বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮ ০৮:০০:৫৯ এএম

ইংল্যান্ডকে নিশ্চিত ফাইনালে নেবেন যিনি!

খেলাধুলা | বুধবার, ১১ জুলাই ২০১৮ | ০৪:১০:২১ পিএম

রাশিয়া বিশ্বকাপে ভাগ্যের চাকায় চড়েই তরতর করে শিরোপার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে ইংল্যান্ড। গ্রুপপর্বে গ্রুপ রানার্সআপ হওয়াতেই খুলে যায় ইংল্যান্ডের ভাগ্যের দরজা। তারা পড়ে সহজ অর্ধে। পানির মতো সহজ সেই পথ পেয়ে এরই মধ্যে গ্যারেথ সাউথগেটের দল পৌঁছে গেছে সেমিফাইনালে। ভাগ্যদেবীর আশির্বাদে ইংলিশরা সেই সেমিফাইনালে পেয়ে যাচ্ছে আরও বড় এক সৌভাগ্যের ছোঁয়া। যে সৌভাগ্যের ছোঁয়ায় দল নিশ্চিতভাবেই ফাইনালে উঠতে যাচ্ছে বলে আশাবাদী ইংলিশরা।

ইংলিশদের এই সেমিফাইনাল-সৌভাগ্য হচ্ছেন রেফারি চুনেত চাকির। তুরস্কের এই রেফারির উপরই দায়িত্ব বর্তেছে ইংল্যান্ড ও ক্রোয়েশিয়ার মধ্যকার দ্বিতীয় সেমিফাইনাল ম্যাচটি পরিচালনার। আর সেমিতে চুনেত চাকিরকে রেফারি হিসেবে পেয়ে ফাইনালে উঠার আশায় বুক বাঁধছে ইংল্যান্ড দল। না, রেফারি চুনেত চাকিরের ইংলিশদের পক্ষে বাঁশি বাজানোর দরকার নেই। তিনি মাঠে থাকলে, এমনিতেই জয় পায় ইংল্যান্ড।

হ্যাঁ, সত্যিই তাই। চুনেত চাকির রেফারি থাকা মানেই ইংল্যান্ডের জয় নিশ্চিত! অতীত অন্তত সেটাই বলছে। এর আগে ইংল্যান্ডের ৫টি আন্তজার্তিক ম্যাচ পরিচালনা করেছেন চাকির। সেই ৫ ম্যাচের একটিতেও হারেনি ইংল্যান্ড। জিতেছে ৩ ম্যাচে। যার মধ্যে আছে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ৩-০ গোলের সেই জয়টিও। বাকি দুটি জয় ২০০৮ সালে অ্যান্ডোর বিপক্ষে ও ২০১৪ সালে সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে। বাকি দুটি ম্যাচে ইংলিশদের মাঠ ছাড়তে হয় ড্র নিয়ে। ২০১১ সালে ঘানার বিপক্ষে এবং ২০১২ সালে ইউক্রেনের বিপক্ষে।

ইংলিশদের এই অতি সৌভাগ্যবান রেফারি চুনেত চাকির ক্রোয়েশিয়ার জন্যও ভাগ্য প্রসূত কিনা, তা এখনো পরীক্ষিত নয়। কারণ, ৪১ বছর বয়সী এই তুর্কি রেফারি ক্রোয়েশিয়ার কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচ এখনো পরিচালনাই করেননি।

চুনেত চাকির তাই সৌভাগ্যের ফুল হবেন, নাকি ‘অপয়া’ হবেন, ক্রোয়াটরা তা বুঝতে পারবে আজ মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামের সেমিফাইনাল যুদ্ধের পর। তবে ইংলিশদের বিশ্বাস সত্যি হলে চুনেত চাকির ক্রোয়াটদের কাছে ‘অপয়া’ হিসেবেই আখ্যায়িত হবেন! ইংলিশদের যে দৃঢ় বিশ্বাস, রেফারি ভাগ্য ঠিকই তাদের তুলে দেবে ফাইনালে!

অভিজ্ঞ এই রেফারি এবারের বিশ্বকাপে এ পর্যন্ত দুটি ম্যাচ পরিচালনা করেছেন। দুটিই গ্রুপপর্বে। মরক্কো-ইরান ও আর্জেন্টিনা-নাইজেরিয়া ম্যাচে বাঁশি বাজিয়েছেন তিনি। সেই দুই ম্যাচে মোট ৯টি হলুদকার্ড দেখানো চুনেত চাকির নাইজেরিয়ানদের চক্ষুশূলও হয়েছিলেন। নাইজেরিয়ানদের অভিযোগ, তাদের একটি নিশ্চিত পেনাল্টি দেননি চাকির।

চুনেত চাকিরকে নিয়ে কিন্তু ইংলিশদের অন্য রকম একটা শঙ্কাও আছে। রেফারিং ক্যারিয়ারে এ পর্যন্ত ইংল্যান্ডের তিনজন ফুটবলারকে লালকার্ড দেখিয়েছেন তিনি। এর মাত্র একটিই আন্তর্জাতিক ম্যাচে। ২০১১ সালে ইউক্রেনের বিপক্ষে ম্যাচটিতে ইংল্যান্ডের সাবেক মিডফিল্ডার স্টিভেন জেরার্ডকে লালকার্ড দিখেয়েছিলেন।

এছাড়া চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ম্যাচে তিনি লালকার্ড দেখান ইংল্যান্ডের সাবেক অধিনায়ক জন টেরিকে এবং ক্লাব বিশ্বকাপে লালকার্ড দেখান গ্যারি কাহিলকে। তিনি এই দুটি লালকার্ডই দেখান চেলসির বিপক্ষে।

তবে এই লালকার্ড শঙ্কা নয়, ইংলিশরা চুনেত চাকিরকে ‘ম্যাচ না হারা’র সৌভাগ্যের ফুল হিসেবেই ভাবছে!


খবরটি গুরুত্বপূর্ণ মনে হলে পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন