রবিবার, ২২ জুলাই ২০১৮ ০৩:১০:৪২ পিএম

গালিগালাজ সহ্য করতে না পেরে অবসরে গেলেন ‘ইরানের মেসি’

খেলাধুলা | শুক্রবার, ২৯ জুন ২০১৮ | ০৫:৪২:০৪ পিএম

অশ্রাব্য গালিগালাজ! কখনও সরাসরি কখনও আবার সোশ্যাল মিডিয়ায়। আর সেই গালি সহ্য না করতে পেরেই অবসর নিয়ে নিলেন সর্দার আজমৌন। বিশ্বে যিনি পরিচিত ইরানিয়ান ‘মেসি’ নামে। ইরানের জনতা তাকে ডাকেন এশিয়ার ‘মেসি’ নামে। সেই ‘মেসি’ই এবার অবসরের পথে। গালিগালাজ সহ্য না করতে পেরে অবসরে গেলেন ‘ইরানের মেসি’।

টুর্নামেন্টে আসার আগে জাতীয় দলের হয়ে ৩৩টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলে করে ফেলেছিলেন ২৩টি গোল। তবে বিশ্বকাপে মোটেই নিজের সেরা ছন্দে দেখতে পাওয়া যায়নি তাকে। গ্রুপ-বি’তে স্পেন, পর্তুগালের পরে তৃতীয় স্থানে শেষ করেছে ইরান। কার্লোস কুইরোজের দলকে মোটেই স্বস্তি দেননি তিনি।

এই কারণেই তিনি জাতীয় দল থেকে অবসর নেওয়ার পর বলছেন, ‘‘যন্ত্রণাদায়ক।’’ বিশ্বকাপের মূলপর্বে দেশকে তোলার পিছনে কিন্তু আজমৌনের অবদান অনেক। যোগ্যতা নির্ণায়ক পর্বে ১৪ ম্যাচে ১১টি গোল করেছেন তিনি। তবে বিশ্বকাপে গ্রুপের তিনটি ম্যাচে মরক্কো, স্পেন ও পর্তুগালের বিরুদ্ধে খেললেও গোল করতে পারেননি তিনি।তবে অবসর নেওয়ার পরে ইরানের ‘মেসি’ জানিয়েছেন, এত সমালোচিত হতে হয়েছে তাকে যে তার মা-ও অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।

রাশিয়ার রুবেন কাজানে খেলা স্ট্রাইকার জানিয়েছেন, আমার মা দীর্ঘ অসুস্থতা থেকে সেরে উঠেছিলেন। আমিও খুশি ছিলাম। তবে দুর্ভাগ্যবশত, বেশ কিছু অকৃতজ্ঞ লোকের তরফে আমাকে এবং আমার সতীর্থদের বিশ্রীভাবে দায়ী করা হচ্ছিল। এতেই আমার মায়ের শারীরিক অসুস্থতা আরও চরম পর্যায়ে পৌঁছে গিয়েছে।

এরপরে কার্যত অবসরের স্বপক্ষে সাফাই দিতে গিয়ে তিনি জানিয়েছিলেন, এমন এক পরিস্থিতিতে পৌঁছে গিয়েছিলাম যেখানে যে কোনও একটি বিষয়কে বেছে নিতে হত। আমি আমার মা-কে বেছে নিয়েছি।১৯ বছর বয়সে জাতীয় দলের জার্সিতে অভিষেক ঘটে তার। দেশের সর্বকালের সেরা গোলদাতাদের তালিকায় তিনি পঞ্চম স্থানে রয়েছেন। তাকে তুলনা করা হত বিখ্যাত ইরানিয়ান ফুটবলার আলি দায়ি-র সঙ্গে, যিনি ইরানের সর্বকালের শ্রেষ্ঠ ফুটবলার। দেশের জার্সিতে তাঁর গোল সংখ্যা ১০৯টি।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন