বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮ ১১:৫৭:২৬ পিএম

ডুয়েট ছাত্রলীগে পদবঞ্চিতদের তাণ্ডব, আহত অর্ধশতাধিক

শিক্ষাঙ্গন | বুধবার, ২৩ মে ২০১৮ | ০৫:২৯:৪৯ পিএম

ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (ডুয়েট) ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতদের তাণ্ডবে অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজী নজরুল ইসলাম হলে এই ঘটনা ঘটে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ২৬ এপ্রিল ডুয়েট ছাত্রলীগের নতুন কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্র নির্বাহী সংসদ। এতে পদবঞ্চিত হয় মো. শাহেদ খান, মো. হাফিজুর রহমান এবং শামিল হাসান শাহ আলমসহ কয়েকজন ছাত্রলীগ নেতা। কমিটি ঘোষণার পর তারা ক্যাম্পাসে নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করে। কমিটির নতুন সভাপতি মো. তাইবুর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক বিনয় ব্যানার্জীর যৌথ নেতৃত্বে তাদের পরিকণ্পনা ব্যর্থ হয়।

গত সোমবার সভাপতি মো. তাইবুর রহমানের অনুপস্থিতিতে শামিল হাসান শাহ আলমের অনুসারী মো. ওয়াফিক কাজী নজরুল ইসলাম হলে সভাপতির কর্মীদের হুমকি দিতে গেলে ধাওয়া খেয়ে ড্রেনে পরে আহত হন।

এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে আবার ক্যাম্পাসে সক্রিয় হয় নৈরাজ্য সৃষ্টিকারী সংশ্লিষ্ট মহল। মঙ্গলবার সভাপতি তাইবুর রহমান ক্যাম্পাসে ফিরলে তাকে স্বাগতম জানাতে সন্ধ্যার পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফটকে জড়ো হয় তার কয়েকজন কর্মী। এ সময় সেখানে মো. শাহেদ খান, মো. হাফিজুর রহমান এবং শামিল হাসান শাহ আলমের নেতৃত্বে দা, চাপাতি, হকিস্টিক এবং আরও কিছু দেশীয় অস্ত্রসহ তাদের অনুসারীরা হামলা করলে সভাপতির কর্মীগণ ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়ে।

এরপর মঙ্গলবার রাতে হামলা চালানো হয় কাজী নজরুল ইসলাম হলে। এ সময় ভাঙচুর করা হয় হলের ১৪টি কক্ষ। এ সময় অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী ও শিক্ষার্থী আহত হন। আহতদের শহীদ তাজউদ্দীন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

এদিকে ঘটনার পর পুলিশ ডুয়েট ক্যাম্পাসে অবস্থান নেন। ইতিমধ্যে ছাত্রদের হল খালি করার নির্দেশ দিয়েছেন ডুয়েটের ছাত্রকল্যাণ পরিচালক।

ডুয়েটের ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলেন, ‘পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি পেতে কিছুটা বিলম্ব হওয়ায় পরিস্থিতি শান্ত করতে একটু সময় লেগেছে এবং আরও সহিংসতা এড়াতে ছাত্র হলগুলো খালি করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

জয়দেবপুর থানার সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মো. রাসেল জানান,‘আদিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সহিংসতার এই ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ৩০ থেকে ৪০ জনকে আটক করা হয়।’

এএসপি আরও জানান, ‘এ ঘটনায় বর্তমান সাধারণ সম্পাদক বিনয় ব্যানার্জি, সাবেক সহ-সভাপতি হানিফ মাহমুদ, আবুল হোসেন আকাশ, ইয়াসির আরাফাত, জাহিদুল ইসলামসহ মোট ছয়জনকে আটক রেখে বাকিদের ছেড়ে দেওয়া হয়।’

পরে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আলাউদ্দিন মুছলেখা দিয়ে বাকি শিক্ষার্থীদেরও থানা থেকে নিয়ে যান বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।আমাদের সময়।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন