতায়ন করা হয়েছে তখন থেকেই এ ধরণের ঘটনা বেশি হচ্ছে। এতে করে ক্যাম্পাসের নিরাপত্তার দিন দিন আরও হালকা হয়ে যাচ্ছে।’

সমাবেশে ২৪ ঘন্টার মধ্যে আব্দুস সালামের হত্যাকারীদের গ্রেফতার না করা হলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দেন সমিতির নেতৃবৃন্দ। এ দিকে আব্দুস সালামের হত্যাকান্ড পারিবারিক শত্রুতার কারণে হতে পারে বলে মনে করছে পুলিশ। মতিহার থানার ওসি শাহাদাত হোসেন বলেন, পূর্ব শত্রুতার জেরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে আমরা প্রাথমিক ধারণা করছি।

এ ঘটনায় নিহতের বড় ছেলে পলাশ বাদি হয়ে মতিহার থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্ত কাজ ইতোমধ্যেই শুরু হয়েছে। এ ঘটনায় একজনকে সন্দেভাজন হিসাবে আটক করা হয়েছে বলেও দাবি করেন শাহাদাত হোসেন। কিন্তু আসামীর পরিচয় দিতে রাজি হন নি তিনি। নিহতের স্ত্রী হাছনা বেগম অভিযোগ করে বলেন, ‘তিন বছর আগে আমার বড় ছেলে পলাশকে পাশ^বর্তী এলাকার কয়েকজন যুবক তাকে ডেকে বাড়ির বাহিরে নিয়ে যায়।

বাহিরে নিয়েই তারা পলাশকে চাপাতি দিয়ে এলোপাতাড়ি কোপানো শুরু করে। তারপর তারা ওখান থেকে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় আমরা থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করি। সেই ঘটনার সূত্র ধরে এ খুন হয়েছে কিনা তা আমি বলতে পারছি না।’ এদিকে, ক্যাম্পাসের সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারসহ সাত দফা দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

তাদের দাবিগুলো হল- সকল রাস্তা ও হাঁটা পথে উজ্জল আলোর ব্যবস্থা করা, সকল ফটক, মোড় ও গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলো সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা, অগ্রণী গেট বন্ধ করা এবং সকল প্রবেশ পথে যানবাহন স্ক্যানিং সিস্টেম চালু করা, খেলার মাঠে রুয়েট শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার নিশ্চিত করা, জরুরি প্রয়োজনে হেল্পলাইন নম্বর চালু করা এবং ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হলে বিশ্ববিদ্যালয়কে এর ক্ষতিপূরণ প্রদান করা। জানতে চাইলে রুয়েট উপাচার্য অধ্যাপক রফিকুল আলম বেগ বলেন, ‘ঘটনাটি গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে।

দ্রুত তদন্ত করে খুনিদেও বের করার জন্য পুলিশকে বলা হয়েছে।’ উল্লেখ্য, গত সোমবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে নিজ কোয়ার্টারে ফিরছিলেন রুযেটের বাস চালক আব্দুস সালাম। এ সময় দুর্বৃৃত্তরা বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্রণী স্কুলের সামনে তাকে উপর্যুপরি কুপিয়ে হত্যা করে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন