সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮ ০৯:২৮:৪৬ এএম

শেষ রক্ত বিন্দু দিয়েও চলনবিলের মানুষের সেবা করতে চাই : পলক

জেলার খবর | নাটোর | রবিবার, ৩ জুন ২০১৮ | ১০:১৪:১৯ পিএম

তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, বাংলাদেশের উন্নয়নে চলনবিল এখন দৃষ্টান্ত। এক সময় চলনবিলকে মানুষ অবহেলিত ও বিচ্ছিন্ন জনপদের বাসিন্দা মনে করতো। দীর্ঘ ৩৭ বছর পর নৌকা মার্কার প্রার্থী বিজয়ের মাধ্যমে চলনবিলের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের জীবনমান ও ভাগ্যের উন্নয়ন হয়েছে। এখন চলনবিলের মানুষ হিসেবে পরিচয় দিতে গর্ববোধ করে এই এলাকার মানুষ।

রোববার দুপুরে নাটোরের সিংড়া পৌর কমিউনিটি সেন্টারে ২০০৮ ও ২০১৪ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনী এজেন্টদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন পলক।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, মায়ের চেয়ে মাসির দরদ কখনো বেশি হয় না। যদি হয় বুঝতে হবে সে ডাইনি। দীর্ঘ ৩৭ বছর চলনবিলে অতিথি পাখিরা শাসন করেছে। কিন্তু উন্নয়ন বা সুশাসন কোনোটির সুবিধাই মানুষকে দিতে পারেনি। ২০০৮ সালের নির্বাচনে এই আসনে নৌর্কার বিজয়ের পর উন্নয়ন ও সুশাসন প্রতিষ্ঠা হয়েছে। চলনবিলে ইকোনোমিক হাব স্থাপন হচ্ছে। যেখানে বেকার ২০ হাজার তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থান হবে। উপজেলার ৪৮ হাজার পরিবারে দেয়া হয়েছে বিদ্যুতের নতুন সংযোগ। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে বহুতল ভবন ও কম্পিউটার ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে। কৃষকের উন্নয়নে ৮০ কিলোমিটার খাল খনন করা হয়েছে চলনবিলে। যোগাযোগ ব্যবস্থায় ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। ৩৭ বছর পর সুফল ভোগ করছে চলনবিলবাসী।

পলক আরও বলেন, রোদ-বৃষ্টি, খরা বন্যায় এলাকার মানুষের সুখে-দুঃখে চলনবিলবাসীর পাশে ছিলাম, আছি এবং আগামীতেও থাকবো। মানুষের সেবা করাই আমার উদ্দেশ্য। জীবনের শেষ রক্ত বিন্দু দিয়ে হলেও চলনবিলের অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে চাই। তাদের সেবা করে যেতে চাই।

এ সময় বিগত সংসদ নির্বাচনে নৌকা মার্কার এজেন্টদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে আগামীদিনেও সকল বিভেদ ভুলে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা মার্কার পক্ষে কাজ করার আহ্বান জানান প্রতিমন্ত্রী পলক।

সিংড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট ওহিদুর রহমান শেখে সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মিনহাজ উদ্দিনের পরিচালনায় মতবিনিময় সভায় উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের ৩৬ জন এজেন্ট বক্তব্য রাখেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- প্রতিমন্ত্রী পলকের স্ত্রী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আরিফা জেসমিন কনিকাসহ উপজেলা, পৌর ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানবৃন্দ ও প্রায় ১০০০ নির্বাচনী এজেন্ট।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন