বুধবার, ১৮ জুলাই ২০১৮ ১০:১৩:২৬ পিএম

বর্তমান সিরিয়া যুদ্ধ সম্পর্কে রাসূলের (সা.) ভবিষ্যতবাণী

ধর্ম | রবিবার, ১৩ মে ২০১৮ | ০৯:৪৪:০৪ পিএম

বর্তমান পৃথিবীর সব থেকে আলোচিত রাষ্ট্র হচ্ছে সিরিয়া। একজন মুসলিমের কাছে মক্কা ও মদীনার পরে তৃতীয় গুরুত্বপূর্ণ ও পবিত্রতম ভূখণ্ড হলো সিরিয়া। সিরিয়া সম্পর্কে নবী (সা.)-এর অনেক হাদিসও আছে। বর্তমানে সিরিয়ার প্রাচীন নাম হলো শাম। এই শাম নগরিকে কেন্দ্র করে হাদিসে যতগুলো বর্ণনা পাওয়া যায় সেই শামের সীমা বর্তমান সিরিয়া থেকে আরও বিস্তৃত ও বড় ছিল। সিরিয়া, জর্ডান, ফিলিস্তিন ও লেবানন- এই দেশগুলো মিলেই ছিল পূর্ব যুগের শাম। তখনকার শামের বড় একটি অংশ যেহেতু এখন সিরিয়ায় এই কারণে সিরিয়াকে শাম বলা হয়। এই সিরিয়ার প্রধন ও অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো আল্লাহপাক যুগে যুগে যত নবী ও রাসূর দুনিয়াতে পাঠিয়েছেন তার বড় একটি অংশকেই পাঠিয়েছেন এই সিরিয়ায় বা শামে। শাম বা সিরিয়া এটাই কিয়ামতের ময়দান হবে। কিয়ামতের দিন লোকেরা এখানেই উপস্থিত হতে থাকবে।
এছাড়াও সিরিয়া সম্পর্কে নবী (সা.)-এর বেশ কিছু হাদিস রয়েছে। একটি হাদিসে এসেছে, মুয়াবিয়া (রা.) বর্ণনা করেছেন, তিনি বলেন, আমি নবী (সা.)-কে বলতে শুনেছি, আমার উম্মতের একটি দল সর্বদা আল্লাহর দ্বীনের ওপর অটল থাকবে। তাদের যারা অপমান করতে চাইবে অথবা তাদের বিরোধিতা করবে, তারা তাদের কোনো ক্ষতি করতে পারবে না। এমনকি কেয়ামত আসা পর্যন্ত তারা এ অবস্থার ওপর থাকবে। এই দলটি যে সিরিয়াতেই অবস্থান করবেন এর সপক্ষে বুখারি শরীফের বিভিন্ন হাদিসে সাহাবিদের উক্তি আছে। উমাইর ইবনে হানি (রা.) মালিক ইবনে ইউখামিরের বরাত দিয়ে বলেন, মু’আজ (রা.) বলেছেন, ওই দলটি সিরিয়ায় অবস্থান করবে। মুয়াবিয়া বলেন, মালিক (রা.) এর ধারণা যে, ওই দলটি সিরিয়ায় অবস্থান করবে বলে মুআজ (রা.) বলছেন। (বোখারি : ৩৬৪১)।
ইবনু উমার (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী (সা). বলেন, হে আল্লাহ! আমাদের শামে (সিরিয়া) ও ইয়ামেনে বরকত দান করুন। লোকেরা বলল, আমাদের নজদের। তিনি পুনরায় বললেন, হে আল্লাহ! আমাদের শাম দেশে ও ইয়ামেনে বরকত দান করুন। লোকেরা আবারও বলল, আমাদের নজদের। তখন তিনি বললেন, সেখানে তো রয়েছে ভূমিকম্প ও ফেতনা-ফ্যাসাদ; আর শয়তানের শিং সেখান থেকেই বের হবে (তার উত্থান ঘটবে)। (বোখারি : ১০৩৭)।
আরও একটি হাদিসে এসেছে, আবদুল্লাহ ইবনু হাওয়ালা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, হে ইবনে হাওয়ালা তুমি যখন দেখতে পাবে যে, খেলাফত পবিত্র ভূমিতে অবতরণ করেছে (বিভিন্ন বর্ণনার আলোকে হাদিস বিশারদদের মন্তব্য পবিত্র ভূমি বলতে শাম বা সিরিয়াকে বোঝানো হয়েছে) তখন মনে করবে যে কেয়ামত-পূর্ববর্তী ভূমিকম্প এবং ঐতিহাসিক বিপর্যয় ও বড় বড় ঘটনাবলি প্রকাশের সময় নিকটবর্তী হয়ে গেছে। আমার এ দুই হাত তোমার মাথার যত কাছাকাছি, তখন কেয়ামত তার চেয়েও নিকটবর্তী হয়ে যাবে। (মুসনাদে আহমাদ : ২২৪৮৭, আবু দাউদ : ২৫৩৫)।
অন্য একটি বর্ণনায় আছে, মুয়াবিয়া ইবনু কুররা (রা.) থেকে তার বাবার সূত্রে বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যখন সিরিয়াবাসী খারাপ হয়ে যাবে তখন তোমাদের (মুসলমানদের) মাঝে আর কোনো কল্যাণ থাকবে না। তবে আমার উম্মতের মধ্যে একটি দল সব সময়ই সাহায্যপ্রাপ্ত (বিজয়ী) থাকবে। যেসব লোক তাদের অপমানিত করতে চায় তারা কেয়ামাত পর্যন্ত তাদের কোনো ক্ষতি সাধন করতে পারবে না। (তিরমিজি : ২১৯২)।
আবু হুরায়রা (রা.) বর্ণনা করেছেন, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যখন বড় বড় যুদ্ধ সংঘটিত হবে, তখন আল্লাহ তায়ালা দামেস্ক থেকে মাওয়ালিদের সমন্বয়ে গঠিত একটি সেনাবাহিনী পাঠাবেন। তারা হবে সমগ্র আরবে সর্বাধিক দক্ষ অশ্বারোহী এবং উন্নততর সমরাস্ত্রে সজ্জিত। আল্লাহ তায়ালা তাদের দ্বারা দ্বীন ইসলামের সাহায্য করবেন। (সুনানে ইবনে মাজাহ : ৪০৯০)। ‘মাওয়ালি’ একাধিক অর্থবিশিষ্ট শব্দ। অনেকের মতে, এখানে মাওয়ালি বলতে প্রাচীন মুসলিমদের হাতে ইসলাম গ্রহণকারী অমুসলিম বংশোদ্ভূত মুসলিমদের বুঝানো হয়েছে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন