সোমবার, ২৩ জুলাই ২০১৮ ১১:১৪:২৩ পিএম

লিখে দিতে পারি ডিসেম্বরে হাসিনার সরকার থাকবে না: দুদু

রাজনীতি | শনিবার, ৭ জুলাই ২০১৮ | ০৪:৪৮:৫১ পিএম

আওয়ামী লীগ খারাপ অবস্থায় আছে উল্লেখ করে বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান ও কৃষকদলের সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, ‘লিখে নিতে পারেন ডিসেম্বর-জানুয়ারিতে শেখ হাসিনার সরকার থাকবে না’।
শনিবার বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার পরিষদ আয়োজিত ‘বর্তমান প্রেক্ষাপটে মানবাধিকার ও ভোটের অধিকার’ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় প্রধান আলোচকের বক্তব্যে এ মন্তব্য করেন তিনি।
দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে দুদু বলেন, ‘খুবই খারাপ অবস্থায় আছে আওয়ামী লীগ। এই তিন মাসের খেলাটায় একটু থাকেন, আপনারা সক্রিয়ভাবে থাকেন, এই যে সামনের তিন মাস আমি আগেও যা বলেছি এখনও সেটা বলছি খাতায়ও লিখে নিতে পারেন ডিসেম্বর-জানুয়ারিতে শেখ হাসিনার সরকার থাকবে না’। তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনার প্রতি রাগ করে আমি কথা বলছি না। একটা একটা করে বিষয় মিলিয়ে দেখবেন। ২ কোটি টাকার একটি ব্যাপার নিয়ে বেগম জিয়াকে সাজা দেয়া হয়েছে আমরা জানি এটা একটা মিথ্যা মামলা।

দুদু বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ১০ বছরের মধ্যে দেশের ৪ লাখ হাজার কোটি টাকার কোন খোঁজ খবর নাই। ২ কোটি টাকার জন্য সাজা যদি ৫ বছর হয়। তবে ৪ লাখ হাজার কোটি টাকার সাজা হয় কত?
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশে বিএনপির এই শীর্ষনেতা বলেন, ‘কত জন মানুষকে হত্যা করেছেন তার হিসেব আছে? এগুলোর তো জবাব দিতে হবে। ইলিয়াস আলীসহ যাদেরকে গুম করেছেন তাদেরকে ফেরত দিবেন না? আমরা ফেরত চাইবো না? ফেরত দিতে হবে এবং এটি ডিসেম্বর-জানুয়ারির পরেই ফেরত দিতে হবে। কারণ বেগম জিয়া আবার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হবেন।এটা গণতান্ত্রিক আন্দোলনের নিয়মনীতি।
তিনি বলেন, আমরা আপনাদের (সরকারের) ব্যর্থতাকে তুলে ধরে জনমত গঠন করবো। মালয়শিয়ার ঘটনা দেখছেন না আগের প্রধানমন্ত্রী কোথায় এখন? কিন্তু তারপরও আমরা আপনাকে কারাগারে পাঠাবো না। কারণ বেগম জিয়া আপনাকে মাফ করে দিয়েছেন। এটা শুনতেও আপনার খারাপ লাগে। কিন্তু বেগম জিয়া ছাড়াতো আপনার রক্ষা পাওয়ার আর কোন পথ নেই।

বিএনপি দুটি ঘটনার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে জানিয়ে দুদু বলেন,‘একটি নির্বাচন আর অপরটি গণঅভ্যুত্থান। যদি পরিষ্কার ভাল নির্বাচনের ব্যবস্থা না হয়। তাহলে গণঅভ্যুত্থান আর যদি ভাল নির্বাচনের ব্যবস্থা হয় তাহলে নির্বাচনের অভ্যুত্থান দিয়েই দেখিয়ে দিবো বাংলাদেশে কারা শক্তিশালী।

ছাত্রদলের সাবেক এই সভাপতি আরও বলেন,‘স্পষ্ট করে বলি আমরা নির্বাচন করবো, বিএনপি নির্বাচন করবে। আমরা নির্বাচনের জন্যই রাজনীতি করি। কিন্তু এর সঙ্গে আরও একটি সত্য আছে সেটি হচ্ছে আপনার (শেখ হাসিনা)অধীনে নির্বাচন নয়। আপনার অধীনে বাংলাদেশে আর কোন নির্বাচন হবে না। আপনি এমন একটা পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছেন যাতে আমরা নির্বাচনে না যাই আর আমরা এমন একটি পরিস্থিতি সৃষ্টি করবো যাতে আপনার অধীনে নির্বাচন করতে না হয়। নির্বাচন তো হবেই এবং সেই নির্বাচনে বিএনপি জিতবে এবং সরকার গঠন করবে। আপনার যতই খারাপ লাগুক এটা আপনাকে বিশ্বাস করতে হবে’।

এসময় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘আসুন একটা গা ঝাড়া দিয়ে উঠি। আমরা তো জিয়াউর রহমান এবং বেগম জিয়ার সৈনিক একবার উঠে দাঁড়িয়ে বলি এটা আমার শহীদ জিয়ার বাংলাদেশ, এটা আমার বেগম জিয়ার বাংলাদেশ, এটি আমার মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ। এই কথাগুলো বলে শেষ লড়াইয়ের জন্য আমরা রাস্তায় নেমে আসি’।
আয়োজক সংগঠনের চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে এবং মহাসচিব আ স ম মোস্তফা কামালের সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য দেন-বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মাদ রহমতুল্লাহ,খালেদা ইয়াসমিন,কৃষকদলের সহ-দপ্তর সম্পাদক এস কে সাদী প্রমুখ।-শীর্ষনিউজ।

খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন