মঙ্গলবার, ২১ আগস্ট ২০১৮ ০৮:১৬:১৯ এএম

অফিস থেকে গ্রাম পুলিশদের বের করে দিলেন ইউএনও

জেলার খবর | যশোর | সোমবার, ৪ জুন ২০১৮ | ০৭:৫৪:১৫ পিএম

থানা হাজিরার বকেয়া বিল চাওয়ায় যশোরের চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ইবাদত হোসেন গ্রাম পুলিশদের গালিগালাজ করে অফিস কক্ষ থেকে বের করে দিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে উপজেলা চত্বরে বিক্ষোভ করেছেন গ্রাম পুলিশরা। সোমবার দুপুরে চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

চৌগাছা উপজেলা গ্রাম পুলিশ সমিতির সভাপতি ও ফুলসারা ইউনিয়ন পরিষদের দফাদার রেজাউল ইসলাম বলেন, আমরা থানা হাজিরা (প্যারেডের) বিলে স্বাক্ষর করার অনুরোধ করতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কক্ষে গেলে তিনি বলেন- বিষয়টি তো তোমাদের বুঝিয়ে বলেছি। একথা বলেই তিনি আমাকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করেন। এ সময় তিনি তার কর্মচারীদের বলেন- এই আমার গাড়ি থেকে লাঠিটি নিয়ে আসো তো ওকে লাঠিপেটা করে বের করে দিই। এ কথা বলে তিনি আমাকে বারবার গালি দিয়ে অফিস থেকে বেরিয়ে যেতে বলেন।

সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও স্বরূপদাহ ইউপির দফাদার হাসানুজ্জামান বলেন, আমাদের থানা হাজিরার ১১ মাসের ভাতা বকেয়া রয়েছে। আমরা সামান্য বেতনে চাকরি করি। পরিবার-পরিজন নিয়ে অর্ধাহারে অনাহারে দিন কাটাই। সেখানে এক একজনের প্রতি মাসে প্রায় ১২০০ টাকা করে ১১ মাসের ভাতার টাকা বাকি রয়েছে। সেই টাকা চাইতে গেলে ইউএনও আমাদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেন।

এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদে উপজেলা পরিষদ চত্বরে বিক্ষোভ করেন গ্রাম পুলিশরা। বিক্ষোভের সময় উপজেলা পরিষদে ছিলেন না চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান। বিকেল ৩টার দিকে গ্রাম পুলিশরা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সরকারি বাসভবনে উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম হাবিবুর রহমান ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান দেবাশীষ মিশ্র জয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

গালিগালাজের বিষয়টি অস্বীকার করে ইউএনও ইবাদত হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, গ্রাম পুলিশরা ভাতার টাকা চায়। এজন্য প্রত্যেকদিন তারা অফিসে আসে। তাদের বুঝিয়ে বলা সত্বেও জোট বেঁধে অফিসে এসেছিল। বলেছি ফান্ড নেই, টাকা দিব কীভাবে।

চৌগাছা উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম হাবিবুর রহমান বলেন, ফান্ডে টাকা না থাকায় তাদের বকেয়া ভাতা দেয়া যাচ্ছে না বলে ইউএনও আমাকে জানিয়েছেন। ঈদের আগে যথাসম্ভব বকেয়া টাকা চৌকিদার-দফাদারদের দেয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, ইউএনও যদি খারাপ ব্যবহার করে থাকেন তাহলে সেটা তিনি ঠিক করেননি। একজন ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তা এমনটি করতে পারেন না।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন