মঙ্গলবার, ১৯ জুন ২০১৮ ১০:০০:৫৫ পিএম

ভারতে চলন্ত ট্রেনে বিষাক্ত মাকড়সার কামড়ে যুবকের মৃত্যু

আন্তর্জাতিক | মঙ্গলবার, ২২ মে ২০১৮ | ১০:৫১:২৩ এএম


ভারতের পশ্চিমবঙ্গে চলন্ত ট্রেনে ট্যারেন্টুলার (বিষাক্ত মাকড়সা) কামড়ে পিন্টু সাউ (৩৮) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।

পশ্চিমবঙ্গের পূর্ব মেদিনীপুরের এগরা থানার ছত্রী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ছেলের চিকিৎসা করাতে তামিলনাড়ু গিয়েছিলেন পিন্টু সাউ। সেখান থেকে ১৮ মে কন্যাকুমারী এক্সপ্রেসে স্লিপার ক্লাসে চড়ে বাড়ি ফিরছিলেন তারা। ১৯ মে রাতে স্ত্রী ও ছেলে নিচে এবং পিন্টু ওপরের বাঙ্কারে ঘুমিয়েছিলেন। এসময় ঘুমের ঘোরে হঠাৎ পায়ে কিছু একটা কামড়ানোর অনুভব করে পিন্টু সাউ। এরপর থেকেই পায়ে জ্বালা হতে শুরু করে তার। তিনি বিষয়টি তার স্ত্রী প্রনতিকে জানান। কিছু সময় পরে পিন্টুর পায়ের ব্যাথা সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়ে। স্বামীর কষ্ট দেখে প্রনতি টিটিকে বিষয়টি জানান। তবে তারা কোনো গুরুত্ব দেয়নি বলে অভিযোগ প্রনতির।

রোববার ট্রেনটি ওড়িশা পৌঁছালে প্রনতি আবারও টিটিকে বিষয়টি জানালে একজন চিকিৎসক তাকে দেখতে আসেন। চিকিৎসক তেমন কিছু না বলে তাৎক্ষণিক যন্ত্রণা কমার জন্য পেনকিলার ট্যাবলেট দিয়ে চলে যান।

পরে খড়গপুরে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ফের তাকে এগরার গাড়িতে তুলে দেয়া হয়। বাড়িতে ফেরার ঘণ্টাখানেক পর থেকে আবারও শুরু হয় যন্ত্রণা। পরে রাত ১টার দিকে এগরা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে। অবশেষে সোমবার (২১ মে) ভোররাতে পিন্টুর মৃত্যু হয়।

চিকিৎসকদের দাবি, ট্যারেন্টুলার মতো কোনো বিষাক্ত পোকার কামড়ে তিনি মারা গেছেন।

এ ঘটনায় রেল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফেটে পড়ে মৃতের পরিবার। তারা প্রশ্ন তুলেছেন- কীভাবে চলন্ত ট্রেনের ভেতরে ট্যারেন্টুলার মতো বিষাক্ত মাকড়সা আসে? আর কেনই বা তার সঠিক চিকিৎসা করানো হলো না?

তাদের দাবি, রেল কর্তৃপক্ষের উচিত ছিল ভালো কোনো হাসপাতালে পিন্টুর চিকিৎসা করানো। কিন্তু তা না করে ভ্রান্ত সান্ত্বনা দিয়ে তারা (রেল কর্তৃপক্ষ) তাকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছে।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন