সোমবার, ২৩ জুলাই ২০১৮ ০১:৪৭:০৮ পিএম

খিলগাঁওয়ে নিখোঁজ এনজিও কর্মীর লাশ উদ্ধার

নগর জীবন | সোমবার, ১৪ মে ২০১৮ | ০৯:০৫:০৮ পিএম

রাজধানীর খিলগাঁওয়ে নিখোঁজের দুদিন পর হাত পা বাধা অবস্থায় নদী থেকে বিল্লাল হোসেন (৩২) নামের এক এনজিও কর্মীর লাশ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। তিনি আশা নামের একটি এনজিওর খিলগাঁও থানার জুনিয়র কর্মকর্তা ছিলেন।

খিলগাঁওয়ের বাবুর জায়গা নামেক এলাকার বালুনদী থেকে সোমবার সকাল ১০টার দিকে মৃতদেহটি উদ্ধার করা হয়।

নিহত বিল্লালের বাড়ি বগুড়ার গাবতলী এলাকায়। তার পিতা নাম মোহাম্মদ দুলাল প্রামাণিক।

স্থানীয়রা বলেন, `অজ্ঞাত স্থানে ওই এনজিও কর্মীকে হত্যার পর লাশ ঘুম করতে নদীতে ফেলে দেওয়া হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কারণ নিহতের, দুই হাত, দুই পা ও কোমড় রশি দিয়ে বাধা ছিল, মুখমণ্ডল পলি ব্যাগে বাধা ও গলাও রশি দিয়ে বেধে গিট দেওয়া ছিল। এছাড়াও শরীরের একাধিক স্থানে ছুরির আঘাতের চিহ্ন ছিল।`

তারা আরো বলেন, এলাকার লোকজন সোমবার সকাল নদীতে ভাসমান অবস্থায় ওই লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ এসে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দলের মাধ্যমে ওই লাশ নদী থেকে তোলা হয়। এদিকে এ ঘটনায় সন্দেহজনক এক জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটকও করা হয়েছে।

এ বিষয়ে খিলগাঁও থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুর রহিম বলেন, আশা’র একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা জানান, বিল্লাল হোসেন খিলগাঁওয়ের সি ব্লকে অবস্থিত আশার দ্বিতীয় শাখার লোন শাখার কালেকশন বিভাগের জুনিয়র কর্মকর্তা ছিলেন। বিভিন্ন ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীকে দেওয়া ঋণের কিস্তির টাকা উঠানো তার নিয়মিত কাজ ছিল। গত ১২ মে শনিবার তিনি নিয়মমতো কিস্তির টাকা উঠাতে অফিস থেকে বের হন। এদিন তার এক লাখ ২৫ হাজার টাকা আদায়ের কথা ছিল। তবে তিনি ফিরে না আসায় পরদিন রবিবার আশা’র পক্ষ থেকে খিলগাঁও থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়। পরবর্তীতে আজ (১৪ মে) সোমবার তার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, অজ্ঞাত দুষ্কৃতকারীরা তাকে অজ্ঞাত স্থানে হত্যা করে লাশ গুমের উদ্দেশ্যে ওই জায়গায় ফেলে রেখে যায়। আর লাশটি গুম করার জন্য লোহার তার দিয়ে ভারি রাবিশ তার শরীরে বেঁধে নদীতে ডুবিয়ে দেওয়া হয়েছিল বলে ধারণ করা হচ্ছে।

নিহতের সুরতহাল সম্পর্কে এসআই জানান, নিহতের পেটে একাধিক ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। এতে তার নাড়িভুড়ি আংশিক বের হয়ে গেছে। বিকালে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এ ঘটনায় থানায় একটি হত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও তিনি জানান।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন