বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮ ১১:০০:৪৭ পিএম

মাগুরায় সাকিবের ভোট নিয়ে যা বললেন সাকিবের বাবা

খেলাধুলা | শুক্রবার, ১ জুন ২০১৮ | ১২:৩৬:২৯ এএম

সাকিবের বাবাজাতীয় দলের ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানের নির্বাচনে অংশ নেয়ার গুঞ্জন থাকলেও এ বিষয়ে তিনি পরিবারের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি এখনও। তার নিজ এলাকা মাগুরায় নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিয়ে দৃশ্যমান কোনও প্রস্তুতিও নেই বিশ্বসেরা এ অলরাউন্ডারের।

টাইগার তারকার বাবা মাশরুর রেজা কুটিল বলেন, ‘এ ধরনের কোনও আলোচনা আমাদের সাথে কখনও সাকিবের হয়নি।’

ছেলের অন্য সব কাজেই সমর্থন করে এসেছেন কুটিল। এক প্রশ্নে বলেন, রাজনীতিতে যোগ দিলেও অন্যথা হবে না।

‘খেলার মাঠে তার সিদ্ধান্তের প্রতি আমরা যেমন আস্থাশীল। তেমনি এ ধরনের কোনও বিষয় থাকলে সাকিব নিজেই সেটা ভালো বুঝবে।’

সম্প্রতি পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল মাশরাফি বিন মুর্তজার পাশাপাশি সাকিব আল হাসানের ভোটে অংশ নেয়ার বিষয়ে গণমাধ্যম কর্মীদেরকে জানান। তিনি মাশরাফির বিষয়টা অনেকটাই নিশ্চিত করেন আর সাকিবের বিষয়টা জানান সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে।

মাশরাফি কোন দল থেকে নির্বাচনে অংশ নেবেন, এই বিষয়টিও জানেন জানিয়ে তার জন্য ভোটও চান পরিকল্পনামন্ত্রী।

আওয়ামী লীগের নেতারা জানান, নড়াইল এক্সপ্রেসের জন্য তার নিজ এলাকা নড়াইল-২ (সদর) আসন পছন্দ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মাশরাফি চাইলে তাকেই দেয়া হবে নৌকা।

তবে সাকিবকে কোন আসনে মনোনয়ন দেয়ার চিন্তা আছে, সেটি জানাতে পারেননি আওয়ামী লীগের নেতারা। এ নিয়ে দলের ফোরামে আলোচনা হয়নি বলে জানিয়েছেন একাধিক নেতা।

বুধবার গণভবনে করা সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সংবাদ সম্মেলনেও সাকিব, মুশফিককে মনোনয়ন দেয়ার বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন রাখেন একজন গণমাধ্যম কর্মী। জবাবে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, সেলিব্রেটিরা সব দেশেই নির্বাচন করেন। এখানেও তারা চাইলে মনোনয়ন পাবেন।

প্রধানমন্ত্রী বরাবর একজন ক্রিকেট ভক্ত। টাইগার তারকারা নানা সময় গণভবনে দাওয়াত পেয়ে থাকেন। কদিন আগেই গণভবনে সাকিব কন্যা আলাইনাকে কোলে নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাইরাল হয়েছে। এ ছাড়াও নানা সময় স্ত্রী, কন্যাকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সময় কাটিয়ে এসেছেন সাকিব। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর ইফতারেও মাশরাফি আর মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে অংশ নেন সাকিবও।

সাকিবের বাড়ি মাগুরা শহরের কেশব মোড় এলাকায়। তার বাবা মাশরুর রেজা কুটিল স্থানীয় কৃষিব্যাংকে চাকরি করেন। মা শিরীন আক্তার গৃহিনী। পরিবারটির কেউ সরাসরি রাজনীতিতে সম্পৃক্ত নন। পরিবারটি আওয়ামী লীগপন্থী হিসেবেও পরিচিত নয়।

সাকিবের বাড়ি যে এলাকায় সেখানে আওয়ামী লীগের অবস্থান বরাবর শক্তিশালী। সদর ও শ্রীপুর উপজেলা মিলিয়ে মাগুরা-১ আসনটিতে ১৯৯১ সালে বিএনপি জিতলেও ৯৬ সাল থেকে পরের প্রতিটি নির্বাচনেই নৌকা মার্কায় আওয়ামী লীগ নেতারা জিতে আসছেন।

বর্তমানে এই আসনের সংসদ সদস্য আবদুল ওয়াহাব। ২০১৫ সালে সংসদ সদস্য এম এস আকবর মারা গেলে উপনির্বাচনে তিনি বিজয়ী হন।

মাগুরা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পংকজ কুমার কুন্ডু বলেন, ‘সাকিবের ক্রিকেট নৈপূণ্যে মাগুরাবাসী গর্বিত। মাগুরার কৃতি সন্তান সে। কিন্তু জেলার সামাজিক কোনো ক্ষেত্রে তার কোনো অংশগ্রহণ নেই। তার সাথে আমাদের ন্যূততম যোগাযোগ পর্যন্ত নেই।’

সাকিবের নিজ বাড়ি মাগুরা শহরের কলেজ পাড়ার বাসিন্দা আবু সালেহ বলেন, ‘সাকিবকে নিয়ে আমরা গর্বিত। আমরা অনেক ক্ষেত্রেই তাকে দিয়ে আমাদের মাগুরা জেলাকে সাকিবের জেলা হিসাবে চিহ্নিত করি। কিন্তু সাকিব স্থানীয় সামাজিকতার প্রশ্নে অনেকটাই পিছিয়ে। তিনি কখন মাগুরায় আসেন কখন যান তা মাগুরাবাসী কমই জানতে পারেন।’

‘তিনি সব ক্ষেত্রেই সামাজিকতা এড়িয়ে চলেন। হতে পারে খ্যাতিমান তারকা হিসাবে কোন বিধিনিষেধ থাকতে পারে। তবু জেলায় এ ধরনের একজন খ্যাতনামা মানুষের কতকিছু করার আছে। কিন্তু তিনি তা করেননি। আর ভোটে দাঁড়ানোর বিষয়েও কোনো প্রস্তুতি আছে বলে দেখিনি আমরা।’

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন