শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ০১:১০:৩২ পিএম

রাজশাহীতে বালুঘাট থেকে ৮টি হাতবোমা উদ্ধার

জেলার খবর | রাজশাহী | শুক্রবার, ৪ মে ২০১৮ | ০৬:১৯:৩০ পিএম

রাজশাহীতে একটি বালুঘাট থেকে আটটি হাতবোমা উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার দুপুরে কাটাখালি পৌরসভার শ্যামপুর বালুঘাট থেকে পুলিশ হাতবোমাগুলো উদ্ধার করে। তবে সেখান থেকে কাউকে আটক করা হয়নি। বালুঘাটের টোল ঘরের পাশে একটি ব্যগে বোমাগুলো রাখা ছিল বলে জানান মহানগর পুলিশের কাটাখালি থানার ওসি মেহেদী হাসান।

ওসি বলেন, অস্ত্র মজুদ করা হয়েছে এমন খবরের ভিত্তিতে শ্যামপুর বালুঘাটে অভিযান চালালো হয়। এ সময় বালুঘাটের টোল ঘরের পাশে একটি ব্যগে পরিত্যাক্ত অবস্থায় ৮টি হাতবোমা পাওয়া যায়। বালুঘাট নিয়ে দুইপক্ষের বিরোধের জের ধরে আতঙ্ক সৃষ্টি করতে সেখানে বোমা মজুদ করা হয়েছিল বলে এই পুলিশ কর্মকর্তার ধারণা।

এর আগে গত ২৯ এপ্রিল দিবাগত রাতে ওই বালুঘাটে কয়েকটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে সেখানে অভিযান চালিয়ে অবিস্ফোরিত দুইটি হাতবোমা উদ্ধার করে। গত ২২ মার্চ বালুঘাটটি অস্ত্রের মুখে দখল করে নেয় কাটাখালি পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলীর লোকজন। এর পর থেকে বালুঘাটটি তাদের দখলে রয়েছে।

জানা গেছে, প্রায় চার বছর ধরে টেন্ডারের মাধ্যমে জেলা প্রশাসন থেকে ইজারা নিয়ে মেসার্স আমিন ট্রেডার্স চরখিদিরপুর ও চরশ্যামপুর বালুমহালে বালু উত্তোলন ও সরবরাহ করে আসছে। সর্বশেষ গত ফেব্রুয়ারি মাসে টেন্ডারের মাধ্যমে আগামী এক বছরের জন্য ১২০ একরের সরকারি এই দুইটি বালুমহাল ইজারা পায় ওই প্রতিষ্ঠানটি।

মেসার্স আমিন ট্রেডার্সের বালুঘাটের টোল আদায়কারি জনি ইসলাম জানান, মেসার্স আমিন ট্রেডার্সের নামে বালুঘাট ইজারা থাকলেও গত ২২ মার্চ বিকেলে অস্ত্রের মুখে দখল করে নেয় স্থানীয় মেয়রের লোকজন। এর পর থেকে তারা বালুঘাট নিয়ন্ত্রণ করছে। তারা মেসার্স আমিন ট্রেডার্সের তোলা লাখ লাখ টাকার বালু প্রতিদিন বিক্রি করে দিচ্ছে। বালুমহাল দখলে রাখতে মেয়রের লোকজন ঘাটে বিপুল পরিমান বোমা ও অস্ত্র মজুদ করে রেখেছে। ফলে তারা ঘাটে যেতে পারেন না। এ ব্যাপারে আদালতে মামলা দায়ের করাসহ জেলা প্রশাসক ও থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়া হলেও পুলিশ কোন পদক্ষেপ নেয় না বলে জানান জনি ইসলাম।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন