শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯ ০৫:৩২:০২ এএম

জাবিতে উপাচার্যের অফিস ঘেরাও

নুর হাছান নাঈম | শিক্ষাঙ্গন | সোমবার, ৩০ এপ্রিল ২০১৮ | ০৭:২০:১২ পিএম

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি)তে 'বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ’ এর ব্যানারে সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক শরীফ এনামুল কবিরের অনুসারী আ.লীগপন্থী শিক্ষকরা পূর্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে শিক্ষকদের ওপর হামলা, অবৈধভাবে ডিন- প্রভোস্ট অপসারণ ও নিয়োগের প্রতিবাদ, অবিলম্বে উপাচার্য প্যানেল সহ জাকসু নির্বাচনের দাবিতে উপাচার্য অফিস ঘেরাও করেছেন।

এদিকে সোমবার সকাল আটটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরনো প্রশাসনিক ভবনের তিনটি ফটকে তালা ঝুলিয়ে এর সামনে অবস্থান নেন আন্দোলনরত শিক্ষকরা। দুপুর একটার দিকে এ কর্মসূচির শেষ হয়।

এদিকে ঘেরাওয়ের কারণে পুরনো প্রশাসনিক ভবনের কার্যক্রম বন্ধ ছিল।

শরীফপন্থী শিক্ষকদের সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক অজিত কুমার মজুমদার বলেন, ‘বিধি লঙ্ঘন করে উপাচার্য নয়টি হলে প্রভোস্ট নিয়োগ দিয়েছেন। এটি উপাচার্য করতে পারেননা। এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার এখতিয়ার সিন্ডিকেটের। উপাচার্য সিন্ডিকেট বিধি লঙ্ঘন করেছেন। তার এবং তার প্রশাসনের এসব অনিয়মের প্রতিবাদে ধর্মঘট পালন করতে গেলে আমাদের ছয়জন শিক্ষককে তার বাহিনী লাঞ্ছিত করেন।’
বিষয়টি নিয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম আন্দোলনকারীদের কর্মসূচি প্রত্যাহার করার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, ‘যারা আন্দোলন করছেন তারা মূলত প্রশাসনকে জিম্মি করছেন। তাদের উদ্দেশ্য প্রশাসনকে অচল করে দেওয়া। উপাচার্যকে সরিয়ে দেওয়া। এটা কখনোই যুক্তিসঙ্গত হবে না। আমি তাদের উদাত্ত আহ্বান জানাই, তারা যেন বিশ্ববিদ্যালয়ের মঙ্গলের জন্য ধর্মঘট, ঘেরাও সহ সকল কর্মসূচি প্রত্যাহার করেন।’

গত ১৭ এপ্রিল উপাচার্য ফারজানা ইসলামের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাক্ট-১৯৭৩, স্ট্যাটিউট ও সিন্ডিকেট পরিচালনা বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে সর্বাত্মক ধর্মঘটের ডাক দেন শরীফপন্থী শিক্ষকরা। এর অংশ হিসেবে সেদিন ভোরে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন ডিপোতে তালা ঝুলিয়ে দেন তারা। খবর পেয়ে ফারজানাপন্থী শিক্ষকরা তালা খুলতে গেলে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন দু’পক্ষের শিক্ষকরা। এরপর থেকে পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি পালন করছেন উভয়পক্ষের শিক্ষকরা।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন