বৃহস্পতিবার, ২১ জুন ২০১৮ ১২:৩০:৪০ পিএম

সড়ক দুর্ঘটনা রোধে মিডিয়াকে গণসচেতনতা তৈরির পরামর্শ প্রধানমন্ত্রী

জাতীয় | বুধবার, ২ মে ২০১৮ | ১০:০০:০২ পিএম

সম্প্রতি সড়ক দুর্ঘটনা বৃদ্ধি ও চালকদের শাস্তি প্রসঙ্গে প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সড়ক দুর্ঘটনার জন্য শুধুমাত্র চালকদের দায়ী করলেই চলবে না। এক্ষেত্রে পথচারীদের রাস্তায় চলাচল ও ট্রাফিক আইন কানুন সম্পর্কে সচেতন হওয়া প্রয়োজন। এ ব্যাপারে বিভিন্ন ইলেকট্রনিক মিডিয়াকে গণসচেতনতা তৈরির পরামর্শ দেন তিনি।

সম্প্রতি সৌদি আরব, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়া সফর উপলক্ষে গণভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার রিপোর্টার ও সম্পাদককে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন ইস্যুতে প্রশ্ন করার সুযোগ দেন প্রধানমন্ত্রী। একটি বারের জন্যও সংবাদ সম্মেলন শেষ করার কথা নিজ মুখে উচ্চারণ করেননি তিনি। সাংবাদিকদের প্রশ্নের সঙ্গে কখনও সহমত প্রকাশ করেন, কখনও যুক্তি দেখিয়ে ভিন্নমত পোষণ করেন, কখনও জাতির জনকের কন্যা হিসেবে দৃঢ়চেতা মনোভাব দেখিয়ে সব প্রশ্নের সুনির্দিষ্ট মতামত দেন। বলতে গেলে প্রথমবারের মতো গাজী টিভির একজন নারী রিপোর্টারের প্রশ্নের মাধ্যমে আজকের সংবাদ সম্মেলন শুরু হয়। অন্যান্য সময় প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সম্পাদকসহ শীর্ষ ব্যক্তিরা সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্নের সূচনা করলেও আজ ভিন্নভাবে শুরু হয়।

সংবাদ সম্মেলনে গ্লোবাল সামিট অন উইমেনে প্রাপ্ত ‘গ্লোবাল উইমেন লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড, রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রশংসা, সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিল, শিক্ষা ক্ষেত্রে নারীদের তুলনায় পুরুষদের পিছিয়ে পড়া, দেশের উন্নয়নে বর্তমান সরকারের চলমান প্রচেষ্টা, সাজাপ্রাপ্ত তারেক রহমানকে বিএনপির চেয়ারপারসন নিয়োগ এবং দলটির রাজনৈতিক দেউলিয়াত্ব প্রকাশ, সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে নিরপরাধ গৃহকর্মীর জেলযাপনে মানবাধিকার সংস্থার নীরবতা, রাস্তা পারাপারে পথচারীদের অসচেতনতা, বেসরকারি খাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমিকাসহ নানা প্রসঙ্গে সাবলীলভাবে প্রশ্নের উত্তর দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সম্প্রতি সড়ক দুর্ঘটনা বৃদ্ধি ও চালকদের শাস্তি প্রসঙ্গে প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, সড়ক দুর্ঘটনার জন্য শুধুমাত্র ড্রাইভারদের দায়ী করলেই চলবে না। এক্ষেত্রে পথচারীদের রাস্তায় চলাচল ও ট্রাফিক আইন কানুন সম্পর্কে সচেতন হওয়ার প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেন। এ ব্যাপারে বিভিন্ন ইলেকট্রনিক মিডিয়াকে গণসচেতনতা তৈরির পরামর্শ দেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনের শেষ প্রশ্নকারী ছিলেন মাছরাঙা টেলিভিশনের রেজওয়ানুল হক। তিনি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে আর্থিক দুর্নীতি প্রসঙ্গে প্রশ্ন করলে বিষয়টি সংশ্লিষ্টরা দেখবেন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার খরচ বেশি হবেই। সেখানে সরকার টাকা দেয় না। প্রশ্নের উত্তর শেষে প্রধানমন্ত্রী হেসে বলেন, ‘পেট ভরছে, মন ভরছে।’ উপস্থিত সাংবাদিকদের উদ্দেশে মিষ্টি হেসে এ দুটি বাক্য বলে সংবাদ সম্মেলন শেষ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন