সোমবার, ১৬ জুলাই ২০১৮ ০৫:০৮:৪৪ এএম

নিয়তি’র নৃত্য পরিচালক কে?

বিনোদন | মঙ্গলবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৮ | ০৬:৫০:১৬ পিএম

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের সর্বোচ্চ পুরস্কার ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার’। চলচ্চিত্র শিল্পের বিকাশ ও উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য অবদানের জন্য ব্যক্তি বিশেষ, শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র ও প্রামাণ্যচিত্রে এ পুরস্কার প্রদান করা হয়ে থাকে।

সম্প্রতি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৬ এর গেজেট প্রকাশিত হয়েছে। এতে ‘নিয়তি’ সিনেমার নৃত্য পরিচালক হাবিবকে ‘নৃত্য পরিচালক’ হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। কিন্তু হাবিব জানিয়েছেন, এই সিনেমায় কাজই করেননি তিনি। এরপরই এ পুরস্কার নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠে। জাজ এই সিনেমাটি প্রযোজনা করেছেন বলে গুঞ্জন উঠে। তবে এ সিনেমাটি প্রযোজনা করেনি বলে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানায় জাজ মাল্টিমিডিয়া।

‘নিয়তি’ সিনেমার নৃত্য পরিচালক কে? আর কোন প্রতিষ্ঠান এ সিনেমা প্রযোজনা করেছে তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা। এদিকে ‘নিয়তি’ সিনেমার নৃত্য পরিচালক হিসেবে দাবি করছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্ত নৃত্য পরিচালক ইমদাদুল হক খোকন। ইতোমধ্যে তথ্য মন্ত্রণালয়ে চিঠিও প্রেরণ করেছেন তিনি। চিঠিতে নিজেকে সিনেমাটির নৃত্য পরিচালক হিসেবে দাবি করেন।

এ বিষয়ে নৃত্য পরিচালক ইমদাদুল হক খোকন রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘‘নিয়তি’ সিনেমার কোন গানের জন্য পুরস্কার দেয়া হয়েছে তা আমি জানি না। তবে আমি এই সিনেমার একটি গানে কাজ করেছি। আর অন্য একটি গানের কয়েকটা দৃশ্যে কাজ করেছি। সিনেমাটিতে হাসপাতালের একটি গান রয়েছে। এ গানে জলি, শুভ আর ইন্ডিয়ান শিল্পী কাজ করেছেন। সিনেমায় এই গানটি রিপিটও আছে।’’

সিনেমাটিতে আপনি কাজ করেছেন তার কোনো চুক্তিপত্র আপনার কাছে আছে কিনা? উত্তরে তিনি বলেন, ‘কোনো চুক্তি হয়নি। নৃত্য পরিচালকদের এখন কোনো সিনেমার জন্য চুক্তি করানো হয় না। তবে আমার একটি ভাউচার আছে। এই ভাউচারের মাধ্যমে আমাকে টাকা দেয়া হয়েছে।’

সিনেমার টাইটেলে আপনার নাম দেয়া হয়েছিল? উত্তরে তিনি বলেন, ‘‘টাইটেলে কোনো নামই দেয়া হয়নি। আমি জানতাম নাম দিয়েছে। পরে দেখি দেয়া হয়নি। এজন্য পরিচালকের কাছে জানতে চেয়েছিলাম আমার নাম কেন দেয়া হয়নি? তখন তিনি বলেন, ‘আমিও জানি না।’’

‘নিয়তি’ সিনেমায় আপনি কাজ করেছেন এই বিষয়টি কি পরিচালক জানেন? উত্তরে তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ, রাজু ভাই কেন জানবেন না। তিনি এ বিষয়ে অবগত ছিলেন।’

এ বিষয়ে জানতে সিনেমাটির পরিচালক জাকির হোসেন রাজুর মুঠোফোনে একাধিকবার চেষ্টা করেও তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

অন্যদিকে এ.এইচ. খান এন্টারটেইনমেন্টের স্বত্তাধিকারী আনিসুর রহমান স্বাক্ষরিত একটি চিঠি আজ মঙ্গলবার সেন্সর বোর্ডে পাঠানো হয়। এতে দাবি করা হয়েছে, ‘নিয়তি’সিনেমাটি এ.এইচ. খান এন্টারটেইনমেন্ট প্রযোজনা করেছে।

চলচ্চিত্র পুরস্কার নিয়ে এমন জটিলতা সৃষ্টি হওয়ায় মর্মাহত চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা। এই জটিলতা কি শুধু ভুলের কারণে হয়েছে নাকি ইচ্ছাকৃতভাবে কোনো স্বার্থ আদায়ের জন্য করা হয়েছে? অনেকেই এমন প্রশ্ন তুলেছেন।

এদিকে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের দ্বিতীয় মনোনয়নে যে গানটিও রয়েছে, সেটিরও নৃত্য পরিচালক হাবিব। এখন প্রশ্ন উঠেছে, জুরি বোর্ডের বিচারে হাবিব নাকি ইমদাদুল হক খোকনের হাতে উঠবে এই পুরস্কার। তবে সবই এখন সময়ের অপেক্ষা মাত্র।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন