শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ০৫:১৬:২৪ পিএম

মাদক ব্যবসায়ীদের কোনো ছাড় দেওয়া হবে না : দাদন

জাতীয় | মঙ্গলবার, ১ মে ২০১৮ | ১০:৩৬:০৩ এএম

পল্লবীতে মাদক বিক্রেতা বা মাদক ব্যবসায়ীদের কোনো প্রকার ছাড় দেওয়া হবেনা বলে জানিয়েছেন পল্লবী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দাদন ফকির। রাজধানীর পল্লবীর মিল্লাত ক্যাম্পের সামনে উর্দুভাষী বাংলাদেশীদের সংগঠন ইউএসপিওয়াইআরএম ৫ নং ইউনিট আয়োজিত শবেবরাত উপলক্ষে আতশবাজি ও মাদক বিরোধী মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন তিনি। দাদন ফকির বলেন, পল্লবীতে মাদক ব্যবসায়ী দের কোনো জায়গা হবে না।

যদি কেউ মাদক বিক্রি বা ব্যবসার সাথে জড়িত থাকেন এবং ভালো হতে চান। ভালো পথে ফিরে এসে স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে চান তাহলে প্রশাসন তাদের সহযোগীতা করবে। আর যদি তারা মাদক ব্যবসা চালিতে যেতে থাকেন তাহলে জনগণকে সাথে নিয়ে মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে সম্মিলিত অভিযান চালানো হবে।

পবিত্র শবেবরাত ইবাদত বন্দেগি করার রাত, আতশবাজি করার নয় এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন এই পবিত্র রাতে যদি কেউ আতশবাজি করে তাহলে তাদের আইনের আওতায় নেওয়া হবে। ২০১৪ সালের মতো ঘটনা আর দেখতে চাইনা। আমি ২০১৫ সালে এ এলাকার দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই চেষ্টা করছি যেন বিহারী-বাঙ্গালী একসাথে কাধে কাধ মিলিয়ে বসবাস করতে পারে। বিহারীরাও এদেশের নাগরিক তাই এদের ছোট করে দেখার কিছু নেই। আমি বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় কালশির ঘটনা সম্পর্কে জেনেছি।

আমিও চাই এই ঘটনার বিচার হোক। কিন্তু এ মামলার দায়িত্ব গোয়েন্দা সংস্থাকে দেওয়া হয়েছে। আমি এ বিষয়ে তৎবির করতে পারি যেনো এ ঘটনার বিচার দ্রুত সম্ভব হয়। এ সময় ইউএসপিওয়াইআরএম`র সভাপতি মোঃ সাদাকাত খান ফাক্কু বলেন, আমরা মাদক ও আতশবাজি রুখতে প্রশাসনকে সকল ধরনের সহযোগীতা করবো। প্রয়োজনে তাদের সাথে আমরাও অভিযানে থেকে সহযোগীতা করবো। কালশি হত্যার বিচার নিয়ে গড়িমসি করা হচ্ছে এমন অভিযোগ করে তিনি বলেন,২০১৪ সালে ১০ বিহারী হত্যার চার বছর অতিবাহিত হলেও এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়া হয়নি।

প্রতিবছর শবেবরাত ঘনিয়ে আসলে তদন্ত কর্মকর্তাদের বক্তব্য শুনা যায়। এ ঘটনার ভিডিও ফুটেজ আমরা প্রশাসনকে দিয়েছি। সেখানে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে কারা হামলা চালিয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত তাদের শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ। দ্রুত কালশি হত্যার বিচারে সরকার ও প্রশাসনের সহযোগীতার দাবি জানান বিহারীদের এ নেতা।

সভা শেষে সাহবুদ্দিন নামের এক মাদক ব্যবসায়ী পুলিশের কাছে নিজেকে আত্মসমর্পণ করে এবং স্বাভাবিক জীবনযাপনে ফিরে আসার অঙ্গীকার করে।

মতবিনিময় সভায় মোঃসাদাকাত খান ফাক্কুর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, ইউএসপিওয়াই আরএম`র সাধারণ সম্পাদক শাহিদ আলী বাবলু, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মোক্তার আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃশাকিল,মঞ্জুর রেজা খান,দপ্তর সম্পাদক রাশেদ আহমেদ প্রমুখ।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন