বৃহস্পতিবার, ২১ জুন ২০১৮ ১২:১৬:০৩ পিএম

মেসেজে জানা যাবে লোডশেডিংয়ের আগাম তথ্য

জাতীয় | বৃহস্পতিবার, ২৪ মে ২০১৮ | ০২:৩৪:০৬ পিএম

মোবাইল ফোনে মেসেজে বা ক্ষুদে বার্তা পাঠানোর মাধ্যমে লোডশেডিংয়ের আগাম তথ্য জানাবে বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানিগুলো। দেশের ছয় বিতরণ কোম্পানিকে এ বছরের মধ্যে এই বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগ।

একইসঙ্গে জুন মাসের মধ্যে সব গ্রাহককে এসএমএসের মাধ্যমে বিলের তথ্য জানানোরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে ডিপিডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিকাশ দেওয়ান জানান, ইতোমধ্যে ঢাকার স্বামীবাগ ও কাকরাইল এলাকার গ্রাহকদের লোডশেডিংয়ের আগাম তথ্য পাঠানোর কাজ শুরু করেছেন তারা। অন্য এলাকাগুলোতেও এই কাজ চালুর করার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন আছে।

ডেসকোর এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, বর্তমানে গুলশানের গ্রাহকরা লোডশেডিংয়ের আগাম তথ্য জানার সুবিধা পাচ্ছেন। তবে এখনো সব গ্রাহককে এই সুবিধা দেওয়া যাচ্ছে না। তবে কাজ চলছে। পর্যায়ক্রমে ডেসকোর আওতাধীন সব এলাকায় এই কার্যক্রম চালু করা হবে। এছাড়া পিডিবি, ওজোপাডিকো এবং নেসকো তাদের গ্রাহকদের এসএমএসের মাধ্যমে লোডশেডিংয়ের তথ্য জানানোর বিষয়ে কাজ শুরু করেছে বলেও তারা বিদ্যুৎ বিভাগকে জানিয়েছে।

বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্র জানায়, এ বছরের জুনের মধ্যে শতভাগ গ্রাহককে এসএমএসের মাধ্যমে বিলের তথ্য জানানোর সেবার আওতায় নিয়ে আসার নিদের্শ দেওয়া হয়েছে

বুধবার বিদ্যুৎ বিভাগের সমন্বয় সভায় লোডশেডিংয়ের আগাম তথ্য জানানোর ব্যাপারে বিতরণ কোম্পানিগুলোকে তাদের সর্বশেষ কাজের অবস্থা সম্পর্কে অবহিত করতে বলা হয়েছে।

এদিকে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) জানায়, এপ্রিল পর্যন্ত তাদের ২৬ লাখ ৮৮ হাজার ৪২৭ জন গ্রাহকের মধ্যে ১৯ লাখ ২২ হাজার ২৩০ গ্রাহককে এসএমএসের মাধ্যমে বিলের তথ্য দেওয়া শুরু করেছে তারা। মোট গ্রাহকের ৭১ দশমিক ৫২ শতাংশকে এই সেবা দেওয়া হচ্ছে।

পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (আরইবি) জানায়, এক কোটি ৬১ লাখ ৭০ হাজার গ্রাহক বর্তমানে এই সেবা পাচ্ছেন, যা মোট গ্রাহকের ৭৩ দশমিক ৫০ ভাগ। ঢাকা বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানি (ডিপিডিসি) মোট নয় লাখ ৫৫ হাজার ৬৪১ জন গ্রাহকের মধ্যে আট লাখ ১৮ হাজার ৪০৬ জনকে এই সেবার দিচ্ছে, যা মোট গ্রাহকের ৮৬ ভাগ। ঢাকা বিদ্যুৎ সরবরাহ কোম্পানি (ডেসকো) তাদের সাত লাখ ৪২ হাজার ৮৫৯ জন গ্রাহকের মধ্যে ছয় লাখ ৭৮ হাজার ৮৮৬ জনকে এসএমএস করে বিলের তথ্য জানায়, যা মোট গ্রাহকের ৯০ ভাগ। তবে এই গ্রাহকের মধ্যে প্রি-পেইড মিটার যারা ব্যবহার করছেন তারা নেই।

আরইবি সূত্রে আরও জানা যায়, পশ্চিমাঞ্চল বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানি (ওজোপাডিকো) মোট ১০ লাখ ৭০ হাজার ৭২১ জনের গ্রাহকের মধ্যে ৯ লাখ ২৮ হাজার ৩১৫ জন গ্রাহককে এই সেবা দিচ্ছে, যা মোট গ্রাহকের ৮৬ দশমিক ৭০ ভাগ। নর্দান বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানি (নেসকো) তাদের গ্রাহকদের মধ্যে ৬ লাখ ৪৯ হাজার গ্রাহককে এই সেবা দিচ্ছে, যা তাদের মোট গ্রাহকের ৪৮ ভাগ।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন