বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ ০৫:৫১:০৩ এএম

বাস চাপায় নিহত নাজিমের ঘাতকদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

সাদির হোসেন রাহিম | জেলার খবর | ভোলা | সোমবার, ২১ মে ২০১৮ | ০৪:১৯:২৫ পিএম

লালমোহন ফাউন্ডেশন ঢাকা এর সাধারণ সম্পাদক ও ইংরেজি পত্রিকা The Daily Dhaka Tribune এর বিজ্ঞাপন বিভাগের সিনিয়র কর্মকর্তা, ঐক্যতান-৯২ এর সদস্য সচিব, মোঃ নাজিম উদ্দিন কে হত্যাকারী ঘাতক বাস চালকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে “লালমোহন ফাউন্ডেশন" এর উদ্যোগে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় দি ডেইলি ঢাকা ট্রিবিউন, লালমোহন ফাউন্ডেশন, ঢাকাস্থ লালমোহন ছাত্র কল্যাণ সংসদ, ঢাকাস্থ তজুমদ্দিন ছাত্র কল্যাণ সংসদ, ঐকতান-৯২, ভোলা ব-দ্বীপ ফোরামের নেতৃবৃন্দ সহ ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সকল শ্রেনী পেশার মানুষের উপস্থিতিতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন ভোলা-৩ আসনের সংসদ সদস্য দ্বীপবন্ধু আলহাজ্ব নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন।

এ সময় তিনি বলেন, নাজিমের মৃত্যু কোনো দুর্ঘটনা নয় এটি একটি পরিকল্পিত হত্যা। প্রশাসনের কাছে দাবি তারা যেনো সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে হত্যার মূল রহস্য বের করে আসামীদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির ব্যাবস্থা করে। প্রতিনিয়ত লাইসেন্স বিহীন ড্রাইভারদের অদক্ষতা ও অসচেতনতার কারনে অকালে জড়ে যাচ্ছে বহু মানুষের প্রান। ভবিষ্যতে নাজিমের মতো কাউকে সড়ক চলাচলের পথে মৃত্যুর মুখে পরতে যাতে না হয় এবং নিরাপদ সড়কে মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের বিষয়টি কে গুরুত্ব দিয়ে আগামী সংসদ অধিবেশনে এ বিষয়টিকে আমি তুলে ধরবো।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, লালমোহন ফাউন্ডেশনের সভাপতি হাসান মাহমুদ, ঢাকাস্থ তজুমদ্দিন ছাত্র কল্যাণ সংসদের উপদেষ্টা এইচ এম ইব্রাহিম, উপদেষ্টা মোঃ আরিফ, ঢাকাস্থ তজুমদ্দিন ছাত্র কল্যাণ সংসদের সভাপতি আতিকুর রহমান শাকিল, সম্পাদক মোঃ মমিন উদ্দিন সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

উল্লেখ্য যে, গত বৃহস্পতিবার (১৭ মে) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে যাত্রাবাড়ীতে মেয়র হানিফ ফ্লাইওভার দিয়ে মোটরসাইকেলে করে গুলিস্তানের দিকে যাচ্ছিলেন নাজিম উদ্দিন। ফ্লাইওভারে উঠতেই তিনি পড়ে গেলেন দুটি বাসের প্রতিযোগিতার মধ্যখানে। মঞ্জিল ও শ্রাবণ সুপার পরিবহনের দুটি বাস মরিয়া হয়ে প্রতিযোগিতা করছিল কে কার আগে যাবে। গতি নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে শ্রাবণ সুপার পরিবহনের বাসটি নাজিমের মোটরসাইকেলটিকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয়। তিনি ছিটকে ফ্লাইওভারের সড়কে পড়ে গুরুতর আহত হন। স্থানীয়রা নাজিমকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসেন। ১০টা ১০ মিনিটে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরবর্তীতে এ ঘটনায় ঐদিন সন্ধ্যায় নাজিম উদ্দিনের ভায়রা আবদুল আলিম বাদি হয়ে যাত্রাবাড়ী থানায় একটি মামলাটি করেন।

নাজিমের গ্রামের বাড়ি ভোলার লালমোহন উপজেলার কালমা ইউনিয়নের বালুচরে। বাবার নাম আনিসুল হক। তারা তিন ভাই, পাঁচ বোন। ভাইদের মধ্যে সবার বড় ছিল নাজিম। মারা যাওয়ার তিনদিন আগে রাজধানীর আদদ্বীন হাসপাতালে রাইসা আক্তার নামে একটি কন্যা সন্তানের জনক হয়েছেন নাজিম। এছাড়া মুনমুন নামে আট বছরের আরও একটি কন্যা রয়েছে। তার স্ত্রী এখনও আদদ্বীন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন