বুধবার, ১৮ জুলাই ২০১৮ ০১:২১:০৯ এএম

১০ দিন পরেই রাশিয়া ফুটবল বিশ্বকাপ শুরু

খেলাধুলা | সোমবার, ৪ জুন ২০১৮ | ০২:৫৮:৪১ পিএম

আর্জেন্টিনার হয়ে বিশ্বকাপে দুটি হ্যাটট্রিক বাতিস্তুতার। ফাইল ছবিআর্জেন্টিনার হয়ে বিশ্বকাপে দুটি হ্যাটট্রিক বাতিস্তুতার। বিশ্বকাপ, দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থের পর্দা ওঠার আর মাত্র ১০ দিন বাকি। আর মাত্র ১০ দিন পরেই বিশ্বকাপ।

দুরু দুরু বুকে ফুটবলপ্রেমীরা ক্ষণগণনা শুরু করে দিয়েছেন নিশ্চয়ই। শুরু হয়েছে ‘কাউন্ট ডাউন’। প্রতিদিন ধারাবাহিকভাবে ক্ষণগণনা নিয়ে একটি বিশেষ রচনা থাকছে। আজ থাকছে ‘১০’ সংখ্যাটি নিয়ে

নামের সামঞ্জস্য ছাড়া চে গুয়েভেরা ও লুই গুয়েভেরার মধ্যে কোনো মিল নেই। প্রথমজন বিপ্লবের পুরোধা। পরেরজন গোলরক্ষক, বিশ্বকাপে গোল হজমের শেষ কথাও!

১৯৮২, স্পেন বিশ্বকাপ। অংশ নেওয়া দেশগুলো ২২ জনের স্কোয়াড পাঠালেও এল সালভাদর পারেনি। টাকাপয়সার টান থাকায় ২০ জনের স্কোয়াড পাঠায় মধ্য আমেরিকার সবচেয়ে পুঁচকে দেশটি। ১৫ জুন তারা মুখোমুখি হলো হাঙ্গেরির। গ্রুপ পর্বে সেটাই ছিল তাদের প্রথম ম্যাচ। কিন্তু সালভাদরের ফুটবলপ্রেমীরা এ জন্য দিনটাকে মনে রাখেননি। তাঁদের স্মৃতির পাতায় এই ম্যাচের মর্মকথা—বিশ্বকাপের ইতিহাসে আর কোনো দলই তাদের মতো এত বাজে শুরু করেনি!

হাঙ্গেরি তত দিন খর্বশক্তির দল। ১৯৫৪ বিশ্বকাপের ‘ম্যাজিকাল ম্যাগেয়ার্স’দের স্মৃতি শুধু দুঃখই জাগায়। কিন্তু সালভাদরের বিপক্ষে প্রথমার্ধের ২৩ মিনিটের মধ্যে তারা এগিয়ে গেল ৩-০ গোলে। বিরতির পর পুসকাস-হিদেকুটিদের উত্তরসূরিরা করল আরও ৭ গোল! বদলি হয়ে মাঠে নামা লাজলো কিস ৮ মিনিটের ব্যবধানে তুলে নেন হ্যাটট্রিক। বিশ্বকাপের ইতিহাসে এটাই সবচেয়ে দ্রুততম হ্যাটট্রিকের রেকর্ড। বদলি হয়ে মাঠে নেমে বিশ্বকাপে হ্যাটট্রিক তুলে নেওয়া একমাত্র ফুটবলারও এই লাজলো কিস। সে যাহোক, রেফারির শেষ বাঁশি বাজার পর রেকর্ড বইয়ে লেখা হলো বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ব্যবধানে জয়ের রেকর্ড।

১৯৮২ বিশ্বকাপে ভয়াবহ এক পরিস্থিতিতে পড়েছিলেন লুই গুয়েভেরা। ফাইল ছবি১৯৮২ বিশ্বকাপে ভয়াবহ এক পরিস্থিতিতে পড়েছিলেন লুই গুয়েভেরা।

সালভাদর মাত্র এক গোল করে নিজেদের আব্রু বাঁচানোর ব্যর্থ চেষ্টা করেছিল। কিন্তু এতেও কি হয়? ১ গোল করে ৯ গোল ব্যবধানে হারলে ফুটবলীয়-আব্রুর আর কী অবশিষ্ট থাকে! কারণ, সালভাদরের জালে হাঙ্গেরি যে গুনে গুনে ১০ গোল করেছিল! আর গোলবারে থাকার দায়ে লুই গুয়েভেরার জীবনটাও হয়ে উঠেছিল বিভীষিকাময়।

দেশে ফেরার পর অপমান ও গালিগালাজ সহ্য করতে হয়েছে। একবার তাঁর গাড়িতে অ্যাসল্ট রাইফেল নিয়ে হামলা করেছিল ক্ষিপ্ত এক সমর্থক। প্রাণ নিয়ে লুই গুয়েভেরা ফিরলেও তাঁর গাড়ি অক্ষত ছিল না। ২২টি বুলেট সাক্ষী দেবে সে ঘটনার।

গুয়েভেরার এমন গল্পের উল্টো দিকেই কিন্তু দারুণ এক কীর্তির গল্প আছে। বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি ম্যাচে গোল না খেয়ে মাঠ ছাড়ার রেকর্ড দুজনের। ইংল্যান্ডের পিটার শিলটন ও ফ্রান্সের ফ্যাবিয়ান বার্থেজ তিন বিশ্বকাপ খেলেছেন। এর মধ্যে ১০ ম্যাচেই এ দুজনকে ফাঁকি দিতে পারেননি প্রতিপক্ষের কোনো খেলোয়াড়।

আর্জেন্টিনার পক্ষে বিশ্বকাপে দুটি হ্যাটট্রিক করেছেন গ্যাব্রিয়েল বাতিস্তুতা। এর মধ্যে দ্বিতীয়টি ছিল ১৯৯৮ বিশ্বকাপে। সেবার জ্যামাইকার বিপক্ষে গ্রুপ পর্বে ৫-০ গোলে জয়ী হয়েছিল আর্জেন্টিনা। এর মধ্যে শেষ তিন গোলই ছিল বাতিগোলের। ৭৩ থেকে ৮৩—এ ১০ মিনিটেই জ্যামাইকাকে ডুবিয়েছিলেন বাতিস্তুতা।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন