মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮ ০৬:৪৭:৫৩ এএম

আর্জেন্টিনা কামডা কি করল? মুখ দেখাই কেমনে?

বিবিধ | শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮ | ০৫:৪৯:২৪ পিএম

আর্জেন্টিনা কামডা কি করল? মুখ দেখাই কেমনে? আর্জেন্টিনার ম্যাচ শেষ হলো প্রায় দুই দিন । কিন্তু হারের ক্ষতটা যেন এখনো তরতাজা । সেই হার নিয়ে এখনো চলছে নানান হিসাব-নিকাশ । কিন্তু যতই হিসাব-নিকাশ হোক না কেন বাংলাদেশের আর্জেন্টিনাইন ভক্তরা কেমন আছেন তা মনে হয় কান পাতলেই শোনা যায় ।

রাজধানীর মধুবাগ বাজারের মোড়ে বিগত এক মাস ধরে আর্জেন্টিনার জার্সি গায়ে চড়িয়ে ফল বিক্রি করছেন বয়োবৃদ্ধ আতাউর মিয়া। তাল, জাম, কাঁঠালের পসরা সাজিয়ে বসে থাকতেন, ছিল আর্জেন্টিনার পতাকাও। ঘরেও একই অবস্থা।

ছুটির দিনে শুক্রবার ফলের ব্যবসা জমজমাট থাকে। কিন্তু, আজ আতাউর মিয়া দোকানই খোলেননি। পলিথিনে দোকান ঢেকে রেখে তার আশপাশে ঘোরাঘুরি করছেন, একটার পর একটা সিগারেট ফুঁকছেন, চায়ে চুমুক দিচ্ছেন।

দোকান কেন খোলেননি জানতে চাইলে প্রথমে বিরক্তি দেখান আতাউর। দু’একটা কথা বিনিময়ের পর দেন ক্ষোভ উগরে, ‘ভাই মনটা ভালো না। গেল রাতে আর্জেন্টিনা কামডা কি করল? মুখ দেখাই কেমনে? রাইতেও কিছু খাই নাই। সকালেও খাইতে পারতেছি না। দোকান আজ খুলুম না। আমার বিশ্বকাপ শ্যাষ।’

বিশ্বকাপে ক্রোয়েশিয়ার কাছে ৩-০ গোলে হারের পর বাংলাদেশের আনাচে-কানাচে ছিটিয়ে থাকা সব আর্জেন্টিনা ভক্তদের অবস্থা এই আতাউর মিয়ার মতোই। যার প্রতিফলন সবচেয়ে বেশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দেখা গেছে।

বাংলাদেশে আর্জেন্টিনা এবং ব্রাজিল ফুটবল দলের সমর্থক বেশি। মেসিদের সমর্থকরা তাদের সংখ্যাগরিষ্ঠ দাবি করে থাকেন। এই হারের পর ফেসবুকে তাদের মন্তব্য, ‘বাংলাদেশের বিশ্বকাপ শেষ হয়ে গেল। আর বিশ্বকাপ ফুটবল দেখার মানে নেই।’

একদিকে নিজ দলের পরাজয়ের কষ্ট, হারের লজ্জা অন্যদিকে তাদের পোড়াচ্ছে ব্রাজিল সমর্থকদের টিপ্পনি। কুঁড়ে খাচ্ছে সমর্থকদের। যেমন: সাংবাদিক মোক্তাদির রহমান প্রান্তিক টিপ্পনি কেটে নিজের ওয়ালে লিখেছেন, ‘ভর্তি চলিতেছে… ভর্তি চলিতেছে… ব্রাজিলে ভর্তি চলিতেছে… আর্জেন্টিনা সমর্থকদের জন্য সমবেদনা। তবে খুশির খবর হচ্ছে… আমরা ব্রাজিল সমর্থকরা কোনো রকমের শর্ত ছাড়াই আর্জেন্টিনার সমর্থকদের ভর্তি ফরমের মাধ্যমে ব্রাজিলে ভর্তি করে নিচ্ছি!!!’

নাজিরাবাজারের ব্যবসায়ী আহম্মদ জামান তার কষ্টের কথা তুলে ধরে লিখেছেন, ‘এক প্যাকেট বিরিয়ানি সামনে নিয়ে খেলা দেখতে বসেছিলাম। খেলা শেষে বিরিয়ানি সামনে নিয়ে বসে আছিতো আছিই, খেতে পারছি না।’

বেসরকারি চাকরিজীবী মুশফিকুজ্জামান নাসের নিজের ফেসবুক ওয়ালে লিখেছেন, ‘এই গো-হারার সঙ্গে ষড়যন্ত্রের যোগসূত্রতা থাকতে পারে। না হয় রাতারাতি এতো পতাকা কি ভূতে নিয়ে গেল?’

বিমানের পাইলট ক্যাপ্টেন ওয়াহেদুন্নবী তার ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন, ‘ছোট ছেলে আর আমি আর্জেন্টাইন সাপোর্টার ছিলাম। ছোট ছেলে জার্সি কিনেছিল শখ করে, আজ খেলার পর সেটা জমা দিয়ে দিল। বড় পোলা ব্রাজিল, সে আছে মহাআনন্দে, বউ জার্মানি। আজ রাতে বাসায় আমাদের থাকাটা কি ঠিক? এতো বাজে খেলা আমার ইহ জীবনে দেখি নাই।’

আর্জেন্টিনার আসর থেকে ছিটকে যাওয়ার আশঙ্কার মুখে তরুণ মোস্তাক আহমদ বলেছেন, বাংলাদেশের বিশ্বকাপ শেষ।

কেউ কেউ ফেসবুকে প্রতিপক্ষকে টিপ্পনি কেটে আর্জেন্টিনা থেকে ব্রাজিলে যোগ দেয়ার ফানি ফরমও ছেড়েছেন। আর ব্রাজিলের জার্সি পরিহিত এক যুবক জ্ঞান হারানো এক আর্জেন্টিনা সমর্থকের মাথায় পানি ঢালার একটি ছবি রীতিমতো ভাইরাল হয়ে উঠেছে।

ক্রোয়েশিয়ার সঙ্গে শোচনীয় পরাজয়ের পর যেখানে ফিঁকে হয়ে উঠেছে আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপে টিকে থাকা, সেখানে অবশ্য এখনো আশায় বুক বেঁধেছেন কেউ কেউ।

ফেসবুক ব্যবহারকারী শিক্ষক মির্জা মেহেদি হাসান লিখেছেন, ভবিষ্যৎ বাণী। এবার বিশ্বকাপ যাবে মেসির হাতে। বাজি ধরতে পারি।

আশাবাদী সাবেক সরকারি কর্মকর্তা সৈয়দ মিনহাজ তার ওয়ালে লিখেছেন, আশা ছাড়ি নাই। ফাইনাল হবে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা।

দেশের মানুষের এই ফুটবল আবেগ নিয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে ক্রীড়া সাংবাদিক অঘোর মন্ডল বলেন, ‘আমাদের দেশের সমর্থকরা ফুটবল বোঝার চেয়ে আবেগকে বেশি গুরুত্ব দেন। তাই তাদের অনেকের কাছে আর্জেন্টিনার এই পরাজয়ে বিশ্বকাপের জৌলুস কম মনে হবে, এটা মিথ্যা নয়।’

তিনি বলেন, ‘একটা বিষয় হলো আর্জেন্টিনা দেশটির মোট জনসংখ্যা যা, বাংলাদেশে দলটির সমর্থক তার চেয়েও বেশি। এই হারের পর তাদের কাছে হয়তো বিশ্বকাপ শেষ। কারণ, তাদের কাছে বিশ্বকাপ মানে ম্যারাডোনার স্মৃতি, বিশ্বকাপ মানে একা স্বপ্ন ফেরি করে বেড়ানো মেসি।’

এই ক্রীড়া বিশ্লেষক আরও বলেন, ‘কিন্তু, যত ঘটনায় ঘটুক, আসল বিশ্বকাপ হবে ১৫ জুলাই। সেদিন যে চ্যাম্পিয়ন হবে, তাদেরই সবাই মনে রাখবে।’

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন