সোমবার, ১৬ জুলাই ২০১৮ ০৮:১৬:০৮ পিএম

নতুন এক স্টার পাচ্ছে বাংলাদেশ

খেলাধুলা | শুক্রবার, ১১ মে ২০১৮ | ০৬:২৬:০০ পিএম

গ্রীষ্মের রসালো ফল আমের ভারে নুয়ে থাকা আমগাছটাকে রীতিমতো ঝাঁকড়া চুলের এক দানবই বোধ হয় মনে করছিলেন জামাল হোসেন মোল্লা! কাল, এশিয়ান ট্যুর বাংলাদেশ ওপেনের দ্বিতীয় রাউন্ডের খেলার শেষ টি-অফ করার পর, বলটা ফেয়ারওয়েতে এমন এক জায়গায় এসে থামল; যেখানে সামনেই একটা মাঝারি উচ্চতার ফলভারে নুয়ে পড়া আমগাছ। খানিকটা সামনেই কুর্মিটোলা গলফ ক্লাবের লেক। ওপারে দেখা যাচ্ছে পাটিং গ্রিন। মারে একটু ভুলচুক হলে বল হয় আমগাছে লেগে ছুটবে দিগ্বিদিক, নইলে পানিতে। সামান্য হেরফেরেই হয়ে যেতে পারে বড় ভুল, যার মাসুলটা হবে চড়া। বোঝা যায় এই জততে নতুন স্টার পাচ্ছে বাংলাদেশ।

ভুল হয়নি জামালের। চমৎকার মাপা শটে বলটাকে গাছ আর পানির বিঘ্ন এড়িয়ে চমৎকারভাবে নিয়ে ফেললেন পাটিং গ্রিনের নরম গালিচায়। এরপর মসৃণ সবুজে বলের গায়ে আলতো টোকায় পাঠিয়ে দিলেন অভীষ্ট লক্ষ্যে। তাতেই এবি ব্যাংক বাংলাদেশ ওপেনের দ্বিতীয় দিনে লিডারবোর্ডের শীর্ষে উঠে এলেন জামাল। কাল সকাল ৯টা ৫ মিনিটে প্রথম হোল থেকে টি-অফ করেছিলেন সুইডিশ গলফার ম্যালকম কোকোচিনস্কি। জামালও খেলা শুরু করেন একই সময়ে, তবে ‘ব্যাক নাইন’ দিয়ে অর্থাৎ ১০ নম্বর হোল থেকে। প্রথম দিনে ৩ আন্ডারপারে শেষ করা এই সুইডিশ কাল ৫ আন্ডারপার খেলে পারের চেয়ে মোট ৮ শট কম খেলে কিছু সময়ের জন্য একাই ছিলেন লিডারবোর্ডের শীর্ষে। ১৭ হোল শেষেও ৭ আন্ডার নিয়ে খেলা জামাল ছিলেন কোকোচিনস্কির পেছনে। শেষ হোলে বার্ডি পেয়ে যাওয়ায় জামালের কালকের দিনের স্কোর হয়ে যায় ৬ আন্ডার। সঙ্গে প্রথম রাউন্ডের -২ মিলিয়ে মোট -৮ পয়েন্ট নিয়ে এখন যৌথভাবে লিডারবোর্ডের শীর্ষে আছেন জামাল ও কোকোচিনস্কি।

বৃষ্টি, বজ্রপাত আর বৈরী প্রকৃতি কালও বিঘ্ন ঘটিয়েছে খেলায়। সকাল ১১টার দিকে আকাশ কালো করে নেমে আসা বৃষ্টি আর বজ্রপাতে খেলা বন্ধ থাকার পর ফের শুরু হয় ১২-৫৫ মিনিটে। এরপর অবশ্য আর বাগড়া দেয়নি বৈরী প্রকৃতি। তার পরও সবার দ্বিতীয় রাউন্ডের খেলা শেষ হয়নি, তবে হয়ে গেছে ‘কাট’। অর্থাৎ প্রত্যাশিত মাত্রায় পারফরম করতে না পারারা বাদ পড়ে যাচ্ছেন প্রতিযোগিতা থেকে। +৩ এর বেশি যাঁদের স্কোর, তাঁরা খেলবেন না তৃতীয় ও চতুর্থ রাউন্ডে, প্রাইজমানিতেও তাঁদের নেই কোনো ভাগ। ছিটকে গেছেন সাবেক চ্যাম্পিয়নস মার্দান মামাত, ভারতের জিভ মিলখা সিং, বাংলাদেশের দুলাল হোসেনসহ অনেকেই। বাংলাদেশের সিদ্দিকুর রহমান কাল খেলতে পেরেছেন ৯ হোল। তাতে পারের চেয়ে ২ শট কম খেলেছেন গতবারের রানার-আপ, প্রথম রাউন্ডে পারের চেয়ে ১ শট বেশি খেলায় আপাতত তাঁর মোট স্কোর -১। আজ যদি খুব খারাপ না করেন, তাহলে কাট মিস হবে না সিদ্দিকেরও।

দেশের বাইরে সাফল্য আর অলিম্পিকে সরাসরি অংশগ্রহণের কৃতিত্বে সিদ্দিক হয়ে উঠেছেন গলফে বাংলাদেশের আইকন। তাঁর দেখানো পথে অনেকটাই এগিয়ে যাচ্ছেন জামাল। কিছুদিন আগেই কুর্মিটোলায় এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ট্যুরে হয়েছিলেন রানার-আপ। কাল যেভাবে খেলেছেন, তাতে জামালকে নিয়ে শিরোপার স্বপ্ন দেখা যেতেই পারে। অথচ শুরুটা ভালো ছিল না, দুই নম্বর হোলেই হয়ে যায় ডাবল বোগি। সেখান থেকেই ঘুরে দাঁড়ানোর শুরু জামালের, ‘ভুলটা হয়ে যাওয়ার পর নিজেকেই নিজে বললাম, এই সবই খেলার অংশ। এখন মাথা ঠাণ্ডা রাখতে হবে। নিজের স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে পারলেই আমি ভালো করতে পারব।’ ভুলের পরই যেন ঝলসে উঠলেন জামাল। প্রথম ৯ হোলে ৩টা বার্ডি। তবে সবচেয়ে ভালো খেলেছেন পরের ৯ হোলে, ৫টাতেই বার্ডি!

বৈশাখের প্রকৃতির মতো লিডারবোর্ডের এই অবস্থানও যে আচমকাই বদলে যেতে পারে, সেটা তো চোখের সামনেই দেখছেন জামাল। প্রথম দিন শীর্ষে থাকা থাই গলফার রাতানন কাল খেলেছেন মোটে ৬ হোল, তাতেই বোগি আর ডাবল বোগি মিলিয়ে পারের চেয়ে ৫ শট বেশি খেলে ফেলেছেন দ্বিতীয় রাউন্ডে! জামালও জানেন, পিছিয়ে পড়তেও সময় লাগবে না, তাই বাড়তি ভাবনায় মনকে ভারী করছেন না, ‘আমার খেলা কোর্সের সঙ্গে। কে কোথায় কেমন খেলছে, সেটা নিয়ে ভাবব না। আমার চেনা কোর্স, আমি এখানে স্বাভাবিক খেলাটা খেলার চেষ্টা করব। আশা করছি তাতে ভালো একটা ফল হবে।’

প্রতিভার ঝলক একটা দিনে দেখান কোনো বাংলাদেশি গলফার, এরপর প্রত্যাশার চাপ কিংবা বড় আসরে প্রতিদ্বন্দ্বিতার স্নায়ুর লড়াইয়ে হেরে ছিটকে যান শিরোপার রেস থেকে। গত তিন আসরে অনেকটা এ রকমই তো হয়ে আসছে। সম্প্রতি ছেলের বাবা হওয়া জামালের পুত্রভাগ্য কি পারবে সেই ধারাটা বদলাতে?

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন