রবিবার, ১৯ আগস্ট ২০১৮ ০৫:৫৩:১৮ এএম

কী খতিয়ে দেখবেন? কণ্ঠ একরামুলের কিনা, স্ত্রীর-কন্যাদের কিনা?

জাতীয় | রবিবার, ৩ জুন ২০১৮ | ০৩:২৮:৪৮ পিএম

টেকনাফ উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও পৌর কাউন্সিলর একরামুল হকের নিহত হওয়ার ঘটনার অডিও ক্লিপটি সরকারের হাতে পৌঁছেছে্। ইতোমধ্যে একজন ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য।

এদিকে সাপ্তাহিক পত্রিকার সম্পাদক গোলাম মোর্তোজা বলছেন, প্রকাশিত অডিও ক্লিপ খতিয়ে দেখবে র‍্যাব। ভালো কথা। আমাদের সংস্কৃতিতে সেটাই ‘খতিয়ে’ দেখার কথা বলা হয়, যেটার প্রমাণ থাকে। নারায়ণগঞ্জের সাত অপহরণ- হত্যা, খতিয়ে দেখা হয়েছিল- লাশগুলো ভেসে উঠেছিল বলে। সাঁওতাল পল্লীর আগুন বা লিমনকে গুলি করে পঙ্গু করে দেওয়াটা, খতিয়ে দেখার ব্যাপারটা- দেশের মানুষের অজানা নয়।

এখন যারা সোচ্চার হয়েছেন, তাদের একটা অংশ বিনা বিচারে হত্যাকাণ্ডের সমর্থক। মূলত এসব হত্যাকাণ্ডকে জায়েজ করার পেছনের একটা বড় শক্তি এরাই। এদের সমর্থনের কারণেই কর্তাব্যক্তিরা বলতে পারেন ‘মহৎ কাজ- জনগণ খুশি।’

জেনে- বুঝে অসত্যের পক্ষে অবস্থান নেন তারা। একটির প্রমাণ পাওয়া গেলে বলেন ‘বিচার চাই’। তারপর বলেন ‘দেখেন কাউকে ছাড়া হচ্ছে না। যেখানে যা ঘটছে, ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’

‘ব্যবস্থা’ নেওয়ার নাম অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার- জেল- বিচার। ফিরিয়ে দেওয়া যায় না সেই সাত জনের জীবন।

একরামের দলীয় পরিচয় এবং অডিও ক্লিপ প্রকাশিত না হলে, এরা কেউ কোনো কথা বলতেন না।

‘খতিয়ে’ দেখে ‘ব্যবস্থা’ই যদি নেওয়া হবে, নারায়ণগঞ্জের ঘটনা জানার পরও ‘বন্দুকযুদ্ধ’কে বৈধতা দেওয়া হলো কেন? আপনারা একরাম হত্যার বিচার চান, মাদকমুক্ত দেশ- সমাজ চান, না ‘বন্দুকযুদ্ধ’র অবসান চান?

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এটাকে ‘ভুল’ হিসেবে দেখছেন। তার বক্তব্যের মর্মার্থ ‘ভুল’ মানে একজনের পরিবর্তে আরেকজন নিহত হয়েছেন। ‘বন্দুকযুদ্ধ’ মানে যে অডিও ক্লিপের বিবরণ, তা হয়ত অজান্তেই স্বীকার করে নিয়েছেন ওবায়দুল কাদের। ‘খতিয়ে’ দেখার কথা তিনিও বলেছেন। (খতিয়ে দেখাটা খুব জরুরি। ডেইলি স্টার নিজেও অডিও ক্লিপগুলোর সত্যতা যাচাই করতে পারেনি। সরকার যদি খতিয়ে দেখে সত্যতা নিশ্চিত করে সেটা সব মহলের জন্যই ভালো।)

কী খতিয়ে দেখবেন? কণ্ঠ একরামুলের কিনা, স্ত্রীর কিনা, কন্যাদের কিনা? কে কীভাবে কথোপকথন রেকর্ড করলেন, তা খতিয়ে দেখবেন? কী করে প্রকাশ্যে এল তা দেখবেন? ব্যবস্থা নেবেন? কার বিরুদ্ধে, কী ব্যবস্থা?

একরামুল কি ফিরে আসবেন? স্ত্রী-কন্যাদের কাছে ফিরিয়ে দেওয়া যাবে একরামুলকে? জনির স্ত্রী কি স্বামীকে ফিরে পাবেন? সন্তান দেখবেন, ডাকবেন তাকে বাবা বলে?

শুধু একরামুলকে নিয়ে হইচই করে লাভ নেই। অন্য ১২০ বা ১৩০ জনেরও স্ত্রী-সন্তান আছেন। তারা অডিও ক্লিপ রেখে মারা না যাওয়ায়, আপনাকে নাড়া দিতে পারেনি। ‘খতিয়ে’ দেখার প্রসঙ্গ আসেনি।

আমরা মাদকমুক্ত সমাজ-দেশ চাই। অপরাধীদের বিচার শাস্তি চাই। বিচারহীন হত্যাকাণ্ডের সংখ্যা গুনতে চাই না।

সূত্র: ডেইলি স্টার

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন