বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮ ০৬:৩১:০২ এএম

আইপিএলের মাঝপথে যারা অধিনায়কত্ব ছেড়েছেন

খেলাধুলা | শনিবার, ২৮ এপ্রিল ২০১৮ | ০৯:২৭:০২ পিএম

ফিরে গিয়েছিলেন পুরনো দল দিল্লি ডেয়ারডেভিলসে। ম্যানেজমেন্ট তার হাতেই তুলে দিয়েছিল অধিনায়কত্ব। কিন্তু মাঝপথেই সেই দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন গৌতম গম্ভীর। জানালেন, দলের হতাশাজনক পারফরম্যান্সের জন্যই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। দিল্লির দায়িত্ব নতুন করে তুলে দেয়া হয়েছে শ্রেয়াস আইয়ারের হাতে। তবে গম্ভীর প্রথম নন। এর আগেও আইপিএলের মাঝপথে অধিনায়কত্ব ছেড়েছেন অনেকে।

হরভজন সিং: ২০০৮ সালে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের অধিনায়ক থাকার সময়ই শ্রীশান্তের সঙ্গে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন হরভজন। সাসপেন্ড হয়ে ছাড়তে হয় অধিনায়কত্ব।

ভিভিএস লক্ষ্মণ: ২০০৮ সালে টুর্নামেন্টের মাঝপথে ডেকান চার্জার্সের দায়িত্ব থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন ভিভিএস লক্ষ্মণ। দায়িত্ব পান অ্যাডাম গিলক্রিস্ট। শোনা গিয়েছিল খারাপ পারফরম্যান্সের জন্য তাকে সরে যেতে বাধ্য করেছিল ম্যানেজমেন্ট।

কেভিন পিটারসেন: দেশের হয়ে খেলার জন্য ২০০৯ সালে আরসিবি ছাড়তে বাধ্য হন দলের ক্যাপ্টেন কেভিন পিটারসেন। দায়িত্ব পান অনিল কুম্বলে। সেবার ফাইনালে উঠেছিল বেঙ্গালুরু।

কুমার সাঙ্গাকারা: ২০১২ তে ডেকান চার্জার্সের অধিনায়ক ছিলেন। কিন্তু, নিজের পাশাপাশি দলের খারাপ ফলের দায় নিয়ে অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেন সাঙ্গাকারা। দায়িত্ব পেয়ে অবশ্য তেমন কিছু করতে পারেননি ক্যামেরুন হোয়াইট।

ড্যানিয়েল ভেট্রোরি: ২০১২তে দলের মধ্যে মত বিরোধের কারণে অধিনায়কের পদ ছেড়ে দেন। পরবর্তীতে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর অধিনায়ক করা হয় বিরাট কোহলিকে। ভেট্রোরি এখন বেঙ্গালুরুর কোচ।

রিকি পন্টিং: ২০১৩ তে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের অধিনায়ক করে হয়েছিল। কিন্তু, খারাপ ফর্মের জন্য দায়িত্ব ছেড়ে দেন। অধিনায়ক করা হয় রোহিত শর্মাকে।

শিখর ধাওয়ান: ২০১৪ তে হায়দরাবাদের হয়ে ১০ ম্যাচে ২১৫ রান করেছিলেন। তার পর দায়িত্ব ছাড়েন শিখর। দল পরিচালনার দায়িত্ব পান ড্যারেন স্যামি।

শেন ওয়াটসন: ২০১৫ সালে রাজস্থান রয়্যালসের অধিনায়কত্ব ছেড়েছিলেন। তার পরিবর্তে দায়িত্ব পান স্টিভ স্মিথ। আচমকা কেন ওয়াটসনকে সরানো হল, তা নিয়ে অবশ্য কিছু জানায়নি ম্যানেজমেন্ট।

ডেভিড মিলার: ২০১৬ তে পাঞ্জাবের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল মিলারকে। কিন্তু, ৬টি ম্যাচের মধ্যে পাঁচটিতে হেরে যায় দল। এর পর দলের দায়িত্ব চলে যায় মুরালি বিজয়ের কাঁধে। যদিও তাতে লাভের লাভ কিছু হয়নি। পরবর্তী ৯ ম্যাচের ৬ টিতে হারে পাঞ্জাব।

গৌতম গম্ভীর: একেবারেই রান পাচ্ছিলেন না দিল্লির অধিনায়ক। ক্রমাগত হারতে হয়েছে দলকে। খারাপ পারফরম্যান্সের যাবতীয় দায় নিয়ে সরে দাঁড়ান গম্ভীর। নতুন নেতা হন শ্রেয়াস আইয়ার।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন