মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮ ০৫:২৮:৫৮ এএম

খুলনায় নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় গুলিবিদ্ধ ২

জেলার খবর | খুলনা | রবিবার, ২০ মে ২০১৮ | ০৯:০৫:২৩ পিএম

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের (কেসিসি) ৭ নম্বর ওয়ার্ডে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। এতে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনাম মুন্সি ও বাবু নামে দুইজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

এ ঘটনায় অভিযান চালিয়ে অস্ত্রসহ ছয়জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রোববার খালিশপুর থানায় অস্ত্র ও দ্রুত বিচার আইনে দুটি মামলা হয়েছে। এর আগে গত শনিবার রাতে নগরীর কাশিপুর পদ্মা-মেঘনা গেট এলাকায় এ সহিংসতার ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, ৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও খুলনা বিভাগীয় ট্যাংক-লরি শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এনাম মুন্সি গত শনিবার সন্ধ্যায় ইফতারি শেষে হাজীবাড়ি সংলগ্ন মসজিদে নামাজ পড়তে যাচ্ছিলেন।

এ সময় ৩/৪ জন যুবক এনাম মুন্সির ওপর হামলা চালিয়ে তাকে আহত করে। সেই সঙ্গে ১০-১৫ রাউন্ড গুলি ও ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায়।

এতে বাবু নামে আরেক যুবক রাবার বুলেট বিদ্ধ হয়। সঙ্গে সঙ্গে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। রাত ৯টার দিকে এনাম মুন্সী ও বাবুর ওপর হামলার প্রতিবাদে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল বের করে।

এ সময় মেঘনা গেট সংলগ্ন মৃত ওয়াদুদ মুন্সি নামে পুলিশের এক সাবেক সদস্যের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করা হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল ও আশপাশে অভিযান চালিয়ে ইমরান নামে একজনকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করে। সেই সঙ্গে ঘটনাস্থল থেকে রাবার বুলেটের বিস্ফোরিত ৩টি খোসা উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে কাশিপুর এলাকার সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে মো. মাহফুজ (২২), রাজা সরদারের ছেলে পাপ্পু সরদার (২১), আজিজুর রহমানের ছেলে খালিদ বিন ওয়ালিদ (২৬), মনির হোসেনের ছেলে মো. সুমন (২৭), শেখ বাদশার ছেলে মো. সানি (২৮) ও রফিকুল ইসলামের ছেলে মো. ইমরান হাসানকে (২৪) গ্রেফতার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় আহত এনাম মুন্সি রোববার বাদী হয়ে খালিশপুর থানায় ১৯ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ৮-১০ জনকে আসামি করে মামলা করেছেন। বর্তমানে নগরীর ৭নম্বর ওয়ার্ড এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

এ ব্যাপারে খুলনা পুলিশের (কেএমপি) অতিরিক্ত উপ-কমিশনার সোনালী সেন বলেন, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বর্তমানে এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। সেই সঙ্গে এ ঘটনায় অস্ত্র ও দ্রুত বিচার আইনে দুটি মামলা হয়েছে। জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন