মঙ্গলবার, ১৭ জুলাই ২০১৮ ০৯:৫৭:২৮ এএম

রেললাইনের ত্রুটির কারণে ট্রেন চলাচলে ঝুঁকি বাড়ায় কমছে গতি!

জাতীয় | রবিবার, ৩ জুন ২০১৮ | ০৪:২২:৪৬ পিএম

রেললাইনের নিচ থেকে কোথাও কোথাও মাটি সড়ে গেছে, খুলে গেছে লাইনের নাট বল্টু, নেই জয়েন্ট ক্লিপও। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এসব কারণে ট্রেন চলাচলে ঝুঁকি বাড়ছে। তাই ঝুঁকি কমাতে কমছে ট্রেনের গতি। ঈদ যাত্রায় এসব প্রভাব পরবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। রেলের মহাপরিচালক বলছেন সবকিছু ঠিক আছে ।

রাজধানীর মগবাজার রেললাইনে বৃষ্টির পানিতে মাটি সড়ে যাওয়ায় ট্রেন আসলে লাইন দেবে যাচ্ছে। লাইনের সংযোগে অনেক জায়গায় মরিচা ধরেছে, খুলে গেছে সংযোগ পয়েন্টের নাট বল্টু, নেই জয়েন্ট ক্লিপও।

এমন অবস্থা মালিবাগ, তেজগাঁওসহ বেশ কিছু এলাকা। লাইনের দুপাশে ২০ ফুট করে জায়গা রাখার কথা থাকলেও দখল ছাড়েনি কেউ।

বুয়েটের এক্সিডেন্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউট বিশেষজ্ঞরা বলছেন, রেললাইনের মাঝে ৫শ’ থেকে ৮শ’ কিউবিক মিটার পাথর দরকার। কিন্তু মালিবাগের রেললাইনের কোথাও কোথাও সেই নূন্যতম পাথরটুকুও নেই।

এদিকে মিটারগেজ রেলপথে ট্রেনের গতিবেগ ৮০ কিলোমিটার, কিন্তু চলছে ৩২ কিলোমিটার বেগে। সংস্কার করা না হলে দুর্ঘটনার পাশাপাশি শিডিউল বিপর্যয়ের আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের।

বুয়েট সহকারী অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম বলেন, অনেক সময় স্লিপার থাকে না বা ভাঙা থাকে এবং মাটির দুর্বলতার কারণে ঈদের সময় যখন অতিরিক্ত চাপ আসে তখন ট্রেনে যেকোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। দুর্ঘটনা ঘটলে যেমন প্রাণহানীর সম্ভবনা রয়েছে পাশাপাশি পুরো ট্রেনের শিডিউলটাকে আবার নষ্ট করে যাত্রীদের জন্য দুর্ভোগ বয়ে নিয়ে আসতে পারে।

এদিকে দখলদার ব্যর্থতা স্বীকার করলেও লাইনের ত্রুটির কথা মানছেন না রেলওয়ে মহাপরিচালক আমজাদ হোসেন।তিনি বলেন, রেললাইনের উপর দিয়ে অনেক লোকজন যাতায়াত করে, যেটা কোনো ভাবেই গ্রহণযোগ্য না। পথচারীর পায়ের আঘাতে পাথরগুলো সড়ে যায় এতে রেল রক্ষণাবেক্ষণে সমস্যা হয়। রেল-লাইনের পাশে অবস্থিত বিভিন্ন বস্তি, বাজার উচ্ছেদ করলেও আবার চলে আসে। এটা অনেক বড় একটা সমস্যা। তবে রেললাইন অতটা দুর্বল না, যতটা ট্রেন চলাচলে বিঘ্ন হবে।

পবিত্র ঈদ উপলক্ষে ১০ জুন থেকে শুরু হচ্ছে ঈদ যাত্রা। ধারণা করা হচ্ছে এবারের ঈদে যাত্রী পারাপার করবে ১০ লাখের মতো।-সূত্র: ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশন

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন