সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮ ০১:৩৪:৩৩ পিএম

জাতীয় নির্বাচন: তারেক নয়, আসছেন জোবাইদা

হাসান আল মাহমুদ, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | রাজনীতি | বুধবার, ৯ মে ২০১৮ | ০৪:১৬:৪৭ পিএম

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সহধর্মিনী ডা. জোবাইদা রহমানের রাজনীতিতে আসার গুঞ্জন নতুন কিছু নয়। তবে তার (ডা. জোবাইদা রহমান) রাজনীতিতে আসা কি শুধুই গুঞ্জন নাকি সত্যি। এ হিসাব নিকাশ নিয়ে দলের ভিতর বাহির চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা।

দলীয় সূত্র মতে, দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া কারাবন্দি থাকায় ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মামলার বেড়াজালে দীর্ঘদিন দেশের বাইরে অবস্থান করায় দলীয় শৃঙ্খলা রক্ষায় ডা. জোবায়দা রহমানের রাজনীতিতে আশা অস্বাভাবিক কিছু নয়। দলের প্রয়োজনে তিনি রাজনীতিতে আসতেই পারেন। আর তিনি তো জিয়া পরিবারের বাইরের কেউ নয়। তাই তার উপর দায়িত্ব আসলে দলের ক্ষতি কি বরং আরও ভালোই হবে বলে মনে করছে বিএনপি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপির একটি ঘনিষ্ঠ সূত্র থেকে জানা যায়, ডা. জোবাইদা রহমানের রাজনীতিতে আসার বিষয়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান নিজেই সিদ্ধান নিয়েছেন এবং এ বিষয়ে তিনি দলের নীতি নির্ধারকদের মতামতও চেয়েছেন।

তিনি আরো জানান, দেশের এই পরিস্থিতিতে এই মুহুর্তে তারেক রহমানের দেশে ফেরার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। চলতি বছরেই দেশে জাতীয় নির্বাচন। আর দলের চেয়ারপারসনেরও বয়স বিবেচনায় জোবাইদা রহমানের নেতৃত্বেই বিএনপি আগামী নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করতে পারে।

আরও একটি সূত্রে জানা গেছে, তারেক রহমান ইতোমধ্যে জোবাইদা রহমানকে রাজনৈতিক তালিম দিতে শুরু করেছে। জোবায়দাকে বুঝিয়ে দেয়া হচ্ছে রাজরৈতিক নানান কুট-কৌশল। ইতোমধ্যে জোবায়দাও রাজনৈতিক অনেক জ্ঞান রপ্ত করেছেন বলে জানা গেছে।

সূত্রটি আরও জানায়, তারেক রহমান কোন কারণে বিদেশে থেকে দেশে ফিরতে না পারলে এবং খালেদা জিয়া জেল থেকে মুক্তি না পেলে জোবায়দা রহমানের নেতৃত্বেই বিএনপি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহন করবে। সেই ভাবেই প্রস্তুতি নিচ্ছে দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি।

এ বিষয়ে বিএনপির রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও বুদ্ধিজীবীরা মনে করেন, যেহেতু তারেক রহমান প্রতিপক্ষের নোংরা রাজনীতির শিকার হয়ে দীর্ঘদিন বিদেশে রয়েছেন। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াও রাজনৈতিক মামলায় কারারুদ্ধ আছেন। এই পরিস্থিতিতে ডা. জোবাইদা রহমানের বিএনপির রাজনীতিতে আসাটা দলের জন্য ভালোই হবে।

দলটির একাধিক সিনিয়র ও দায়িত্বশীল নেতা বলেন, জোবাইদা রহমানের রাজনীতিতে আসা না আসার বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে তার পরিবার। এটা একান্তই তাদের ব্যক্তিগত বিষয়। তবে ডা. জোবায়দা রহমান তো জিয়া পরিবারেরই একজন সদস্য। তিনি দলের প্রয়োজনে, যেকোনো সময়ে, যেকোনোভাবে বিএনপির রাজনীতিতে আসতেই পারেন। তিনি রাজনীতিতে আসলে আমরা তাকে স্বাগতম জানাব।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, ডা. জোবাইদা রহমান আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সহধর্মীনি। তিনি জিয়া পরিবারেরই একজন সদস্য। তিনি যেকোন সময়ে, যেকোন পরিস্থিতিতে দলের প্রয়োজনে আসতে পারেন। দলের দায়িত্বও নিতে পারেন। এটা নিয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই।

তথ্যসূত্র: বিডি২৪লাইভ

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন